২১ নভেম্বর ২০১৭ ইং
সাপ্তাহিক আজকের বাংলা - ৬ষ্ঠ বর্ষ ২০শ সংখ্যা: বার্লিন, রবিবার ১৪মে – ২০মে ২০১৭ # Weekly Ajker Bangla – 6th year 20th issue: Berlin, Sunday 14 May – 20 May

মৃত্যুদণ্ড থেকে বেঁচে গেলেন সাঈদী

সুপ্রিম কোর্টের আপিল বিভাগ৷ মৃত্যুদণ্ড চেয়ে রাষ্ট্রপক্ষের করা রিভিউ আবেদন

প্রতিবেদকঃ ডয়েচে ভেলে তারিখঃ 2017-05-15   সময়ঃ 18:19:52 পাঠক সংখ্যাঃ 180

সুপ্রিম কোর্ট দেলাওয়ার হোসেন সাঈদীকে আমৃত্যু কারাদণ্ড দিলেও মানবতাবিরোধী আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল ২০১৩ সালে তাকে মৃত্যুদণ্ড দিয়েছিল৷ তখন সাঈদীকে চাঁদে দেখা গেছে গুজব ছড়িয়ে দেশে ব্যাপক সহিংস ঘটনা ঘটানো হয়েছিল৷
সোমবার রিভিউ আবেদনের রায়ে ১৯৭১ সালে বাংলাদেশে মুক্তিযুদ্ধ চলাকালে মানবতাবিরোধী অপরাধের মামলায় জামায়াতে ইসলামীর নায়েবে আমির দেলাওয়ার হোসাইন সাঈদীর আমৃত্যু কারাদণ্ড বহাল রেখেছেন সুপ্রিম কোর্টের আপিল বিভাগ৷ মৃত্যুদণ্ড চেয়ে রাষ্ট্রপক্ষের করা রিভিউ আবেদন আদালত খারিজ করে দেয়৷ একইসঙ্গে সাঈদীর পক্ষে খালাসের আবেদনও খারিজ করে দেয়া হয়৷
বেঞ্চের অন্য চার বিচারপতিরা হলেন – জ্যেষ্ঠ বিচারপতি মো. আব্দুল ওয়াহাব মিঞা, বিচারপতি সৈয়দ মাহমুদ হোসেন, বিচারপতি হাসান ফয়েজ সিদ্দিকী ও বিচারপতি মির্জা হোসাইন হায়দার৷ আদালতে সাঈদীর পক্ষে শুনানি করেন অ্যাডভোকেট খন্দকার মাহবুব হোসেন৷ রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন অ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলম৷
যুদ্ধাপরাধের দায়ে ২০১৩ সালের  ২৮ ফেব্রুয়ারি সাঈদীকে মৃত্যুদণ্ডের আদেশ দেয় আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল-১৷ আপিলে ২০১৪ সালের ১৭ সেপ্টেম্বর তৎকালীন প্রধান বিচারপতি মো. মোজাম্মেল হোসেনের নেতৃত্বে পাঁচ সদস্যের বেঞ্চ সংখ্যাগরিষ্ঠতার ভিত্তিতে সাঈদীর মৃত্যুদণ্ডের সাজা কমিয়ে আমৃত্যু কারাদণ্ড দেয়৷
গত বছরের ১৭ জানুয়ারি সাঈদীর খালাস চেয়ে রিভিউ আবেদন দায়ের করেন তার আইনজীবী৷ তারপর রাষ্ট্রপক্ষ তার শাস্তি বাড়িয়ে মৃত্যুদণ্ডের আবেদন করে৷ আর রিভিউয়ের রায়ে সাঈদীকে মৃত্যুদণ্ড নয়, আমৃত্যু কারাদণ্ডই দেয়া হলো৷
সোমবারের রায়ের পর অ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুকে আলম বলেন, ‘‘সাঈদী ছিল যুদ্ধাপরাধীদের শিরোমনি৷ সাঈদী দেশ, সভ্যতা ও মানুষের জন্য ক্ষতিকর৷ কিন্তু এমন একজন মানুষের সর্বোচ্চ সাজা মৃত্যুদণ্ড না হওয়ায় আমি ব্যক্তিগতভাবে ব্যথিত৷ সর্বোচ্চ আদালতের রায় মেনেই নিতে হবে৷ তাই দুঃখ আমার রয়েই গেল৷’’
