২২ জুন ২০১৭ ইং
সাপ্তাহিক আজকের বাংলা - ৬ষ্ঠ বর্ষ ০১ম সংখ্যা: বার্লিন, রবিবার ০১ জানু –০৭ জানু ২০১৭ # Weekly Ajker Bangla – 6th year 01st issue: Berlin, Sunday 01 Jan–07 Jan 2017

নারীর ওপরই নির্ভর করে পুরো পরিবারের স্বাস্থ্য, অথচ...

নারী স্বাস্থ্য নিয়ে এত অবহেলা: ব্লগ

প্রতিবেদকঃ ডিডাব্লিউ তারিখঃ 2017-01-03   সময়ঃ 17:10:43 পাঠক সংখ্যাঃ 199

সম্প্রতি বাংলাদেশের মেয়েদের মাসিক নিয়ে একটা ভীতিকর লেখা আমায় রীতিমতো আতঙ্কিত করে৷ যে দেশের নারীরা আজ ফুটবল খেলছে, পাইলট হচ্ছে কিংবা এভারেস্ট জয় করে বিশ্বকে তাক লাগিয়ে দিচ্ছে, সে দেশে নারী স্বাস্থ্য নিয়ে এত অবহেলা?> DW

বাংলাদেশে নারীর অগ্রগতির পাশাপাশি নারী স্বাস্থ্যের ব্যাপারে আজকের যুগে এতটা অবহেলা ভাববার বিষয় বৈকি! পত্রিকার ঐ রিপোর্টটিতে বাংলাদেশের একটি গ্রামের মেয়েদের কথা লেখা হয়েছিল৷ যে গ্রামের অধিকাংশ মেয়ে মাসিকের সময় নোংরা কাপড় ব্যবহার করে৷ কেউ বা ব্যবহার করে গাছের পাতা৷ কাপড়ের মধ্যে বালি ভরে মাসিকের রক্ত লুকানোর চেষ্টা করে অনেকে৷ আবার কেউ কেউ কিছুই ব্যবহার করে না৷ এসব অস্বাস্থ্যকর জিনিস ব্যবহারের ফলে শরীরের যে কতটা ক্ষতি হচ্ছে তা গ্রামের কিশোরীরা নিশ্চয়ই জানে না৷ ভাবতে অবাক লাগে এ যুগেও গ্রামের মেয়েদের মাসিক বা পিরিয়ড সম্পর্কে তেমন কোনো ধারণাই নেই৷

আবার অন্যদিকে দেখা যায় বাংলাদেশের গ্রামেও আজকাল মেয়েরা আগের মতো ফ্রক থেকে শাড়ি নয়, অনেকেই পরছে সালোয়ার কামিজ বা ম্যাক্সির মতো পোশাক৷ গ্রামের ছেলেরাও কম যায় না৷ লুঙ্গির পরিবর্তে ওদের গায়ে এখন টি-শার্ট আর জিন্স৷ প্রশ্ন হলো, কাপড়ের ক্ষেত্রে আধুনিক হতে পারলেও, মাসিকের সময় স্বাস্থ্যের খাতিরে আমার দেশের মেয়েরা, দেশের মানুষরা আধুনিক হতে পারেনি কেন?

