২১ অক্টোবর ২০১৭ ইং
সাপ্তাহিক আজকের বাংলা - ৬ষ্ঠ বর্ষ ৩৮শ সংখ্যা: বার্লিন, রবিবার ১৭সেপ্টে – ২৩সেপ্টে ২০১৭ # Weekly Ajker Bangla – 6th year 38th issue: Berlin,Sunday 17Sep - 23Sep 2017

সু চি সাড়া দিতে ব্যর্থ হলে ভয়ঙ্কর বিপর্যয় নেমে আসবে: জাতিসংঘ মহাসচিব

জাতিসংঘের সাধারণ অধিবেশনে

প্রতিবেদকঃ DW তারিখঃ 2017-09-17   সময়ঃ 01:43:33 পাঠক সংখ্যাঃ 85

মিয়ানমারে চলমান সঙ্কট অবসানের ‘শেষ একটি সুযোগ' মিয়ানমারের নেত্রী অং সান সু চির সামনে রয়েছে বলে মন্তব্য করেছেন জাতিসংঘ মহাসচিব আন্তোনিও গুতেরেস৷ এবারও সুচি সাড়া দিতে ব্যর্থ হলে তা বিপর্যয় ডেকে আনবে বলে মন্তব্য করেন তিনি৷

২৫শে আগস্ট সহিংসতা শুরুর পর থেকে এখনও পর্যন্ত বাংলাদেশে প্রবেশ করেছে ৪ লাখ ১০ হাজারেরও বেশি রোহিঙ্গা৷ জাতিসংঘের মহাসচিব আন্তোনিও গুতেরেস সংবাদ সংস্থা বিবিসির এক অনুষ্ঠানে বলেন, ‘‘আমি আশা করি দেশটির নেতা চাইলেই পরিস্থিতি বদলে দিতে পারেন৷ তাঁর হাতে সুযোগ রয়েছে৷ আমার মতে, কিছু করার জন্য এটাই শেষ সুযোগ৷''

জাতিসংঘের সাধারণ অধিবেশনে এবার প্রাধান্য পাচ্ছে রোহিঙ্গা ইস্যু৷ বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাও অধিবেশনে যোগ দিতে নিউ ইয়র্ক পৌঁছেছেন৷ তিনি সেখানে এই ইস্যুতে বাংলাদেশের অবস্থান তুলে ধরবেন৷ সু চির এই অধিবেশনে যোগ দেয়ার কথা থাকলেও তিনি শেষ মুহূর্তে সফর বাতিল করেন৷ তবে আগামী মঙ্গলবার টেলিভিশনে জাতির উদ্দেশে ভাষণে এ প্রসঙ্গে প্রথম কথা বলবেন মিয়ানমারের এই নেত্রী৷

আর তাঁর এই ভাষণকেই শেষ সুযোগ হিসেবে দেখছেন জাতিসংঘের মহাসচিব৷ বিবিসির হার্ড টক অনুষ্ঠানে তিনি বলেন, ‘‘সু চি যদি পরিস্থিতি বদলাতে না পারেন, তাহলে আমার মনে হয়, বিপর্যয়টা হবে ভয়ংকর৷ সেক্ষেত্রে ভবিষ্যতে কী করে এর সমাধান সম্ভব - তার কোনো উপায় আমি দেখছি না৷'' গুতেরেস বলেন, ‘‘মিয়ানমার যে এখনও অনেকখানি সেনাবাহিনীর নিয়ন্ত্রণে, তা বেশ স্পষ্ট৷ আর রাখাইনে যা ঘটছে, তা সেনাবাহিনীর কারণেই ঘটছে৷'' সেনাবাহিনীর দমন-পীড়নে রোহিঙ্গারা দেশান্তরী হতে বাধ্য হয়েছেন৷ তাই তাঁদের নিজ নিজ ঘরে ফেরার সুযোগ দিতে আবারও আহ্বান জানান জাতিসংঘের মহাসচিব৷ আগামী ১৯শে সেপ্টেম্বর শুরু হবে জাতিসংঘের সাধারণ অধিবেশন৷

মিয়ানমারের সেনা প্রধানের ঐক্যের ডাক

এদিকে, মিয়ানমারের রাখাইন রাজ্যে রোহিঙ্গাদের ওপর চলমান নিপীড়নের মধ্যেই এ ইস্যুতে মিয়ানমারবাসীকে ঐক্যবদ্ধ হওয়ার আহ্বান জানিয়েছেন দেশটির সেনাপ্রধান৷ রোহিঙ্গাদের ওপর ‘কাঠামোগত নিধন' চালানোর অভিযোগ উঠেছে মিয়ানমারের সেনাবাহিনীর বিরুদ্ধে৷ সেনাপ্রধান মিন তাঁর ফেসবুক পাতায় শনিবার এক মন্তব্যে রোহিঙ্গাদের বিরুদ্ধে ঐক্যের ডাক দেন৷ লেখেন, ‘‘তারা রোহিঙ্গা হিসেবে স্বীকৃতি চায়৷ কিন্তু মিয়ানমারে এই জাতিসত্তার কোনো অস্তিত্ব নেই৷ রোহিঙ্গারা যে আদতে বাঙালি - এই সত্যকে প্রতিষ্ঠিত করতে আমাদের ঐক্যবদ্ধ হতে হবে৷''

