১৫ ডিসেম্বর ২০১৭ ইং
সাপ্তাহিক আজকের বাংলা - ৬ষ্ঠ বর্ষ ৩৭শ সংখ্যা: বার্লিন, রবিবার ১০সেপ্টে – ১৬সেপ্টে ২০১৭ # Weekly Ajker Bangla – 6th year 37th issue: Berlin,Sunday 10Sep - 16Sep 2017

বলিউডের পুরুষতান্ত্রিকতাকে একহাত নিলেন কঙ্গনা

তিনি বলেছেন, নারী এখনও বলিউডে কেবলই পণ্য

প্রতিবেদকঃ ডয়েচে ভেলে তারিখঃ 2017-09-17   সময়ঃ 00:31:29 পাঠক সংখ্যাঃ 366

নায়কপ্রধান গল্প, তাঁদের স্বেচ্ছাচারিতা, পারিশ্রমিকে বৈষম্য, পরিবারের আধিপত্য, নায়িকাদের পণ্য হিসেবে দেখানো – বলিউডের এমনই সব নির্মম সত্য গানে গানে তুলে ধরেছেন কঙ্গনা রানাউত৷ তুলে ধরেছেন বলিউডের পুরুষতান্ত্রিক মানসিকতাকে৷

ভারতের কমেডি গ্রুপ অল ইন্ডিয়া বাকচোদ বা এআইবি-এর সঙ্গে মিলে নতুন এই গানে অংশ নিয়েছেন কঙ্গনা৷ ‘কজ আই হ্যাভ ভ্যাজাইনা রে' শিরোনামের এই গানের মাধ্যমে তিনি বলেছেন, নারী এখনও বলিউডে কেবলই পণ্য৷ আত্মমর্যাদা নিয়ে থাকতে চাইলে তাই তাঁদের চলে যেতে হয় পর্দার আড়ালে৷

বলিউডে নায়িকারা এখনও পরিচালকদের কাছে এতই কম গুরুত্বপূর্ণ যে তাঁদের নামও কোনো কোনো ক্ষেত্রে মনে রাখতে পারেন না তাঁরা৷ চরিত্র যা-ই হোক না কেন, পরিচালকেরকথামতো চটুল সব সংলাপ আউড়ানো আর গানের কথায় নাচতে হয় তাঁদের৷ স্ক্রিপ্টে এ সবের পরিবর্তন চাইলে পুরুষ পরিচালকের তিরস্কার শুনতে হয়, শুনতে হয় ফিল্ম হিট করানোর বাহানা৷ অথচ ঐ একই দাবি নায়ক করলে তিনি ‘স্মার্ট' বলে বাহবা পান৷ 

প্রতিষ্ঠিত নায়করা নিজের খুশিমতো শুটিং সেটে হাজির হন, স্ক্রিপ্ট না পড়েই ক্যামেরার সামনে দাঁড়িয়ে পড়েন৷ কখনও তাঁদের ইচ্ছেমতো নায়িকা নির্ধারণ করা হয়৷ কখনও আবার শুটিং করার পরও সিনেমা থেকে বাদ পড়েন নায়িকারা৷ পঞ্চাষোর্ধ নায়করা এখনও যেখানে দিব্যি তাঁদের অর্ধেক বয়সি নারীদের সঙ্গে সিনেমা করে চলেছেন, সেখানে বিয়ে হলেই নায়িকাদের কপালে আর সিনেমা জুটছে না৷ এ সমস্ত নানা  অসঙ্গতি উঠে এসেছে ভিডিওটিতে৷

মামা-চাচার জোর যে বলিউডেও আছে, সেই প্রসঙ্গও উঠে এসেছে এই গানে৷ যাঁর পারিবারিক ভিত যত মজবুত, তাঁর ক্যারিয়ারও তত স্বর্ণালী ৷ পত্রিকার প্রচ্ছদে নিজের ‘ক্লিভেজ' বা বুকের ভাঁজ দেখাতে যে নায়িকা পিছ-পা হন না, তাঁর চাহিদাও তত বেশি হয়৷

সত্য ও স্পষ্টবাদী হিসেবে খ্যাত কঙ্গনা রানাউতের সঙ্গে এআইবি-র সদস্যরাও অভিনয় করেছেন গানের ভিডিওতে৷

এএম/ডিজি



আজকের কার্টুন

লাইফস্টাইল

আজকের বাংলার মিডিয়া পার্টনার

অনলাইন জরিপ

প্রতিবেশী রাষ্ট্র মিয়ানমার রোহিঙ্গা দেরকে অত্যাচার করে ফলে ২০১৭ তে অগাস্ট ২৫ থেকে সেপ্টেম্বর পর্যন্ত ১ মাসে ৫ লক্ষ্য রোহিঙ্গা জাতিগোষ্ঠী বাংলাদেশে আশ্রয় নিয়েছে, আপনি কি মনে করেন বাংলাদেশ শরণার্থী দেরকে আবার ফিরে পাঠিয়ে দিক?

 হ্যাঁ      না      মতামত নেই    

সংবাদ আর্কাইভ