২৪ সেপ্টেম্বর ২০১৭ ইং
সাপ্তাহিক আজকের বাংলা - ৬ষ্ঠ বর্ষ ১৪ম সংখ্যা: বার্লিন, রবিবার ০২এপ্রি – ০৮এপ্রি ২০১৭ # Weekly Ajker Bangla – 6th year 14th issue: Berlin, Sunday 02 Apr – 08 Apr 2017

শিল্পকলায় সেকুলারিজম ও বাঙালি শিল্পী নাসরিন

সংস্কৃতি কখনো সরকারি ঘোষণা দিয়ে পরিবর্তন করা যায় না

প্রতিবেদকঃ মোনাজ হক তারিখঃ 2017-04-06   সময়ঃ 18:16:25 পাঠক সংখ্যাঃ 191

বাংলাদেশে শিল্প সংকৃতি ও শিক্ষায় বহুবার সরকারি হস্তক্ষেপের ইতিহাস রয়েছে, ৫০ এর দশকে বাংলা ভাষাকে রাষ্ট্রীয় ভাষার মর্যদা না দেওয়ার ফলে রাষ্ট্রভাষা আন্দোলন, ইংরেজি হরফে বাংলা লেখার সরকারি উদ্যোগ, নানা নামে নানা আবরণে আমরা বাংলা ভাষা ও সাহিত্যকে বিপন্ন করার প্রস্তাবনাও দেখেছি। বাংলাকে ইংরেজি বা আরবি হরফে লেখার প্রস্তাবের পাশাপাশি বাংলা হরফের সংস্কারের প্রস্তাবও আমরা শুনেছি। ষাটের দশকের রবীন্দ্রসংগীত বর্জন ও বাংলা ভাষায় ইসলামী শব্দ সংযোজন করার প্রবণতাও বাঙালি প্রত্যাখ্যান করেছে, তার কারণ শিল্প সাহিত্য ও সংস্কৃতি কখনো সরকারি ঘোষণা দিয়ে পরিবর্তন করা যায় না এটি একান্ত সামাজিক জাগরণের ব্যাপার। তাই যখন এবছরের শুরুতেই দেখা যায় যে একজন শিক্ষাসচিবের কলমে পুরো প্রাথমিক ও মাধ্যমিক পাঠ্য বই পরিবর্তন, পাঠ্যপুস্তকের বাংলা বই থেকে বাদ দেওয়া হয়েছে ১৭টি গল্প, কবিতা ও প্রবন্ধ যা নাস্তিক্যবাদী ও হিন্দুত্ববাদী হিসেবে অভিযুক্ত করা হয়। তার বিরুদ্ধে চলছে আন্দোলন, লেখালেখি ও শিল্পকলায় প্রতিবাদী শিল্পীচেতনা। তেমনি এক প্রতিবাদী শিল্পী নাসরিনের আঁকা হবি নিয়ে আজকের এই প্রতিবেদন ।

এব্যাপারে ইতিহাস থেকে আমরা কি শিখেছি। রেনেসাঁ জাগরণ শিল্পকলার নতুন ধারা উন্মোচন করেছে পনেরশ শতকর শেষভাগে । রেঁনেসা বা নবজাগরণের প্রধান কেন্দ্রবিন্দু হলো মানবতার জয়গান।

ইউরোপীয় রেনেসাঁর শুরু ইতালিতে হলেও, এর ক্রমবিকাশের ধারা পরবর্তী প্রায় চারশ বছর ধরে ছড়িয়ে পড়ে সমগ্র ইউরোপে।রেনেসাঁ জাগরণ শুধু শিল্পকলায় সীমাবদ্ধ ছিলোনা, সাহিত্য, সংগীত, নাটক-অপারেট ইত্যাদিতে একইসাথে ইউরোপে ষোড়শ শতকের প্রথম ভাগে ফরাসি এবং জার্মানিতে, শেষভাগে ভেনিসে, সতের শতকের শুরুতে ইংল্যান্ডে এবং শেষভাগে হল্যান্ডে। ঊনবিংশ শতকের ইংল্যান্ডের শিল্প বিপ্লব এর চুড়ান্ত বিকাশ এর সাথে সাথে শিল্পকলার শৈলী পরিবর্তন হতে থাকে।

