১৯ নভেম্বর ২০১৭ ইং
সাপ্তাহিক আজকের বাংলা - ৬ষ্ঠ বর্ষ ৪৩শ সংখ্যা: বার্লিন, রবিবার ২২অক্টো – ২৮অক্টো ২০১৭ # Weekly Ajker Bangla – 6th year 43rd issue: Berlin,Sunday 22Oct - 28Oct 2017

বাংলাদেশ সীমান্তে ভারতের ভাসমান চৌকি কেনো?

নিরাপত্তা নিশ্চিত করা

প্রতিবেদকঃ ডিডাব্লিউ তারিখঃ 2016-10-29   সময়ঃ 08:20:00 পাঠক সংখ্যাঃ 358

বাংলাদেশ-ভারত জল সীমান্তে আরো ভাসমান চৌকি স্থাপন করবে ভারত৷ আগামী বছর এই চৌকি স্থাপন করা হবে বলে ভারতীয় সংবাদ মাধ্যম জানিয়েছে৷ সুন্দরবন এলাকায় এই ধরনের তিনটি ভারতীয় ভাসমান চৌকি আছে৷ এবার ইছামতি নদী এলকায় এসব চৌকি হবে৷

বাংলাদেশের বিশ্লেষকরা অবশ্য মনে করেন, ভারতের উচিত হবে বাংলাদেশের সঙ্গে আলাপ আলোচনা করে এধরনের চৌকি স্থাপন করা৷ কেউ কেউ বলছেন, এধরনের চৌকি স্থাপন করে ভারত চায় বাংলাদেশকে সব দিক দিয়ে নিয়ন্ত্রণ করতে৷ নিরাপত্তা ইস্যু আসলে তাদের অজুহাত মাত্র৷ ভাসমান চৌকি স্থাপনের ভারতীয় সিদ্ধান্তের কথা হিন্দুস্তান টাইমসকে জানিয়েছেন ভারতীয় সীমান্তরক্ষী বাহিনী বিএসএফ এর দক্ষিণবঙ্গ ফ্রন্টিয়ারের মহাপরিদর্শক পি এস আর অঞ্জনেইয়ুলু৷ তবে মোট কয়টি আউটপোস্ট স্থাপন করা হবে তা জানাননি তিনি৷ ধারণা করা হচ্ছে ছয় থেকে সাতটি চৌকি স্থাপন করা হতে পারে৷

পশ্চিমবঙ্গ সরকার ইতোমধ্যে কোস্টাল পুলিশ স্টেশন স্থাপন করেছে৷ বৃদ্ধি করেছে উপকূলীয় পুলিশ সদস্যের সংখ্যা৷ নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক বিএসএফ কর্মকর্তা বলেন, ‘‘প্রতিটি আউটপোস্টে ৩৫ থেকে ৪০ জনের একটি দল নিয়োগ করা হবে৷ প্রত্যেক দলের কাছে ৪টি বা ৫টি করে স্পিডবোট থাকবে৷ থাকবে রাডার৷ বোটগুলো এলাকায় টহল দেবে৷ তারা প্রয়োজনে পুলিশসহ অন্যান্য নিরাপত্তাবাহিনীর সদস্যদের সঙ্গে যোগাযোগ করবে৷'' ভাসমান বিওপি স্থাপন করতে এক বছরের মতো সময় লেগে যেতে পারে বলেও জানিয়েছেন তিনি৷

এদিকে, দক্ষিণবঙ্গ ফ্রন্টিয়ার বিএসএফের ডিআইজি আর পি এস জয়সয়াল বলেন, ‘‘আমাদের সদস্যরা ইতোমধ্যে চব্বিশ ঘণ্টাই পাহারা বজায় রেখেছেন, কিন্তু বিওপিগুলো হয়ে যাওয়ার পর পাহারার মান অনেকগুণে বৃদ্ধি পাবে৷''

প্রসঙ্গত, ভাসমান চৌকি স্থাপনের পিছনে ভারত অভ্যন্তরীণ নিরাপত্তাকে গুরুত্ব দিচ্ছে৷ ভারতীয় সংবাদমাধ্যম বলছে পহেলা জুলাই ঢাকার গুলশানে হলি আর্টিজান রেস্টুরেন্টে জঙ্গি হামলার ঘটনায় ২০ জনের মৃত্যুর ঘটনায় দায় স্বীকার করে জঙ্গিগোষ্ঠী আইএস (ইসলামিক স্টেট)৷ এরপর থেকেই তাদের তৎপরতা নিয়ে দিল্লীর উদ্বেগ তৈরি হয়েছে৷ এই হামলা বাংলাদেশ সীমান্তে নজরদারি বৃদ্ধির কারণ৷ এর আগে ২০০৮ সালে মুম্বাই হামলার সঙ্গে জড়িত লস্কর-ই-তৈয়বার সদস্যরাও জলপথে মুম্বই পৌঁছায়৷ ফলে জলসীমান্তের পাহারা জোরদার করাকে গুরুত্ব দিচ্ছে ভারত৷

