১৫ ডিসেম্বর ২০১৭ ইং
সাপ্তাহিক আজকের বাংলা - ৬ষ্ঠ বর্ষ ৩২শ সংখ্যা: বার্লিন, রবিবার ০৬ আস্ট – ১২ আস্ট ২০১৭ # Weekly Ajker Bangla – 6th year 32nd issue: Berlin,Sunday 06Aug – 12Aug 2017

ভোট চাইতে দ্বারে দ্বার ঘুরছেন প্রার্থীরা

জার্মানির জাতীয় নির্বাচন ঘনিয়ে আসছে

প্রতিবেদকঃ DW তারিখঃ 2017-08-12   সময়ঃ 16:18:00 পাঠক সংখ্যাঃ 128

জার্মান চ্যান্সেলর আঙ্গেলা ম্যার্কেলের দল খ্রিষ্টীয় গণতন্ত্রীসহ বিভিন্ন দলের নেতারা কিছুটা আগের জমানার ফিরে গেছেন৷ আগামী ২৪ সেপ্টম্বরের নির্বাচনকে সামনে রেখে দ্বারে দ্বারে গিয়ে সম্ভাব্য ভোটারদের সঙ্গে কথা বলছেন তাঁঁরা৷
জার্মানির জাতীয় নির্বাচন ঘনিয়ে আসছে৷ চ্যান্সেলর পদে আঙ্গেলা ম্যার্কেল এবং মার্টিন শ্যুলৎসের মধ্যে হাড্ডাহাড্ডি লড়াই হবে এমন প্রত্যাশ্যা হয়ত কম, তবে বিভিন্ন নির্বাচনি এলাকায় প্রার্থীদের মধ্যে লড়াই ভালোই জমবে৷ ফলে প্রার্থীদের মধ্যে শুরু হয়েছে ভোটারদের কাছে পৌঁছানোর প্রতিযোগিতা৷ আর এই প্রক্রিয়ায় যোগ হয়েছে এক পুরনো কৌশল – ভোটারদের বাড়ি বাড়ি গিয়ে কুশল বিনিময়৷
সম্ভাব্য ভোটারদের সঙ্গে দেখা করতে দরজায় টোকা দেয়ার এই পন্থার এক অন্যতম সমর্থক সামাজিক গণতন্ত্রী (এসপিডি) দলের মায়া লাসিচ৷ গত নির্বাচনের আগে এমনটা করে ভালোই সুফল পেয়েছিলেন তিনি৷ লাসিচ বলেন, ‘‘ভোটারদের সঙ্গে নিবিড় ব্যক্তিগত সম্পর্ক গড়ায় আমি বাড়তি সুবিধা পেয়েছিলাম৷ তাঁদের সঙ্গে একটি সম্পর্ক তৈরি করতে দ্বারে দ্বারে যাওয়াটা আদর্শ উপায়৷ এভাবে আপনি মানুষ সম্পর্কে পাবলিক ইনফরমেশন স্টান্ডের চেয়ে বেশি জানতে পারবেন৷’’
 
তবে ভোটারদের বাড়ি বাড়ি যাওয়ার এই কৌশল সর্বত্র কাজে নাও আসতে পারে৷ লাসিচ স্বীকার করেছেন যে, বিভিন্ন দলের গোড়া ভোটারদের এভাবে কাবু করার সম্ভব নয়৷ আর সম্প্রতি এক গবেষণাতেও দেখা গেছে যে, অধিকাংশ মানুষই এভাবে দরজায় দাঁড়িয়ে নির্বাচনের আলাপ পছন্দ করেন না৷
কিন্তু তারপরও প্রার্থীরা এই পন্থা বেছে নিচ্ছেন কেন? রাষ্ট্রবিজ্ঞানী সিমন ক্রুশিনস্কি বলেন, ‘‘অনেক ভোটার নিজেদের মনস্থির করতে একদম শেষ সময় পর্যন্ত অপেক্ষা করেন৷ প্রার্থী দরজায় টোকা দিলে এধরনের ভোটারদের সিদ্ধান্ত গ্রহণ সহজ হয়৷’’
লাসিচ বলেন, ‘‘আমরা প্রায়ই এমন মানুষের মুখোমুখি হই, যাঁরা নিশ্চিত নন এসপিডি তাঁদের অধিকার রক্ষায় আদৌ কাজ করছে কিনা নিয়ে৷ একজন প্রার্থী যিনি তাঁদের সঙ্গে ব্যক্তিগত পর্যায়ে দেখা করতে যান, তিনি এই নিশ্চিয়তা দিতে পারেন৷’’
বলাবাহুল্য, বাড়ি বাড়ি গিয়ে নির্বাচনি প্রচারণা চালানোর ব্যাপারটি জার্মানিতে কখনোই মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের মতো জনপ্রিয় ছিল না৷ তবে ক্রুশিনস্কি বলছেন, গবেষণায় দেখা গেছে এ ধরনের প্রচারণা বাড়তি ভোট পেতে সহায়ক৷ তবে শুধু বাড়ি বাড়ি গিয়ে ভোট চাওয়া নয়, অনলাইনেও ভোট চাওয়ার দিকে ঝুঁকছে রাজনৈতিক দলগুলো৷ সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যমে ভোট চাওয়ার ক্ষেত্রে মুক্তগণতন্ত্রী দল (এফডিপি) এক্ষেত্রে বেশ এগিয়ে রয়েছে৷ অন্যরাও সক্রিয় অফলাইন এবং অনলাইনে৷
জেফারসন চেজ/এআই



আজকের কার্টুন

লাইফস্টাইল

আজকের বাংলার মিডিয়া পার্টনার

অনলাইন জরিপ

প্রতিবেশী রাষ্ট্র মিয়ানমার রোহিঙ্গা দেরকে অত্যাচার করে ফলে ২০১৭ তে অগাস্ট ২৫ থেকে সেপ্টেম্বর পর্যন্ত ১ মাসে ৫ লক্ষ্য রোহিঙ্গা জাতিগোষ্ঠী বাংলাদেশে আশ্রয় নিয়েছে, আপনি কি মনে করেন বাংলাদেশ শরণার্থী দেরকে আবার ফিরে পাঠিয়ে দিক?

 হ্যাঁ      না      মতামত নেই    

সংবাদ আর্কাইভ