আসলে মানুষের জীবনের একটি অতি গুরুত্বপূর্ণ ধাপ বয়ঃসন্ধিকাল৷ কিশোরীদের তখন প্রাকৃতিক নিয়মেই শুরু হয় মাসিক বা ঋতুস্রাব, যা খুবই স্বাভাবিক৷ তবে আগে থেকে জানা না থাকলে একজন কিশোরীর কাছে তা ভয়ের কারণ হতে পারে৷ সে সময় তার প্রয়োজন একজন ভালো সঙ্গীর৷ তিনি হতে পারেন মা, খালা, বড় বোন বা বন্ধু৷ কারণ তখন কোনো ভুল হয়ে গেলে মেয়েটিকে সারাজীবনই ভুগতে হতে পারে৷ কারণ পিরিয়ডের সময় অনেকরই শরীর এবং পেটে প্রচণ্ড ব্যথা হয়৷ সময় মতো তার চিকিৎসা করানো না হলে পরে ভয়ংকর ক্ষতি হয়ে যেতে পারে, বিশেষ করে ‘মা' হওয়ার ক্ষেত্রে৷ তাছাড়া মাসিকের সময় কিশোরী মেয়েটি পুরনো কাপড় আর প্যাড – যাই ব্যবহার করুক না কেন, তা কতক্ষণ পর বদলাতে হবে, কী করতে হবে ইত্যাদি বিষয়ে ভালো করে যে শুধু জানা দরকার তাই নয়, মেয়েদের এই বিশেষ সময়টিতে পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন থাকাটাও অত্যন্ত জরুরি৷ কারণ স্যাঁতসেতে বা ভেজা কাপড়ে জীবাণু শুধু বাসাই বাধেনা, সেখানে থাকতেও পছন্দ করে৷ তাছাড়া ঋতুমতি মেয়েদের শুধু শরীরেই পরিবর্তন আসে না, তখন পরিবর্তন ঘটে মনেও৷

বহু বছর বিদেশে থাকার কারণেই কিনা জানি না ঢাকায় কোনো পাবলিক টয়লেটে ঢুকতে ভীষণ অস্বস্তি হয় আমার৷ আর ঢাকার বাইরে মফঃস্বল বা গ্রামে তো মেয়েদের টয়লেটে যাবার কোনো ব্যবস্থাই নেই৷ অথচ মাসিকের সময় ছাড়াও প্রস্রাব আটকে রাখা মেয়েদের শরীরের জন্য ক্ষতিকর, সেকথা হয়ত গ্রামের মেয়েদের জানা নেই৷ অবশ্য জানলেই বা কী করবে তারা?

জার্মানিতে মাসিক বা পিরিয়ড নিয়ে একটা প্রচ্ছন্ন জ্ঞান ছোটবেলা থেকেই হয়ে যায়৷ মাসিক কী, কেন হয়, সে সময় কতটা পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন থাকা প্রয়োজন, কখন ডাক্তারের কাছে যাওয়া উচিত, মাসিকের ব্যথা নিয়ে অবহেলা করলে পরে কী ধরনের সমস্যা হতে পারে – এ সব বিষয়ে প্রাইমারি স্কুল থেকেই মেয়েদের একটি পূর্ণাঙ্গ ধারণা দেওয়া হয় জার্মানিতে৷ তখন কোন ব্যায়াম করা উচিত, কোনটা নয়, সাঁতার কাটা উচিত কিনা তা ভালোভাবেই জানিয়ে দেওয়া হয় তাদের৷ তাছাড়া মায়েরাও তাদের মেয়েদের এই বিষয়গুলো সম্পর্কে সচেতন করে দেন৷

বহু বছর আগের কথা৷ তবে আমার নিজের ক্ষেত্রে এটুকু মনে আছে যে মাসিক হওয়ার পরই আমি প্রথম জেনেছি সে সম্পর্কে৷ তবে বড় বোনরা থাকায় ওরাই মায়ের পুরনো কাপড় কেটে ব্যবহার করার নিয়ম-কানুন বুঝিয়ে, শিখিয়ে দিয়েছিল৷ এর অনেকদিন পর পরিচয় ঘটে স্যানিটারি প্যাডের সাথে৷