মিয়ানমারে রোহিঙ্গাদের উপর নির্যাতন বন্ধে আন্তর্জাতিক সম্প্রদায় সেদেশের নোবেল জয়ী অং সান সু চির দিকে তাকিয়ে থাকলেও প্রকৃত ক্ষমতা আসলে আরেকজনের হাতে৷ তিনি মিয়ানমারের সেনাপ্রধান৷ যার হাতে অনেক ক্ষমতা৷

মানবাধিকার সংস্থাগুলোর বক্তব্য

মানবাধিকার সংস্থা হিউম্যান রাইটস ওয়াচ জানিয়েছে, ২৫শে আগস্টের পর থেকে রাখাইনে রোহিঙ্গাদের ৬২টি গ্রাম জ্বালিয়ে দেয়া হয়েছে৷ তাদের কাছে এ সংক্রান্ত ভিডিও ফুটেজও রয়েছে৷ মানবাধিকার সংস্থাগুলোর দাবি, পরিস্থিতি দেখে এই সহিংসতা বন্ধের কোনো আলামত পাওয়া যায়নি৷ প্রতিদিনই কোনো না কোনো স্থান থেকে ধোঁয়া উঠতে দেখা যাচ্ছে৷ আর তারপরই বাংলাদেশের সীমান্ত পথে ঢল নামছে শরণার্থীদের৷

শরণার্থী শিশুদের করুণ অবস্থা

জাতিসংঘের হিসেব অনুযায়ী, রোহিঙ্গা শরণার্থীদের অর্ধেকের বেশিই শিশু৷ এদের মধ্যে ১১০০টি শিশু একাই বাংলাদেশে এসেছে৷ সেভ দ্য চিলড্রেন-এর বাংলাদেশ প্রধান মার্ক পিয়ার্স বলেছেন, ‘‘যেভাবে এদেশে রোহিঙ্গারা প্রবেশ করছে, তাতে বছর শেষে বাংলাদেশে মোট রোহিঙ্গার সংখ্যা ১০ লাখ ছাড়িয়ে যাবে৷ এদের মধ্যে শিশুর সংখ্যাই হবে ৬ লাখ৷'' জাতিসংঘ এ-ও বলছে যে, মিয়ানমারে ১১ লাখ রোহিঙ্গার সবাই দেশ ছেড়ে পালিয়ে আসবে৷

কক্সবাজারে যেসব সাহায্য সংস্থা ত্রাণ কাজে নিয়োজিত, তাদের কথায়,বর্তমান পরিস্থিতিতে খুব শিগগিরই শরণার্থী শিবিরগুলোতে বিভিন্ন রোগ ছড়িয়ে পড়ার আশঙ্কা দেখা দিয়েছে৷ বিশেষ করে যেসব শিশুরা আতঙ্কগ্রস্ত এবং যারা একেবারেই অভিভাবকহীন, তাদের নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করেছে তারা৷ মার্ক জানিয়েছেন, ‘‘এইসব শিশুদের হয়রানি, নির্যাতন ও পাচার হওয়ার ভয় থাকে৷ এছাড়া এমন অনেক শিশু রয়েছে, যারা চোখের সামনে হত্যা ও নির্যাতনের বিভৎস দৃশ্য দেখেছে এবং এখনো আতঙ্কে কেঁপে কেঁপে উঠছে৷ কেউ কেউ নিজেদের বাড়ি জ্বলতে দেখেছে, কারো সামনে তাদের বাবা-মাকে মেরে ফেলা হয়েছে৷'' তাই এই শিশুদের নিরাপদে রাখাটাই এখন সেভ দ্য চিলড্রেন-এর কাছে অন্যতম প্রধান বিষয় হয়ে দাঁড়িয়েছে৷

এপিবি/ডিজি (এপি, এএফপি, রয়টার্স)

 

 



আজকের কার্টুন

লাইফস্টাইল

আজকের বাংলার মিডিয়া পার্টনার

অনলাইন জরিপ

বাংলাদেশের প্রাইমারি ও মাধ্যমিক শিক্ষা পাঠক্রমে ব্যাপক পরিবর্তন করা হয়েছে জানুয়ারি ২০১৭ তে বিতরণকরা নতুন বইয়ে অদ্ভুত সব কারণ দেখিয়ে মুক্ত-চর্চার লেখকদের লেখা ১৭ টি প্রবন্ধ বাংলা বই থেকে বাদ দেওয়া হয়েছে এবং ইসলামী মৌলবাদী লেখা যোগ হয়েছে, আপনি কি এই পুস্তক আপনার ছেলে-মেয়েদের জন্য অনুমোদন করেন?

 হ্যাঁ      না      মতামত নেই    

সংবাদ আর্কাইভ