১১ ডিসেম্বর ২০১৭ ইং
সাপ্তাহিক আজকের বাংলা - ৬ষ্ঠ বর্ষ ৩৮শ সংখ্যা: বার্লিন, রবিবার ১৭সেপ্টে – ২৩সেপ্টে ২০১৭ # Weekly Ajker Bangla – 6th year 38th issue: Berlin,Sunday 17Sep - 23Sep 2017

উত্তর কোরিয়ার প্রশ্নে ট্রাম্পের সঙ্গে স্পষ্ট মতপার্থক্য রয়েছে: ম্যার্কেল

জার্মান চ্যান্সেলরের সাথে একান্ত সাক্ষাৎকার

প্রতিবেদকঃ ডয়েচে ভেলে তারিখঃ 2017-09-20   সময়ঃ 23:43:53 পাঠক সংখ্যাঃ 215

ডয়চে ভেলের সঙ্গে একান্ত সাক্ষাৎকারে জার্মান চ্যান্সেলর আঙ্গেলা ম্যার্কেল শান্তিপূর্ণ উপায়ে উত্তর কোরিয়া সংকট সমাধানের উপর জোর দিয়েছেন৷ জার্মানি এ ক্ষেত্রে মধ্যস্থতা করতেও প্রস্তুত৷

মঙ্গলবার নিউ ইয়র্কে জাতিসংঘের সাধারণ অধিবেশনে মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের ভাষণের তীব্র সমালোচনা করেছেন জার্মান চ্যান্সেলর আঙ্গেলা ম্যার্কেল৷ ট্রাম্প তাঁর ভাষণে উত্তর কোরিয়াকে ‘সম্পূর্ণ ধ্বংস' করে দেবার হুমকি দিয়েছিলেন৷ ডয়চে ভেলের সঙ্গে সাক্ষাৎকারে ম্যার্কেল বলেন, ‘‘আমি এমন হুমকির বিরোধী৷ জার্মান সরকার ও আমি যে কোনো ধরনের সামরিক সমাধানসূত্রকেই সম্পূর্ণ অযৌক্তিক বলে মনে করি৷ আমরা কূটনৈতিক পথেই সংকটের সমাধান খোঁজার পক্ষে৷ সর্বশক্তি প্রয়োগ করে এ ক্ষেত্রে অগ্রসর হতে হবে৷ আমার মতে, নিষেধাজ্ঞা ও সেই নিষেধাজ্ঞা কার্যকর করাই এই সংকটের সঠিক জবাব৷ উত্তর কোরিয়ার ক্ষেত্রে অন্য কোনো পথকেই আমি ভুল মনে করি৷'' ম্যার্কেল জানান, নিউ ইয়র্কে ভাষণের আগেই তিনি টেলিফোনে ট্রাম্পকে এ কথা জানিয়েছিলেন৷ জার্মানিতে সাধারণ নির্বাচনের কয়েকদিন আগে ম্যার্কেল ডয়চে ভেলের দুই সাংবাদিকের প্রশ্নের জবাব দিয়েছেন৷

সংকট নিরসনে আমরা সাহায্য করতে পারি: ম্যার্কেল

উত্তর কোরিয়া সংকট নিরসনের ক্ষেত্রে ম্যার্কেল সহযোগিতার ইঙ্গিত দিয়েছেন৷ তিনি বলেন, ‘‘জার্মানি থেকে ভৌগোলিক দূরত্ব সত্ত্বেও উত্তর কোরিয়া সংকট আমাদের উপরেও প্রভাব ফেলছে৷ তাই আমি নিজে ও জার্মান পররাষ্ট্রমন্ত্রীও এ ক্ষেত্রে দায়িত্ব নিতে প্রস্তুত৷ ইরানের সঙ্গে চুক্তির ক্ষেত্রেও আমরা আলোচনায় অংশ নিয়েছি৷ আমি এখনো এই চুক্তিকে সঠিক মনে করি৷ কোনো চুক্তি না থাকার চেয়ে এটি ভালো৷ অনেক বছর লাগলেও শেষ পর্যন্ত ইরানের পরমাণু অস্ত্র কর্মসূচির সম্ভাবনায় সীমা টানা সম্ভব হয়েছে৷ উত্তর কোরিয়ার ক্ষেত্রেও রাশিয়া, চীন ও মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে একই ধরনের পথে অগ্রসর হতে হবে৷''

ম্যার্কেল-এর সাক্ষাৎকার নিয়েছেন ডয়চে ভেলের প্রধান সম্পাদক ইনেস পোল ও সাংবাদিক জাফার আবদুল করিম

সাবেক পূর্ব জার্মানির সময় থেকে উত্তর কোরিয়ার রাজধানী পিয়ং ইয়ং-এ দূতাবাস রয়েছে৷ বার্লিনেও উত্তর কোরিয়ার দূতাবাস রয়েছে৷ হাতে গোনা কিছু দেশের সঙ্গে উত্তর কোরিয়ার এমন কূটনৈতিক সম্পর্ক রয়েছে৷ সেইসঙ্গে চীন, জাপান, দক্ষিণ কোরিয়া ও মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গেও জার্মানির ঘনিষ্ঠ সম্পর্ক রয়েছে৷ ২০১৩ সালের সেপ্টেম্বর মাসেই বার্লিনে এক হোটেলে উত্তর কোরিয়া ও মার্কিন প্রতিনিধিদের এক গোপন আলোচনা হয়েছিল৷ উত্তর কোরিয়ার শীর্ষ নেতা কিম জং উন-এর সঙ্গে ব্যক্তিগত যোগাযোগ আছে কিনা, এই প্রশ্নের উত্তরে ম্যার্কেল বলেন, ‘‘এই মুহূর্তে এমন কোনো অ্যাজেন্ডা নেই৷ আমি সেই লক্ষ্যে কোনো পদক্ষেপ নিচ্ছি না৷''

