২১ অক্টোবর ২০১৭ ইং
সাপ্তাহিক আজকের বাংলা - ৬ষ্ঠ বর্ষ ৩১শ সংখ্যা: বার্লিন, রবিবার ৩০জুল – ০৫ আস্ট ২০১৭ # Weekly Ajker Bangla – 6th year 31st issue: Berlin,Sunday 30Jul – 05Aug 2017

যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের নিরাপত্তা পরিচালক লিসা কার্টিসের ঢাকা সফর স্থগিত

লিসা কার্টিসের ঢাকা সফর স্থগিতের কারণ বলছে না কেউ

প্রতিবেদকঃ ভোরের কাগজ তারিখঃ 2017-07-30   সময়ঃ 03:13:19 পাঠক সংখ্যাঃ 102

কাগজ প্রতিবেদক : যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের উপসহকারী ও দেশটির জাতীয় নিরাপত্তা কাউন্সিলের অন্যতম জ্যেষ্ঠ পরিচালক লিসা কার্টিসের ঢাকা সফর আকস্মিকভাবে স্থগিত হয়ে গেছে। আজ রোববার ২৪ ঘণ্টার এক সফরে তার ঢাকা আসার কথা ছিল। ঢাকা ও ওয়াশিংটনের মধ্যে একাধিক বৈঠকের পর প্রস্তুতিও চূড়ান্ত হয়েছিল। কিন্তু গত বৃহস্পতিবার হঠাৎ করেই ঢাকার পররাষ্ট্র দপ্তর জানতে পারে লিসা আসছেন না। কী কারণে লিসা আসছেন না তা কোনো পক্ষ থেকেই বলা হচ্ছে না।

লিসা কার্টিসের পূর্বনির্ধারিত এ সফর হঠাৎ স্থগিত হওয়ায় ব্যাপক কৌতূহলের সৃষ্টি হয়েছে। নোবেল বিজয়ী ড. ইউনূস ইস্যুতে যুক্তরাষ্ট্রের ওবামা প্রশাসনের সঙ্গে শেখ হাসিনা সরকারের সন্দেহ-অবিশ্বাস দানা বেঁধে ছিল। ইউনূসের পক্ষে হিলারি ক্লিনটন তখন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সরকারের ওপর চাপ সৃষ্টি করেছিলেন বলে অভিযোগ রয়েছে। বর্তমান প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের আমলে সেই দূরত্ব ঘোচাতে নতুন প্রশাসনের সঙ্গে সম্পর্ক গড়তে লিসার সফরকে তাৎপর্যপূর্ণ মনে করা হচ্ছিল। বাংলাদেশের পররাষ্ট্র সচিব শহীদুল হক গত মাসে ওয়াশিংটন সফরে গিয়েছিলেন। ওই সময়ে ট্রাম্প প্রশাসনের কর্মকর্তা লিসা কার্টিসের সঙ্গে তার বৈঠক হয়। লিসা বাংলাদেশে বৈচিত্র্যপূর্ণ গণতন্ত্র এবং আর্থ-সামাজিক উন্নয়নের ভূয়সী প্রশংসা করেন। শহীদুল হক তখনই লিসা কার্টিসকে বাংলাদেশ সফরে আমন্ত্রণ জানান। লিসা তখন ভারত সফর শেষ করে ৩০ জুলাই ভোরে একদিনের জন্য ঢাকায় আসবেন বলে কর্মসূচি ঠিক হয়।

লিসা কার্টিসের সফরের প্রস্তুতি নিয়ে ঢাকায় যুক্তরাষ্ট্রের রাষ্ট্রদূত মার্শা বার্নিকাট গত সোমবার সকালে পররাষ্ট্র সচিব মো. শহীদুল হকের সঙ্গে তার দপ্তরে কথা বলেন। যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট হিসেবে দায়িত্ব নেয়ার পর গত ছয় মাসের মধ্য ও দক্ষিণ এশিয়াবিষয়ক সহকারী মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রীর পদটি খালি রয়েছে। এ কারণে লিসার সফরটিকে গুরুত্বের সঙ্গে দেখে বাংলাদেশ। কারণ রাজনৈতিকভাবে নিয়োগ পাওয়া লিসা কার্টিস প্রেসিডেন্টের উপসহকারীর পাশাপাশি যুক্তরাষ্ট্রের জাতীয় নিরাপত্তা কাউন্সিলের মধ্য ও দক্ষিণ এশিয়াবিষয়ক জ্যেষ্ঠ পরিচালকের দায়িত্বে রয়েছেন। ফলে তার সংক্ষিপ্ত ঢাকা সফরের সময় দুদেশের সম্পর্ক নিয়ে নতুন মার্কিন প্রশাসন কী ভাবছে সে সম্পর্কে ধারণা পাবেন বাংলাদেশের কর্মকর্তারা। যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্টের নির্বাহী দপ্তরের অন্যতম শাখা জাতীয় নিরাপত্তা কাউন্সিল মূলত পররাষ্ট্রনীতি, গোয়েন্দা কর্মকাণ্ড ও জাতীয় নিরাপত্তার বিষয়ে প্রেসিডেন্টকে পরামর্শ দিয়ে থাকে। কিন্তু হঠাৎ সফর স্থগিত হওয়ায় বিষয়টি নিয়ে সরকারি মহলে বেশ দুশ্চিন্তার ছাপ লক্ষ্য করা গেছে। লিসার কার্টিসের সফর কেন স্থগিত হলো সে সম্পর্কে তেমন কিছু জানা না গেলেও ঢাকার কর্মকর্তারা বলছেন, নতুন দিনক্ষণ নির্ধারণ করে সফরটি আবার অনুষ্ঠিত হবে।

