২৫ এপ্রিল ২০১৭ ইং
সাপ্তাহিক আজকের বাংলা - ৬ষ্ঠ বর্ষ ১৫ম সংখ্যা: বার্লিন, রবিবার ০৯এপ্রি – ১৫এপ্রি ২০১৭ # Weekly Ajker Bangla – 6th year 15th issue: Berlin, Sunday 09 Apr – 15 Apr 2017

ভয়কে জয় করে বাংলা বর্ষবরণ

মঙ্গলের জয়ধ্বণি বেজেছে৷

প্রতিবেদকঃ ডয়েচে ভেলে তারিখঃ 2017-04-14   সময়ঃ 15:58:44 পাঠক সংখ্যাঃ 22

অপশক্তির হুমকি ছিল৷ আগাম তৎপরতা ছিল৷ কিন্তু বাঙালি কখনোই অন্ধকারে ভয় পায় না৷ এবারের পহেলা বৈশাখেও তা প্রমাণ হলো৷ নববর্ষের পূণ্য আলোয় অন্ধকার যেন বিদায় নিয়েছে৷ মঙ্গলের জয়ধ্বণি বেজেছে৷
বাংলা নববর্ষের এবারের মঙ্গল শোভাযাত্রা ছিল নানা কারণে গুরুত্বপূর্ণ৷ ইউনেস্কোর বিশ্ব ঐতিহ্যের অন্তর্ভুক্ত হওয়ায় সারা দেশে মঙ্গল শোভাযাত্রার প্রস্তুতি নেওয়া হয়৷ আর হেফাজতে ইসলাম ও আরো কিছু মৌলবাদী সংগঠন এই মঙ্গল শোভাযাত্রার বিরুদ্ধে অবস্থান নেয়৷ তারা একে ‘হারাম' বলে ঘোষণা করে প্রতিহতের কথাও বলে৷
কিন্তু আশঙ্কাকে উড়িয়ে দিয়ে চারুকলা থেকে সকাল ৯টায় এবারের মঙ্গল শোভাযাত্রায় মানুষের ঢল নামে৷ ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক আ আ ম স আরেফিন সিদ্দিকের নেতৃত্বে এই শোভাযাত্রায় অপশক্তি আর সন্ত্রাস-জঙ্গিবাদকে রুখে সামনে এগিয়ে যাওয়ার আহ্বান আহ্বান জানানো হয়৷ বলা হয়, অশুভের বিরুদ্ধে আপোষবিহীন দ্বন্দ্বের কথা৷
‘আনন্দলোকে মঙ্গলালোকে বিরাজ সত্য সুন্দর' – এই মূল স্লোগানে শোভাযাত্রার শুরুতে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য বলেন, ‘‘কুসংস্কার, অন্ধকারাচ্ছন্ন সন্ত্রাস ও জঙ্গিবাদী যে অপশক্তি আছে, মঙ্গল শোভাযাত্রা থেকে আমরা তাদের নির্মূল কামনা করি৷ সেইসঙ্গে শান্তি সমৃদ্ধি ও সফলতা কামনা করি৷''
চারুকলা অনুষদের ডিন, অধ্যাপক নিসার হোসেন বলেন, ‘‘শোভাযাত্রার সামনের দিকে আছে একটা বড় সূর্যের প্রতিকৃতি৷ অন্ধকারকে পেছনে ফেলে আলোর পথে আহ্বান জানাতে এই সূর্য৷ জঙ্গিবাদ আমাদের অন্ধকারের দিকে নিয়ে যেতে চায়৷ সেই কালোর আহ্বান থেকে আলোর দিকে মুখ ফেরাতেই এবারের মূল আহ্বান৷''
আর এবারই ঢাকাসহ বাংলাদেশের সব শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে মঙ্গল শোভাযাত্রার আয়োজন করা হয়৷ অসংখ্য মানুষ নানা রঙের পোশাক পরে বর্ষবরণের অনুষ্ঠানে অংশ নেন৷ মঙ্গল শোভাযাত্রার র‌্যালির পর বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে একে একে চলতে থাকে নাচ-গান, বাউল সংগীত, লোকসংগীত, রবীন্দ্রসংগীতের আয়োজন৷ বেসরকারি স্কুল কলেজের চেয়ে সরকারি স্কুল কলেজ অপেক্ষাকৃত বেশি উৎসবমুখর ছিল৷ অনেক শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বৃহস্পতিবার রাত থেকেই আলোকসজ্জার ব্যবস্থা করে নিজ উদ্যোগে৷
