২২ জুন ২০১৭ ইং
সাপ্তাহিক আজকের বাংলা - ৫ম বর্ষ ৪৭শ সংখ্যা: বার্লিন, শনিবার ১৯নভে –২৫নভে ২০১৬ # Weekly Ajker Bangla – 5th year 47th issue: Berlin, Saturday 19 Nov–25 Nov 2016

আগুনে পোড়ার ঝুঁকি নিয়ে কাজ করে ১ লাখ ৭৫ হাজার শ্রমিক

কর্ম পরিবেশ ও নিরাপত্তার উন্নয়নে অ্যালায়েন্স -এর কাজ সন্তোষজনক নয়

প্রতিবেদকঃ ডিডাব্লিউ তারিখঃ 2016-11-23   সময়ঃ 23:48:11 পাঠক সংখ্যাঃ 172

বাংলাদেশের তৈরি পোশাক কারখানার কর্ম পরিবেশ ও নিরাপত্তার উন্নয়নে অ্যালায়েন্স -এর কাজ সন্তোষজনক নয় বলে এক গবেষণা জরিপে দাবি করা হয়েছে৷ অ্যালায়েন্সভুক্ত কারাখানাগুলোতে ১,৭৫,০০০ শ্রমিক আগুনে পোড়ার ঝুঁকি নিয়ে কাজ করছেন৷> ডিডাব্লিউ

রানাপ্লাজা ধসের পর বাংলাদেশের তৈরি পোশাক কারখানার কর্ম পরিবেশ ও নিরাপত্তার উন্নয়নে সক্রিয় হয়ে ওঠে অ্যালায়েন্স এবং অ্যাকর্ড৷ এদের মধ্যে অ্যালায়েন্সকে নিয়ে প্রশ্ন তোলা হয়েছে এক জরিপে৷ জরিপটিতে বলা হয়েছে অ্যালায়েন্সভুক্ত ওয়ালমার্ট আর গ্যাপ-এর জন্য পোশাক তৈরিকারী কারাখানাগুলোতে অন্তত ১ লাখ ৭৫ হাজার শ্রমিক প্রয়োজনীয় ফায়ার এক্সিট ব্যবস্থা ছাড়াই কারখানায় কাজ করছেন৷ তবে জরিপে অ্যাকর্ডের ব্যাপারে তেমন কোনো নেতিবাচক প্রবণতার কথা বলা হয়নি৷

ইন্টারন্যাশনাল লেবার রাইটস ফোরাম, দ্য ওয়ার্কার রাইটস কনসোর্টিয়াম, দ্য ক্লিন ক্লথস ক্যাম্পেইন এবং ম্যাকিলা সলিডারিটি নেটওয়ার্ক সমন্বিতভাবে বাংলাদেশের কারখানার পরিবেশ নিয়ে প্রতিবেদনটি প্রকাশ করে৷ জরিপ প্রতিবেদনের শিরোনাম ‘ডেঞ্জারাস ডিলেইস অন ওয়ার্কার সেফটি'৷

রানা প্লাজা ভবন ধসের পর পোশাক কারখানায় নিরাপত্তা ও কর্মপরিবেশ নিশ্চিতে এইচ অ্যান্ড এম-এর নেতৃত্বে এবং আডিডাস, বেনেটন, মার্কস অ্যান্ড স্পেনসার, টেসকোসহ অন্য আন্তর্জাতিক প্রতিষ্ঠানগুলোর পৃষ্ঠপোষকতায় অ্যাকর্ড অন ‘ফায়ার অ্যান্ড বিল্ডিং সেফটি ইন বাংলাদেশ', সংক্ষেপে অ্যাকর্ড নামে জোট গঠিত হয়৷ তবে ওই জোটে থাকতে অস্বীকৃতি জানিয়ে গ্যাপ, টার্গেট এবং ওয়ালমার্টের মতো আন্তর্জাতিক খুচরা বিক্রেতা প্রতিষ্ঠানগুলো ‘অ্যালায়েন্স ফর বাংলাদেশ ওয়ার্কার সেফটি', সংক্ষেপে অ্যালায়েন্স নামে আরেকটি জোট গড়ে তোলে৷ Audio>