ভারতীয় সংবাদ মাধ্যমের প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ‘‘বাংলাদেশ ও ভারতের দক্ষিণবঙ্গকে বিভক্ত করে রেখেছে ইছামতি নদী৷ সেই নদীর ৮০ কিলোমিটার এলাকাজুড়ে স্থাপিত হবে এইসব ভাসমান চৌকি৷ সুন্দরবন অঞ্চলে জলসীমায় ১০২টি দ্বীপ রয়েছে যার ৫৪টিতে মানুষ বাস করে৷ বাকিগুলো গভীর অরণ্য এং সেখানে বন্যপ্রাণীর বসবাস৷'' 

ভারতীয় সংবাদ মাধ্যম আরো জানিয়েছে, ভারতের বর্তমান সরকার বাংলাদেশ সীমান্ত বরাবর পাহারা জোরদার করেছে এবং সীমান্তপথে গরু পাচার কমিয়ে এনেছে৷ ক্ষমতায় আসার পরপরই বিজেপি সরকার এ বিষয়ে বিএসএফকে নির্দেশনা দেয়৷ স্পিডবোটের সাহায্যে গরু পাচারকারীদের ধরে ফেলা সম্ভব হয়৷ এর প্রতিক্রিয়ায় মানবাধিকার সংগঠন আইন ও সালিশকেন্দ্রের ভারপ্রাপ্ত নির্বাহী পরিচালক নূর খান ডয়চে ভেলেকে বলেন, ‘‘ভারত আসলে বাংলাদেশকে সব দিক দিয়ে নিয়ন্ত্রণ করতে চাইছে৷ এই ভাসমান চৌকি স্থাপনের পরিকল্পনা তারই অংশ৷ নিরাপত্তা ইস্যু একটি অজুহাত মাত্র৷''

তিনি বলেন, ‘‘এরইমধ্যে ভারত বাংলাদেশকে চারদিক দিয়ে কাঁটাতারে ঘিরে ফেলেছে৷ এবার জলসীমানাও ঘিরে ফেলবে৷ এভাবে নিরাপত্তা নিশ্চিত করা যায়না৷ নিরাপত্তার জন্য দরকার আস্থার পরিবেশ৷ ভারত যা করছে তাতে আস্থার নয়, অনাস্থার পরিবেশ তৈরি হবে৷ বাংলাদেশ সরকারের উচিত এসব ব্যাপারে ভারত সররকারের সঙ্গে কথা বলা, কার্যকর ব্যবস্থা নেয়া৷''

অন্যদিকে নিরাপত্তা বিশ্লেষক মেজর জেনারেল আব্দুর রশীদ (অব.) ডয়চে ভেলেকে বলেন, ‘‘সীমান্ত নিরাপত্তা নিয়ে বাংলাদেশ ও ভারতের মধ্যে চুক্তি আছে৷ পারস্পরিক আলোচনার মাধ্যমেই দুই দেশের সীমান্ত নিরাপত্তায় গুরুত্ব দেয়া হয়৷ আমার মনে হয় ভারত এধরনের ভাসমান আউটপোস্ট নির্মাণ করলে তা বাংলাদেশের সঙ্গে আলাপ আলোচনা করে স্থাপন করলেই ভালো৷ আর ভারত ভাসমান নিরাপত্তা চেকপোস্ট নির্মাণ করলে বাংলাদেশের দিক থেকেও একই ধরনের আউটপোস্ট নির্মাণের প্রশ্ন আসে৷''

তবে তিনি মনে করেন, ‘‘বিষয়টি সাংঘর্ষিক কোনো কিছু নয়৷ নিরাপত্তা ইস্যু দুই দেশের জন্যই সমান গুরুত্বপূর্ণ৷''

উল্লেখ্য, ভারতের এই ভাসমান সীমান্ত চৌকি স্থাপন নিয়ে বাংলাদেশের সঙ্গে কোনো কথা হয়েছে কিনা বা হবে কিনা তা জানা যায়নি৷ বাংলাদেশের সীমান্ত রক্ষী বাহিনী বিজিবি'র দায়িত্বশীল কর্মকর্তাদের সঙ্গে এনিয়ে যোগাযোগের চেষ্টা করেও কথা বলতে পারেননি ডয়চে ভেলে'র ঢাকা প্রতিনিধি৷



আজকের কার্টুন

লাইফস্টাইল

আজকের বাংলার মিডিয়া পার্টনার

অনলাইন জরিপ

প্রতিবেশী রাষ্ট্র মিয়ানমার রোহিঙ্গা দেরকে অত্যাচার করে ফলে ২০১৭ তে অগাস্ট ২৫ থেকে সেপ্টেম্বর পর্যন্ত ১ মাসে ৫ লক্ষ্য রোহিঙ্গা জাতিগোষ্ঠী বাংলাদেশে আশ্রয় নিয়েছে, আপনি কি মনে করেন বাংলাদেশ শরণার্থী দেরকে আবার ফিরে পাঠিয়ে দিক?

 হ্যাঁ      না      মতামত নেই    

সংবাদ আর্কাইভ