আর সূর্যোদয়ের সঙ্গে সঙ্গে রমনা বটমূলে সেতার-সরোদ-তবলার লহরীতে নতুন বাংলা বছরকে বরণ করে নেয়া হয়৷ বাদ্যযন্ত্রের বাজনা পরিবেশন, গান, কবিতা আবৃত্তির পর কথা বলেন ছায়ানটের সভাপতি সানজিদা খাতুন৷ তিনি বলেন, ‘‘বর্তমানে বাংলাদেশের পরিস্থিতির বিষয়ে আমাদের মনে মিশ্র অনুভূতির সৃষ্টি হয়েছে৷ একদিকে যুদ্ধাপরাধীদের বিচার, ধর্মীয় সন্ত্রাস দমনের সাফল্য এবং দেশের নানাবিধ উন্নয়ন আমাদের মনে স্বস্তি এনেছে৷ অন্যদিকে ধর্ম ব্যবসায়ীদের সন্ত্রাস সম্পূর্ণ নিমূল হয়নি বলে নিরাপত্তহীনতার বোধ থেকে আমরা মুক্ত হতে পারিনি৷''
তিনি আরো বলেন, ‘‘পাঠ্যপুস্তকের বিষয় নির্বাচনে সাম্প্রদায়িক বিবেচনা এবং চিরায়ত শিল্প ভাস্কর্যকে ‘মূর্তি' আখ্যা দিয়ে ধ্বংস করার হুমকি দেশের স্বাধীনতাকে প্রশ্নবিদ্ধ করছে৷ এই সংকট থেকে দেশকে উদ্ধার করার দায় আমাদের ওপরও রয়েছে৷''
ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে শাহবাগ, সোহরোওয়ার্দি উদ্যান, রমনা, বাংলামোটর, কাকরাইলসহ প্রায় ১০ বর্গ কিলোমিটার এলাকায় এবার নিরাপত্তা বলয় গড়ে তোলা হয়৷ ঢাকার অন্য এলকার অনুষ্ঠানগুলোতেও ছিল নিরপত্তার বাড়াবাড়ি৷ ফলে উচ্ছ্বাসে কিছুটা হলেও ভাটা পড়েছে৷ ব্যাগ, পানির বোতল কিছুই বহন করতে দেওয়া হয়নি৷ ফলে কেউ কেউ বিরক্ত হয়ে ফিরেও গেছেন৷ তবে এর মধ্যেই বাঙালি তো বটেই, ঢাকায় অবস্থানরত বিদেশিরাও যোগ দিয়েছেন প্রাণের উৎসবে৷
এবারের বর্ষরণ নিয়ে কথা হয় মঙ্গল শোভাযাত্রা ১৯৮৫ সালে যাঁরা যশোরে প্রথম শুরু করেছিলেন, তাঁদের পথিকৃৎ চারুশিল্পী মাহবুব জামানের সঙ্গে৷ তিনি ডয়চে ভেলেকে বলেন, ‘‘অপশক্তি সব সময়ই বাধা দেওয়ার চেষ্টা করেছে৷ কিন্তু তাদের বাধা আমাদের আরো শক্তি দিয়েছে৷ আমরা দ্বিগুণ শক্তিতে ভয়কে জয় করেছি৷ আসলে ওরা ভীত৷ ওরা নতুন আলোতে ভয় পায়৷''
তিনি বলেন, ‘‘মঙ্গল শোভাযাত্রা শুরুর তৃতীয় বছরের নববর্ষ ছিল রোজার মাসে৷ তখন ধর্মীয় জিকির তুলে মঙ্গল শোভাযাত্রা বন্ধ করতে চেয়েছিল৷ পারেনি৷ সেই মঙ্গল শোভাযাত্রা এখন বিশ্বের ঐতিহ্য৷ তারপরও এবার ওরা আবার নতুন করে এটা বন্ধের পাঁয়তারা করে আবারও ব্যর্থ হয়েছে৷ বরং এবারের মঙ্গল শোভাযাত্রা আরো বেশি শানিত, আরো বেশি উজ্জ্বল৷''
মাহবুব জামান আরো বলেন, ‘‘বাঙালির বর্ষবরণ সার্বজনীন এক অনুষ্ঠান৷ এটা মমঙ্গলের৷ এর বিরুদ্ধে কোনো ষড়যন্ত্রই টেকেনি, টিকবে না৷''

 



আজকের কার্টুন

লাইফস্টাইল

আজকের বাংলার মিডিয়া পার্টনার

অনলাইন জরিপ

বাংলাদেশ এগিয়ে যাচ্ছে, বাংলাদেশ এগিয়ে যাবে বলে উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, বাংলাদেশের অগ্রযাত্রাকে কেউ ঠেকিয়ে রাখতে পারবে না। ২০২১ সালের মধ্যেই বাংলাদেশ মধ্যম আয়ের দেশে পরিণত হবে। আপনিও কি তাই মনে করেন?

 হ্যাঁ      না      মতামত নেই    

সংবাদ আর্কাইভ