দ্য গার্ডিয়ান ওই প্রতিবেদনের উদ্ধৃতি দিয়ে বলেছে, কারখানা সংস্কারে প্রতিশ্রুতি মোতাবেক প্রয়োজনীয় অর্থ দিচ্ছে না অ্যালায়েন্সভুক্ত ক্রেতা প্রতিষ্ঠানগুলো৷ এ কারণে কারখানা মালিকদের প্রয়োজনীয় সংস্কারের তাগিদও দিতে পারছেন না তারা৷ প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, যথাযথ কর্মপরিবেশ নিশ্চিত করে শ্রমিকদের সুরক্ষার প্রশ্নটি উপেক্ষা করে কাজের ছাড়পত্র দেওয়া হচ্ছে৷ দুই জোটে ক্রেতা প্রতিষ্ঠানগুলোর অধীনে কাজ করে এমন ১৭৫টি কোম্পানির ওপর জরিপ চালিয়ে প্রতিবেদনটি প্রকাশ করা হয়৷

প্রতিবেদন অনুযায়ী, অ্যালায়েন্স যে দেয়া সময়সীমার মধ্যে কর্মপরিবেশে তাৎপর্যপূর্ণ সংস্কার আনতে ব্যর্থ হয়েছে৷ ওয়ালমার্টের ৬২টি কারখানায় ১ লাখ ২০ হাজার শ্রমিক প্রয়োজনীয় ফায়ার এক্সিট ছাড়াই কাজ করছে৷ একইভাবে গ্যাপের জন্য পোশাক তৈরিকারী ৫৫ হাজার শ্রমিক প্রয়োজনীয় ফায়ার এক্সিট ছাড়াই কাজ করেন৷

টেকসই ফায়ার এক্সিট ব্যবস্থার ঘাটতি রয়েছে অ্যালায়েন্স ভোটভুক্ত ৫২ শতাংশ কারখানায়৷ ৬২ শতাংশ কারখানা ফায়ার অ্যালার্ম ব্যবস্থা ঠিকভাবে কাজ করে না এবং ৪৭ শতাংশের বড় ধরনের কাঠামোগত সমস্যা রয়েছে৷ সংস্কার আনার ক্ষেত্রে কারখানাগুলোর সময়সীমা পরিবর্তন করে দেওয়া হচ্ছে৷ কর্ম পরিবেশের উন্নয়নের জন্য যাদের হাতে ২০১৪ সাল কিংবা ২০১৫ সাল পর্যন্ত সময় ছিল, তাদের সময়সীমা ২০১৮ করে দেওয়া হয়েছে৷

দ্য গার্ডিয়ান ওই প্রতিবেদনের উদ্ধৃতি দিয়ে বলেছে, কারখানা সংস্কারে প্রতিশ্রুতি মোতাবেক প্রয়োজনীয় অর্থ দিচ্ছে না অ্যালায়েন্সভুক্ত ক্রেতা প্রতিষ্ঠানগুলো৷ এ কারণে কারখানা মালিকদের প্রয়োজনীয় সংস্কারের তাগিদও দিতে পারছেন না তারা৷ প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, যথাযথ কর্মপরিবেশ নিশ্চিত করে শ্রমিকদের সুরক্ষার প্রশ্নটি উপেক্ষা করে কাজের ছাড়পত্র দেওয়া হচ্ছে৷ দুই জোটে ক্রেতা প্রতিষ্ঠানগুলোর অধীনে কাজ করে এমন ১৭৫টি কোম্পানির ওপর জরিপ চালিয়ে প্রতিবেদনটি প্রকাশ করা হয়৷