ঢাকায় মার্কিন রাষ্ট্রদূত মার্শা বার্নিকাট বলেন, ১৯৯৬ সালের ১৫ ফেব্রুয়ারি ও ২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারির মতো নির্বাচন যুক্তরাষ্ট্র দেখতে চায় না। নির্বাচন ইস্যুতে এখন পর্যন্ত মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের মনোভাব একই আছে। যুক্তরাষ্ট্র অবাধ, সুষ্ঠু ও সবার অংশগ্রহণে নির্বাচন চায়।

লিসা ঢাকায় এলে বাংলাদেশ ও মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের মধ্যে সন্ত্রাস ও জঙ্গিবাদ দমন নিয়ে সহযোগিতার বিষয়ে অধিক আলোচনা হওয়ার কথা ছিল। বিশেষ করে গত বছরের ১ জুলাই গুলশানের হলি আর্টিজান বেকারিতে সন্ত্রাসী হামলার পর এই সহযোগিতা আরো জোরদার হয়। পাশাপাশি সন্ত্রাস দমনে বাংলাদেশকে সহায়তা দেয়ার ব্যাপারে যুক্তরাষ্ট্রের ছক জানতে চায় ঢাকা। এছাড়া আগামী একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের ব্যাপারে ট্রাম্প প্রশাসনের মনোভাব আরো সুস্পষ্টভাবে জানার সুযোগ হতো। এসব কারণে লিসা কার্টিসের সফর নিয়ে সংশ্লিষ্ট বিভিন্ন মহলের আগ্রহ ছিল ব্যাপক। কিন্তু এখন এই মনোভাব জানতে আরো অপেক্ষা করতে হবে।

ঢাকা সফরকালে মার্কিন কর্মকর্তাদের সাম্প্রতিক একটা প্রবণতা বিশেষ লক্ষ্যণীয়। তারা ভারত সফর করে বাংলাদেশে আসেন। ভারতে তারা বাংলাদেশের পরিস্থিতি নিয়ে আলোচনা করেন। লিসা কার্টিসও তার ব্যতিক্রম নন। ঢাকায় মার্কিন রাষ্ট্রদূত মার্শা বার্নিকাট ইতোমধ্যে ভারতীয় হাই কমিশনার হর্ষ বর্ধন শ্রিংলার সঙ্গে এ নিয়ে বৈঠক করেছেন। বাংলাদেশে একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের আগে এদেশের রাজনীতি এবং সন্ত্রাস দমন ইস্যুতে পারস্পরিক মনোভাব জানার চেষ্টা দিল্লি ও ওয়াশিংটনের রয়েছে। ঢাকা-ওয়াশিংটন সম্পর্কের বিষয় নিয়ে ভারত কিংবা অন্য কোনো তৃতীয় দেশের সঙ্গে আলোচনাকে পছন্দ করে না বাংলাদেশ। বাংলাদেশ আশা করে- মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র সরাসরি বাংলাদেশের সঙ্গে যে কোনো বিষয়ে আলোচনা করবে।

গত এপ্রিলে যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের উপসহকারী ও দেশটির জাতীয় নিরাপত্তা কাউন্সিলের অন্যতম জ্যেষ্ঠ পরিচালক হিসেবে নিয়োগ পাওয়ার আগে গবেষণাপ্রতিষ্ঠান হেরিটেজ ফাউন্ডেশনের এশিয়ান স্টাডিজ সেন্টারে দক্ষিণ এশিয়াবিষয়ক জ্যেষ্ঠ ফেলো হিসেবে কাজ করতেন লিসা কার্টিস। দক্ষিণ এশিয়া বিশেষজ্ঞ হিসেবে পরিচিত লিসা কার্টিসের গবেষণায় যুক্তরাষ্ট্র-ভারত প্রতিরক্ষা ও কৌশলগত অংশীদারত্ব, পাকিস্তান, আফগানিস্তান ও বাংলাদেশের সন্ত্রাসবাদবিরোধী নীতি এবং এই অঞ্চলে ইসলামি উগ্রপন্থা ও ধর্মীয় স্বাধীনতার বিষয়গুলো প্রাধান্য পেয়েছে।



আজকের কার্টুন

লাইফস্টাইল

আজকের বাংলার মিডিয়া পার্টনার

অনলাইন জরিপ

বাংলাদেশের প্রাইমারি ও মাধ্যমিক শিক্ষা পাঠক্রমে ব্যাপক পরিবর্তন করা হয়েছে জানুয়ারি ২০১৭ তে বিতরণকরা নতুন বইয়ে অদ্ভুত সব কারণ দেখিয়ে মুক্ত-চর্চার লেখকদের লেখা ১৭ টি প্রবন্ধ বাংলা বই থেকে বাদ দেওয়া হয়েছে এবং ইসলামী মৌলবাদী লেখা যোগ হয়েছে, আপনি কি এই পুস্তক আপনার ছেলে-মেয়েদের জন্য অনুমোদন করেন?

 হ্যাঁ      না      মতামত নেই    

সংবাদ আর্কাইভ