বাংলার রেনেসাঁ বা নবজাগরণ হয় ঊনবিংশ ও বিংশ শতকে সমাজ সংস্কার আন্দোলনের জোয়ার ও বহু কৃতি মনীষীর কল্যানে। মূলত রাজা রামমোহন রায়ের (১৭৭৫-১৮৩৩) সময় এই নবজাগরণের শুরু এবং এর শেষ ধরা হয় কবিগুরু রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের (১৮৬১-১৯৪১) সময়ে, যদিও এর আগেও বহু জ্ঞানীগুণী মানুষ যেমন বঙ্কিমচন্দ্র, ঈশ্বর চন্দ্র বিদ্যাসাগর মাইকেল মধুসূদন দত্ত এই সৃজনশীলতা ও শিক্ষাদীক্ষার জোয়ারের বিভিন্ন ধারার ধারক ও বাহক হিসাবে পরিচিত হয়েছেন। ঊনবিংশ শতকের বাংলা ছিল সমাজ সংস্কার, ধর্মীয় দর্শনচিন্তা, সাহিত্য, সাংবাদিকতা, দেশপ্রেম, ও বিজ্ঞানের পথিকৃৎদের এক অন্যন্য সমাহার যা মধ্যযুগের অন্ত ঘটিয়ে এদেশে আধুনিক যুগের সূচনা করে।

ঠিক যেমনটি দেখা যায় ইউরোপীয় শিল্পকলায় রেনেসাঁ জাগরণ, মাইকেল এ্যাঞ্জেলো র ফ্লোরেনটাইন ধারা, লিওনার্দো দ্য ভিঞ্জি র লোমবার্ড ধারা, র‌্যাফায়েল এর রোমান ধারা ও টিটিয়ান এর ভেনেসিয়ান ধারার পরবর্তী অধিযুগ শুরু হয়।বিংশ ও একবিংশ শতাব্দীতে শিল্পকলার নতুন নতুন ধারার সৃষ্টি হয়, বিশেষ করে প্যারিস কেন্দ্রিক শিল্পকলা। বিষয়বস্তুও খ্রিষ্ট ধর্ম, গীর্জা বা রাজরাজা ফ্রেজকো পেইন্টিং থেকে সড়ে এসে কিউবিজম ও অর্ফিজম (কিউবিজম থেকে উদ্ভূত) যার অন্যতম স্রষ্টারা ছিলেন পাবলো পিকাসো, আপোলিনার ও মার্ক শাগাল।

এই ছবিটি একটি প্রতিবাদী তৈলচিত্র এঁকেছে নাসরিন, যার মূল দর্শন একই উপাসনালয়ে ৫ টি বৃহৎ ধর্মের সমাহার, মুসলিম, হিন্দু, বৌদ্ধ, খ্রিস্টান ও ইহুদি একই সাথে সহবস্থান করার স্বপ্ন। মার্ক শাগাল এর বিখ্যাত তিনটি ছবি, প্যারিস অপেরা, জেরুসালেম সিনাগর্গ এবং মুনস্টার চার্চ এর অনুপ্রেরণায় তরুণ শিল্পী নাসরিন সেই দর্শনেরই প্রতিবাদী প্রতিচ্ছবি ফুটে উঠেছে যা ইদানিং সময়ের মৌলবাদী চিন্তার প্রতিবাদী শিল্পকর্ম। নাসরিনের ভাষায় শিল্পের নান্দনিক বা ভাব-বিনিময়ের উদ্দেশ্যে মানুষের দ্বারা নির্মিত যা সমস্ত দৃশ্যমান বস্তুর ইতিহাসকে বোঝায় যেগুলির মাদ্ধমে বিভিন্ন ধারণা, আবেগ বা সাধারণভাবে কোনো দৃষ্টিভঙ্গী দর্শকসমক্ষে উপস্থাপিত করা হয়।



আজকের কার্টুন

লাইফস্টাইল

আজকের বাংলার মিডিয়া পার্টনার

অনলাইন জরিপ

বাংলাদেশের প্রাইমারি ও মাধ্যমিক শিক্ষা পাঠক্রমে ব্যাপক পরিবর্তন করা হয়েছে জানুয়ারি ২০১৭ তে বিতরণকরা নতুন বইয়ে অদ্ভুত সব কারণ দেখিয়ে মুক্ত-চর্চার লেখকদের লেখা ১৭ টি প্রবন্ধ বাংলা বই থেকে বাদ দেওয়া হয়েছে এবং ইসলামী মৌলবাদী লেখা যোগ হয়েছে, আপনি কি এই পুস্তক আপনার ছেলে-মেয়েদের জন্য অনুমোদন করেন?

 হ্যাঁ      না      মতামত নেই    

সংবাদ আর্কাইভ