প্রতিবেদন অনুযায়ী, অ্যালায়েন্স যে দেয়া সময়সীমার মধ্যে কর্মপরিবেশে তাৎপর্যপূর্ণ সংস্কার আনতে ব্যর্থ হয়েছে৷ ওয়ালমার্টের ৬২টি কারখানায় ১ লাখ ২০ হাজার শ্রমিক প্রয়োজনীয় ফায়ার এক্সিট ছাড়াই কাজ করছে৷ একইভাবে গ্যাপের জন্য পোশাক তৈরিকারী ৫৫ হাজার শ্রমিক প্রয়োজনীয় ফায়ার এক্সিট ছাড়াই কাজ করেন৷

টেকসই ফায়ার এক্সিট ব্যবস্থার ঘাটতি রয়েছে অ্যালায়েন্স ভোটভুক্ত ৫২ শতাংশ কারখানায়৷ ৬২ শতাংশ কারখানা ফায়ার অ্যালার্ম ব্যবস্থা ঠিকভাবে কাজ করে না এবং ৪৭ শতাংশের বড় ধরনের কাঠামোগত সমস্যা রয়েছে৷ সংস্কার আনার ক্ষেত্রে কারখানাগুলোর সময়সীমা পরিবর্তন করে দেওয়া হচ্ছে৷ কর্ম পরিবেশের উন্নয়নের জন্য যাদের হাতে ২০১৪ সাল কিংবা ২০১৫ সাল পর্যন্ত সময় ছিল, তাদের সময়সীমা ২০১৮ করে দেওয়া হয়েছে৷

এদিকে বাংলাদেশ সেন্টার ফর ওয়াকার্স সলিডারিটির নির্বাহী পরিচালক কল্পনা আক্তার ডয়চে ভেলেকে বলেন, ‘‘অ্যাকর্ডের কাজে স্বচ্ছতা থাকলেও অ্যালায়েন্সের কাজে স্বচ্ছতা নেই৷ অ্যালায়েন্স কি কাজ করছে তার কোনো তথ্য পাওয়া যায় না৷ তবে অ্যাকর্ড শ্রমিক সংগঠনসহ সংশ্লিষ্ট সবাইকে সঙ্গে রেখে কাজ করে৷ তথ্য প্রকাশ করে৷''

তিনি বলেন, ‘‘অ্যালায়েন্সের কাজের মনিটরিং এবং স্বচ্ছতা নিশ্চিত করা জরুরি৷ এজন্য বাংলাদেশ সরকারকে উদ্যোগ নিতে হবে৷ নয়তো টার্গেট বাধাগ্রস্ত হতে পারে৷''

বাংলাদেশ গার্মেন্টস ওয়ার্কার্স এম্লয়িজ লীগের সভাপতি সিরাজুল ইসলাম রনি জানান, ‘‘অ্যাকর্ড নানা শ্রমিক সংগঠন ও এনজিওর মাধ্যমে কাজ করে৷ আর অ্যালায়েন্স নিজেরাই কাজ করে৷ আমার মতে দু'টি গ্রুপই ইতিাচকভাবে কাজ করছে৷ তবে টার্গেটে পৌঁছাতে হলে সরকারের শ্রমমন্ত্রনালয়সহ সংশ্লিষ্ট সবাইকে নিয়ে মনিটরিং জোরদার করতে হবে৷''



আজকের কার্টুন

লাইফস্টাইল

আজকের বাংলার মিডিয়া পার্টনার

অনলাইন জরিপ

বাংলাদেশের প্রাইমারি ও মাধ্যমিক শিক্ষা পাঠক্রমে ব্যাপক পরিবর্তন করা হয়েছে জানুয়ারি ২০১৭ তে বিতরণকরা নতুন বইয়ে অদ্ভুত সব কারণ দেখিয়ে মুক্ত-চর্চার লেখকদের লেখা ১৭ টি প্রবন্ধ বাংলা বই থেকে বাদ দেওয়া হয়েছে এবং ইসলামী মৌলবাদী লেখা যোগ হয়েছে, আপনি কি এই পুস্তক আপনার ছেলে-মেয়েদের জন্য অনুমোদন করেন?

 হ্যাঁ      না      মতামত নেই    

সংবাদ আর্কাইভ