তিনি আরো বলেন, ‘‘ট্রাইব্যুনালের প্রসিকিউশন ও তদন্ত সংস্থার দুর্বলতা ও ব্যর্থতার কারণেই সাঈদীর সর্বোচ্চ শাস্তি মৃত্যুদণ্ড নিশ্চিত করা যায়নি৷’’
সাঈদীর ছেলে মাসুদ সাঈদী তাৎক্ষণিক প্রতিক্রিয়ায় সাংবাদিকদের বলেন, ‘‘ন্যায়বিচার হয়নি৷ একমাত্র খালাসই ছিল আমার বাবার জন্য ন্যায়বিচার৷’’
তবে মানবতাবিরোধী আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালের প্রসিকিউটর ব্যারিস্টার তুরিন আফরোজ ডয়চে ভেলেকে বলেন, ‘‘মামলার তদন্ত এবং প্রসিকিউশনে কোনো ত্রুতি থাকলে ট্রাইব্যুনাল সাঈদীকে মৃত্যুদণ্ড দিত না৷ আমরা ট্রাইব্যুনালে তার মৃত্যুদণ্ডের রায় পেয়েছি৷ পরবর্তীতে আপিল ও রিভিউতে তাকে আমৃত্যু কারাদণ্ড দেয়া হয় মৃত্যুদণ্ড কমিয়ে৷ অ্যাটর্নি জেনারেল ট্রাইব্যুনালের তদন্ত এবং প্রসিকিউশনের দুর্বলতা ও ব্যর্থতার যে কথা বলেছেন, তা হাস্যকর৷ কারণ তিনিই আপিল ও রিভিউয়ে রাষ্ট্রপক্ষের প্রতিনিধিত্ব করেছেন৷’’ >AUDIO তুরিন আফরোজ
তিনি আরো বলেন, ‘‘এটা দুঃখজনক যে সঈদীর মৃত্যুদণ্ড বহাল থাকেনি৷ আদালতের রায় আমাদের মেনে নিতে হবে৷ তবে মৃত্যুদণ্ডের পরিবর্তে আমৃত্যু কারাদণ্ড হলেও সাঈদীর অপরাধ কিন্তু প্রমাণ হয়েছে৷’’
২০১৩ সালের ২৮ ফের্রুয়ারি ট্রাইব্যুনাল সাঈদীকে মৃত্যুদণ্ডের আদেশ শোনানোর পর, সাঈদীকে চাঁদে দেখা গেছে গুজব ছড়িয়ে বগুড়া, রাজশাহী, নাটোর, জয়পুরহাট, ঝিনাইদহ, সাতক্ষীরা ও চট্টগ্রামসহ ৩৪ জেলায় ব্যাপক সহিংসতার ঘটনা ঘটে৷ সহিসংতায় প্রথমদিনেই ২২ জন নিহত হয়৷ শুধু বগুড়াতেই নিহত হয় ১১ জন৷ এই সহিংসতায় সর্বমোট ৭৮ জন নিহত হন৷ পুলিশ ফাঁড়ি ও পুলিশের গাড়িতে আগুন দেয়া ছাড়ায় তার প্রত্যন্ত অঞ্চলে উপজেলা কার্যালয়েও হামলা করে৷
সেই সহিসংসতার কোনো প্রভাব বিচার বিভাগে পড়ার সুযোগ আছে কিনা জানতে চাইলে তুরিন আফরোজ বলেন, ‘‘বিচারকরা তো ভয়ের ঊর্ধে থেকে বিচার কাজ করেন৷ তাঁরা প্রভাবমুক্ত থাকেন৷ তবে সহিংসতার ভয় তো এখনো আছে৷’’



আজকের কার্টুন

লাইফস্টাইল

আজকের বাংলার মিডিয়া পার্টনার

অনলাইন জরিপ

প্রতিবেশী রাষ্ট্র মিয়ানমার রোহিঙ্গা দেরকে অত্যাচার করে ফলে ২০১৭ তে অগাস্ট ২৫ থেকে সেপ্টেম্বর পর্যন্ত ১ মাসে ৫ লক্ষ্য রোহিঙ্গা জাতিগোষ্ঠী বাংলাদেশে আশ্রয় নিয়েছে, আপনি কি মনে করেন বাংলাদেশ শরণার্থী দেরকে আবার ফিরে পাঠিয়ে দিক?

 হ্যাঁ      না      মতামত নেই    

সংবাদ আর্কাইভ