২৩ জানুয়ারী ২০১৮ ইং
সাপ্তাহিক আজকের বাংলা - ৬ষ্ঠ বর্ষ ৫০শ সংখ্যা: বার্লিন, রবিবার ১০ডিসে–১৬ডিসে ২০১৭ # Weekly Ajker Bangla – 6th year 50th issue: Berlin,Sunday 10Dec-16Dec 2017

অশান্তির বিরুদ্ধে শান্তির নোবেল পুরস্কার ২০১৬

আর ১৯৭১ ছিল যুদ্ধের বিরুদ্ধে শান্তির বিজয়!

প্রতিবেদকঃ মোনাজ হক তারিখঃ 2016-12-10   সময়ঃ 12:14:15 পাঠক সংখ্যাঃ 529

কলম্বিয়ার প্রেসিডেন্ট হুয়ান ম্যানুয়েল সান্তোস কে এবার ২০১৬ সনের নোবেল শান্তি  পুরস্কারে ভূষিত করা হবে সে খবর তো  সুইডিশ নোবেল একাডেমি অক্টবর মাসেই ঘোষণা দিয়েছিলো, আর পুরস্কার হাতে তুলে দেওয়া হয়, আলফ্রেড নোবেলের মৃত্যু দিবস ১০ ই ডিসেম্বর একই সাথে সুইডেন ও নরওয়ে তে নোবেল পুরস্কার দেওয়া হয়। এভাবেই নিয়মের মতো চলে আসছে ১১৬ বছর ধরে।

পদার্থ বিজ্ঞান, রসায়ন শাস্ত্র, মেডিসিন, অর্থনীতি ও সাহিত্যে নোবেল পুরস্কার সুইডেনের রাজধানী স্টকহলম থেকে দেওয়া হলেও নোবেল শান্তি পুরস্কার দেওয়া হয় নরওয়ের রাজধানী অসলো থেকে, এর কারণ ১৮৯৬ সনে আলফ্রেড নোবেলের মৃত্যুর সময় যে উইল তিনি  রেখে  গেছেন সেখানে শান্তি পুরস্কার সম্পর্কে কোনো উল্লেখযোগ্য তত্থ তিনি রেখে যান নি, তবে তাঁর একজন অতি বিশেষ বন্ধু অস্ট্রিয়ান বার্থা ভন স্যাটনার, যিনি একই সাথে শান্তির দূত হিসেবে কাজ করতেন তাঁর ভাষ্য অনুযায়ী সে সময় নরওয়ে ও সুইডেনের মধ্যে বন্ধুর সম্পর্ক থাকায় নরওয়ে কে দায়িত্ব দেওয়া হয় শান্তির জন্যে নোবেল পুরস্কার বিতরণের, সেই অনুযায়ী ১৯০১ থেকে শান্তির জন্যে নোবেল পুরস্কার যুক্ত হয়।

দেশ বিদেশের বহু গণ্য মান্য ব্যক্তিত্ব এই অনুষ্ঠানে আমন্ত্রিত  অতিথি হিসেবে আসেন, নোবেল লোরিয়েন্ট এর সাথে রাজা-রানীর সাথেও অডিয়েন্স পাবার সুযোগ হয়।   
কলম্বিয়ার প্রেসিডেন্ট হুয়ান ম্যানুয়েল সান্তোস নোবেল শান্তি পুরস্কার নেবার সময় তিনি স্পষ্টভাবে কলম্বিয়ার দীর্ঘ ৫০ বছরের অশান্তি ও দ্বন্দ্বের কাহিনী তুলে ধরবেন এটাই স্বাভাবিক। বহুদিন পরে আবারো একজন রাষ্ট্র প্রধান ও সরকার প্রধানকে এই পুরস্কারে ভূষিত করা হলো।  ২০০৯ সনে মার্কিন প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামাকে সর্বশেষ এই পুরস্কারে ভূষিত করা হয়।   

পাঠক. আপনি কি জানেন ১৯৭১ সনের বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধের সময় কে আমাদেরকে স্মরণ করেছিল এই নোবেল অনুষ্ঠানে? হ্যাঁ সে সময় আমাদের মুক্তি যুদ্ধের বিজয় যখন প্রায় হাতের কাছে তখন ১০ ই ডিসেম্বর ১৯৭১ সনে, সেবার ও এক রাষ্ট্র নায়ককে নোবেল শান্তি পুরস্কারে ভূষিত করা হয়, তিনি হলেন তৎকালীন জার্মান চ্যান্সেলর উইলি ব্র্যান্ড, আর তিনি বাংলাদেশের মুক্তি সংগ্রামকে স্মরণ করেছিলেন। জার্মান চ্যান্সেলর উইলি ব্র্যান্ড যখন জাঁকজমকপূর্ণ পুরস্কার বিতরণ  অনুষ্ঠান পর্বে অসলো বিশ্ববিদ্যালয়ের সমাবেশ হলে নরওয়ের রাজা ও রানীকে সম্বোধন করে বললেন, সুধিবৃন্দ আপনারা যখন আমার হাতে এবারের শান্তি পুরস্কার হাতে তুলে দিচ্ছেন ঠিক তখন দক্ষির এশিয়ার দুটি দেশ ভারত ও পাকিস্তান যুদ্ধে লিপ্ত, এবং সেই যুদ্ধের ধ্বংস স্তুপ থেকেই একটি নতুন দেশের জন্ম নিচ্ছে তার নাম বাংলাদেশ।
তাঁর এই অসাধারণ বক্তব্যের জন্যে আমরা বাঙালিরাও তাঁকে অন্তর থেকে শুধু ধন্যবাদই জানাই নি, জার্মান চ্যান্সেলর উইলি ব্র্যান্ড কে আমাদের সর্বোচ্চ সম্মানী বিদেশী বন্ধু হিসেবে জানানো হয়েছে, স্বাধীনতার ৪০ বছর পূর্তি উপলক্ষে বাংলাদেশের মহান মুক্তিযুদ্ধে অবিস্মরণীয় অবদানের জন্য বিভিন্ন দেশের রাষ্ট্রনায়ক, রাজনীতিবিদ, দার্শনিক, শিল্পী-সাহিত্যিক, বুদ্ধিজীবী, বিশিষ্ট নাগরিক ও সংগঠনকে সম্মাননা দেয় মহাজোট সরকার।



আজকের কার্টুন

লাইফস্টাইল

আজকের বাংলার মিডিয়া পার্টনার

অনলাইন জরিপ

প্রতিবেশী রাষ্ট্র মিয়ানমার রোহিঙ্গা দেরকে অত্যাচার করে ফলে ২০১৭ তে অগাস্ট ২৫ থেকে সেপ্টেম্বর পর্যন্ত ১ মাসে ৫ লক্ষ্য রোহিঙ্গা জাতিগোষ্ঠী বাংলাদেশে আশ্রয় নিয়েছে, আপনি কি মনে করেন বাংলাদেশ শরণার্থী দেরকে আবার ফিরে পাঠিয়ে দিক?

 হ্যাঁ      না      মতামত নেই    

সংবাদ আর্কাইভ