২২ জুলাই ২০১৭ ইং
সাপ্তাহিক আজকের বাংলা - ৫ম বর্ষ ৪৬শ সংখ্যা: বার্লিন, শনিবার ১২নভে –১৮নভে ২০১৬ # Weekly Ajker Bangla – 5th year 46th issue: Berlin, Saturday 12 Nov–18 Nov 2016

ধর্ষককে ধরল র‌্যাব, ‘ছাড়ল' পুলিশ!

পুলিশ প্রহরায় থাকা অবস্থাতেই সেখান থেকে পালিয়ে যায় আসামি

প্রতিবেদকঃ ডিডাব্লিউ তারিখঃ 2016-11-14   সময়ঃ 07:13:52 পাঠক সংখ্যাঃ 336

এটা কি পুলিশের কাণ্ডজ্ঞানহীনতা, অসতর্কতা, নাকি অন্য কিছু? এক গারো তরুণীকে ধর্ষণের অভিযোগে র‌্যাব যাকে গ্রেপ্তার করল, পুলিশের সঙ্গে আদালতে গিয়ে সেই ‘ধর্ষক' লাপাত্তা হয়ে গেল!> ডিডাব্লিউ

ধর্ষণের ঘটনা কমছে, নাকি বাড়ছে? এমন মানুষ পাওয়া মুশকিল যিনি বলবেন, কমছে৷ তবে ধর্ষণ রোধে কঠোর ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে কিনা জানতে চাইলে অনেকেই হয়ত বলবেন, ‘‘সেরকম কোনো উদ্যোগ চোখে পড়ছে না৷'' তাদের এমনটি বলার সুযোগ আরো হয়ত বাড়িয়ে দেবে নীচের এই ভিডিওতে বর্ণনা করা ঘটনা৷ভিডিওটি দেখলেই জানবেন, মাঝে মাঝে ধর্ষণ রোধে কঠোর ব্যবস্থা নেয়া হলেও সমন্বিত প্রয়াসের অভাবে সেই উদ্যোগও কীভাবে ভেস্তে যায়৷

অবশ্য ঘটনাটি শুধু এই ইউটিউব ভিডিওতেই নয়, বাংলাদেশের প্রায় সব সংবাদ-পত্র, টেলিভিশন চ্যানেল এবং অনলাইন নিউজ পোর্টালেও এসেছে৷ খবরের বিবরণে জানা গেছে, গত ১১ নভেম্বর এক গারো তরুণী ধর্ষণ মামলার প্রধান আসামি রাফসান হোসেন রুবেলকে গ্রেপ্তার করে র‌্যাব-১৷ কথিত ধর্ষককে ধরে পুলিশে সোপর্দ করা হয়৷ রবিবার, অর্থাৎ ১৩ই নভেম্বর স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি রেকর্ড করানোর জন্য পুলিশ আসামীকে ঢাকার মুখ্য মহানগর হাকিম আদালতে নিয়ে যায়৷ অবাক করা কাণ্ড, পুলিশ প্রহরায় থাকা অবস্থাতেই সেখান থেকে পালিয়ে যায় আসামি৷ এ ঘটনায় দুই পুলিশ সদস্যকে সাময়িক গ্রেপ্তার করা হয়েছে৷

আসামী রুবেলকে ধরার পর র‍্যাব প্রেস ব্রিফিংয়ে জানিয়েছিল, ধর্ষণের শিকার ওই গারো তরুণী ঢাকার একটি বিউটি পারলারে কাজ করেন৷ গত ২৫ অক্টোবর বিকেলে তাঁর হবু স্বামীর সঙ্গে দেখা করতে বাড্ডার এক মেসে গেলে মেসের ব্যবস্থাপকসহ তিন জন ওই তরুণীকে প্রবেশ করতে না দিয়ে স্থানীয় বখাটে রুবেলকে ডেকে আনে৷ পরে মেসের কাছের এক পরিত্যক্ত বাড়িতে ওই তরুণীকে ধর্ষণ করা হয়৷ গত ২৮ অক্টোবর ওই তরুণী মামলা করেন৷

মামলার পর র‌্যাব এক আসামীকে আটক করলেও পুলিশ তাকে ধরে রাখতে পারল না!

এসিবি/ডিজি



আজকের কার্টুন

লাইফস্টাইল

আজকের বাংলার মিডিয়া পার্টনার

অনলাইন জরিপ

বাংলাদেশের প্রাইমারি ও মাধ্যমিক শিক্ষা পাঠক্রমে ব্যাপক পরিবর্তন করা হয়েছে জানুয়ারি ২০১৭ তে বিতরণকরা নতুন বইয়ে অদ্ভুত সব কারণ দেখিয়ে মুক্ত-চর্চার লেখকদের লেখা ১৭ টি প্রবন্ধ বাংলা বই থেকে বাদ দেওয়া হয়েছে এবং ইসলামী মৌলবাদী লেখা যোগ হয়েছে, আপনি কি এই পুস্তক আপনার ছেলে-মেয়েদের জন্য অনুমোদন করেন?

 হ্যাঁ      না      মতামত নেই    

সংবাদ আর্কাইভ