জার্মানিতে এসে দেখেছি, এখানে মেয়েদের মাসিক মাথাব্যথার মতোই একটি অতি সাধারণ ব্যাপার, যা নিয়ে ছেলেমেয়ে কারুরই কোনো গোপনীয়তা নেই৷ তাই এ বিষয়ে আলোচনাও করে তারা অবলীলায়৷ পিরিয়ডের সময় মেয়েদের মেজাজ যে খানিকটা চড়া থাকে সেকথা ছোট ছেলেমেয়েরাও জানে৷ সেই মুহূর্তে মায়ের মেজাজের কারণে বিশেষ আবদার যে করা যাবে না, তা তারা নিজেদের মধ্যেই ‘শেয়ার' করে নেয়৷ মেয়েদের মাসিক এখানে এতটাই স্বাভাবিক ব্যাপার যে, কোনো মেয়ে চট করে রেগে গেলে বা একটু অন্যরকম আচরণ করলে অন্যরা ধরেই নেয় যে মেয়েটি এখন ঋতুমতি৷

জার্মানিসহ ইউরোপের অন্যান্য দেশেও ডাক্তারের চেম্বার, উঁচুমানের শপিং মল বা পাবলিক টয়লেটগুলোতে মহিলাদের জন্য থাকে স্যানিটারি ব্যাগ এবং আলাদা ডাস্টবিন৷ এমনকি কিছু জায়াগায় প্যাড এবং ট্যামপন-ও থাকে৷

আমার মনে হয়, বাংলাদেশ বা ভারতের মতো দেশে এ সব বিষয়ে সরাসরি কথা বলা এবং সচেতন হওয়া খুবই প্রয়োজন৷ মাসিক সম্পর্কে যেসব কুসংস্কার রয়েছে তা থেকে বেরিয়ে আসার সময় হয়েছে অনেক আগেই৷ বলা বাহুল্য, নারীর স্বাস্থ্যের ওপরই নির্ভর করে পুরো পরিবারের স্বাস্থ্য৷ তাই পরিবারের সকলকেই এগিয়ে আসতে হবে নারীর সহযোগিতায়৷

সতর্কতা

মেয়েদের শরীরে বেশ কিছু সমস্যা থাকে, যা নিয়ে সাধারণত সরাসরি কথা বলা হয় না, বিশেষ করে দক্ষিণ এশিয়ার দেশগুলোতে৷ মেয়েদের অনিয়মিত মাসিকও সেরকমই একটি সমস্যা৷ মাসিকের সময় শরীর কিছুটা খারাপ লাগা স্বাভাবিক, তবে নিয়মিত কোনো কষ্ট বা ব্যথা হলে অবশ্যই বিশেষজ্ঞের কাছে যাওয়া দরকার বলে জানান এলকে কাইল৷

একটু সচেতনতা

পিরিয়ডের সময় প্রায় সব মেয়েদেরই কম-বেশি শরীর খানিকটা খারাপ লাগে বা ম্যাজ ম্যাজ করে৷ মাথা ও স্তনে ব্যথাভাব হয় এবং আর মেজাজও অনেকসময় খিটখিটে হয়৷ তাই এ সব থেকে মুক্তি পেতে ভেষজ চা পান করার পরামর্শ দিয়েছেন স্ত্রী-রোগ বিশেষজ্ঞ এলকে কাইল৷

প্রতিবেদন: নুরুননাহার সাত্তার



আজকের কার্টুন

লাইফস্টাইল

আজকের বাংলার মিডিয়া পার্টনার

অনলাইন জরিপ

বাংলাদেশের প্রাইমারি ও মাধ্যমিক শিক্ষা পাঠক্রমে ব্যাপক পরিবর্তন করা হয়েছে জানুয়ারি ২০১৭ তে বিতরণকরা নতুন বইয়ে অদ্ভুত সব কারণ দেখিয়ে মুক্ত-চর্চার লেখকদের লেখা ১৭ টি প্রবন্ধ বাংলা বই থেকে বাদ দেওয়া হয়েছে এবং ইসলামী মৌলবাদী লেখা যোগ হয়েছে, আপনি কি এই পুস্তক আপনার ছেলে-মেয়েদের জন্য অনুমোদন করেন?

 হ্যাঁ      না      মতামত নেই    

সংবাদ আর্কাইভ