‘কখনো এএফডি-র সঙ্গে সহযোগিতা করবো না'

সিডিইউ দলের শীর্ষ নেত্রী হিসেবে ম্যার্কেল নির্বাচনি প্রচারের শেষ পর্যায় সম্পর্কেও মন্তব্য করেন৷ জনমত সমীক্ষা অনুযায়ী, তিনি তাঁর প্রতিদ্বন্দ্বী এসপিডি দলের মার্টিন শুলৎস-এর তুলনায় অনেক এগিয়ে রয়েছেন৷ দক্ষিণপন্থি পপুলিস্ট এএফডি দলের প্রতি বিপুল সমর্থন প্রসঙ্গে ম্যার্কেল বলেন, মানুষের সমস্যাগুলির সমাধান করাই এমন দলের বিরুদ্ধে সবচেয়ে ভালো কৌশল৷ তিনি বলেন, ‘‘কর্মসংস্থান, ভালো স্কুল, উপযুক্ত ডাক্তার নিয়ে তাদের মনে যে সব উদ্বেগ রয়েছে, সেই সব বিষয়ে সত্যি কাজ করতে হবে৷ অন্যদিকে ঘৃণা ও হিংসার বিরুদ্ধেও স্পষ্ট অবস্থান নিতে হবে৷''

 

নির্বাচনের কয়েক দিন আগে কিছু জনমত সমীক্ষা অনুযায়ী এএফডি দল দশ শতাংশেরও বেশি সমর্থন পেতে চলেছে৷ ফলে সংসদে তাদের প্রবেশ অনিবার্য বলে মনে করা হচ্ছে৷ তাদের এই সাফল্যের ব্যাখ্যা দিতে চাননি ম্যার্কেল৷ তিনি বলেন, ‘‘আমি এটা করতে চাই না, কারণ, আমি কখনো এএফডি-র সঙ্গে সহযোগিতা করবো না৷''

‘তুরস্কের সংকটগুলি আমাদের এখানে আনা চলবে না'

তুরস্কের প্রেসিডেন্ট রেচেপ তাইয়িপ এর্দোয়ানের সঙ্গে ধারাবাহিক সংকটসম্পর্কেও ম্যার্কেল বক্তব্য রাখেন৷ উল্লেখ্য, এর্দোয়ান সরাসরি ম্যার্কেলের বিরুদ্ধে বার বার ‘নাৎসি পদ্ধতি' প্রয়োগ করার অভিযোগ এনেছেন৷ তাছাড়া তুরস্কে একাধিক জার্মান নাগরিককে গ্রেপ্তার করা হচ্ছে৷ বেশিরভাগ ক্ষেত্রে তাদের বিরুদ্ধে নির্দিষ্ট অভিযোগ বা মামলাও করা হচ্ছে না৷ তুরস্কের অভ্যন্তরে জোরালো সংঘাতের সম্ভাব্য পরিণতি নিয়ে ম্যার্কেল অত্যন্ত উদ্বিগ্ন৷ তিনি বলেন, ‘‘তুরস্কের বিভিন্ন গোষ্ঠী যেভাবে পরস্পরের উপর গোয়েন্দাগিরি ও নজরদারি চালাচ্ছে,   বর্তমানে সেটা আমাদের উদ্বেগের কারণ৷ আমরা এমনটা চাই না৷ তুরস্ক থেকে জার্মানিতে কোনো সংকট চলে আসুক, আমরা সেটা চাই না৷ এইসব গোষ্ঠী যাতে আমাদের এখানে শান্তিপূর্ণভাবে, কোনো উৎপাত ছাড়াই থাকতে পারে, আমরা সে বিষয়ে সতর্ক থাকবো৷''

সিএসইউ দলের সঙ্গে নির্জন দ্বীপে

দীর্ঘ ১২ বছর ধরে যে নেত্রী জার্মানি শাসন করছেন, তিনি কোন রাজনৈতিক নেতাকে একটি নির্জন দ্বীপে সঙ্গে নিয়ে যাবেন? ডয়চে ভেলের প্রধান সম্পাদক ইনেস পোল ও সাংবাদিক জাফার আবদুল করিম সব দলের শীর্ষ প্রার্থীর সঙ্গে সাক্ষাৎকারের শেষে এই প্রশ্নটি করেছেন৷ ম্যার্কেল বিস্ময়করভাবে বাভেরিয়া রাজ্যের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী ও সিএসইউ দলের নেতা ইওয়াখিম হেয়ারমান-এর নাম করলেন৷ তাঁর সঙ্গে ম্যার্কেল অভ্যন্তরীণ নিরাপত্তা নিয়ে আলোচনা করতে চান৷

ইয়েন্স টুরাউ/এসবি

 

 



আজকের কার্টুন

লাইফস্টাইল

আজকের বাংলার মিডিয়া পার্টনার

অনলাইন জরিপ

প্রতিবেশী রাষ্ট্র মিয়ানমার রোহিঙ্গা দেরকে অত্যাচার করে ফলে ২০১৭ তে অগাস্ট ২৫ থেকে সেপ্টেম্বর পর্যন্ত ১ মাসে ৫ লক্ষ্য রোহিঙ্গা জাতিগোষ্ঠী বাংলাদেশে আশ্রয় নিয়েছে, আপনি কি মনে করেন বাংলাদেশ শরণার্থী দেরকে আবার ফিরে পাঠিয়ে দিক?

 হ্যাঁ      না      মতামত নেই    

সংবাদ আর্কাইভ