১৫ ডিসেম্বর ২০১৭ ইং
সাপ্তাহিক আজকের বাংলা - ৬ষ্ঠ বর্ষ ৪৮শ সংখ্যা: বার্লিন, রবিবার ২৬নভে–০২ডিসে ২০১৭ # Weekly Ajker Bangla – 6th year 48th issue: Berlin,Sunday 26Nov-02Dec 2017

ঢাকায় পোপ ফ্রান্সিস, কথা বলবেন রোহিঙ্গাদের সঙ্গে

রোহিঙ্গা সংকটে পোপ বাংলাদেশের পক্ষে আছেন

প্রতিবেদকঃ DW তারিখঃ 2017-11-30   সময়ঃ 20:49:18 পাঠক সংখ্যাঃ 38

খ্রিস্টানদের সর্বোচ্চ ধর্মীয় গুরু পোপ ফ্রান্সিস তিন দিনের সফরে বাংলাদেশে এসেছেন৷ তাঁর এই সফরে আগ্রহের কেন্দ্রে রয়েছে রোহিঙ্গা ইস্যু৷ বাংলাদেশের পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেছেন, ‘‘রোহিঙ্গা সংকটে পোপ বাংলাদেশের পক্ষে আছেন৷''

বৃহস্পতিবার বিকেল ৩টার দিকে মিয়ানমার থেকে বাংলাদেশে আসেন পোপ৷ তাঁকে ঢাকায় শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে স্বাগত জানান বাংলাদেশের রাষ্ট্রপতি মো. আব্দুল হামিদ৷ এরপর তিনি সাভারে জাতীয় স্মৃতিসৌধ ও বঙ্গবন্ধু স্মৃতি জাদুঘর পরিদর্শন করেন৷ সন্ধ্যায় তিনি বঙ্গভবনে বক্তৃতা দেন৷ রাতে তাঁর সম্মানে দেওয়া রাষ্ট্রীয় অনুষ্ঠানে অংশ নেওয়ার পাশাপাশি রাষ্ট্রপতির সঙ্গে একান্ত বৈঠকে অংশ নেয়ার কথা আছে তাঁর৷

পোপ তিন দিনের সফরে বাংলাদেশের রাষ্ট্রপতি এবং প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে বৈঠক ছাড়াও আন্তঃধর্ম সমাবেশ, যুব সমাবেশ এবং খ্রিস্টধর্মীয় সমাবেশে অংশ নেবেন৷

শুক্রবার সকালে সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে খ্রিষ্টান সম্প্রদায়ের সঙ্গে মিলিত হবেন পোপ৷ এদিন বিকালে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে ভ্যাটিকান দূতাবাসে সাক্ষাতের পর আর্চবিশপ হাউসে তিনি আন্তঃধর্মীয় নেতা ও রোহিঙ্গাদের সঙ্গে বৈঠক করবেন৷

 

আগামী ২ ডিসেম্বর সকালে মাদার তেরেসা হাউস সফরসহ খ্রিষ্টধর্মের নেতাদের সঙ্গে বৈঠকে বসবেন পোপ ফ্রান্সিস৷ বিকালে নটরডেম কলেজে যুব সম্প্রদায়ের সঙ্গে বিভিন্ন বিষয় নিয়ে আলোচনা করবেন তিনি৷

মার্কিন ক্যাথলিক সম্প্রদায়ের জাতীয় সাপ্তাহিক ‘অ্যামেরিকা'য় প্রকাশিত প্রতিবেদনে জানানো হয়েছে, পোপ বাংলাদেশের সব গরীব মানুষের প্রতিনিধি হয়ে এসেছেন৷ তিনি বিপন্ন রোহিঙ্গা জনগোষ্ঠীর শরণার্থী, গার্মেন্টস শ্রমিক, জলবায়ু উদ্বাস্তুতে রূপান্তরিত মানুষের হয়ে কথা বলবেন৷ একইভাবে এশিয়ার ক্যাথলিক মুখপত্র ইউসিএ-তে প্রকাশিত এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, রোহিঙ্গা ছাড়াও জলবায়ু পরিবর্তন, আধুনিক দাসত্ব, সংখ্যালঘু খ্রিষ্টান সম্প্রদায়সহ বিভিন্ন ধর্মীয় নিপীড়ন পোপের সফরে প্রাধান্য পাবে৷''

বাংলাদেশের দিক থেকে পোপের সফরে রোহিঙ্গা বিষয়টিই সর্বোচ্চ গুরুত্ব পাচ্ছে৷ রোহিঙ্গাদের নিয়ে তিনি কী বলেন, মিয়ানমারে এড়িয়ে গেলেও বাংলাদেশে রোহিঙ্গা শব্দটি উচ্চারণ করেন কিনা, তা দেখার অপেক্ষায় আছেন বাংলাদেশের নাগরিকরা৷

 

বৃহস্পতিবার সকালে পোপ ফ্রান্সিস ঢাকায় আসার ঠিক আগমূহুর্তে পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ এইচ মাহমুদ আলী বলেন, ‘‘রোহিঙ্গাদের নিয়ে আমরা এখন খুব বিপদে আছি৷ ঠিক এমন সময়ে পোপ ফ্রান্সিস বাংলাদেশে আসছেন৷ মিয়ানমার থেকে এখানে তাঁর আসা অবশ্যই গুরুত্ব বহন করে৷''

পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, ‘‘বহুদিন পর পোপ ফ্রান্সিস বাংলাদেশে আসছেন৷ ক্যাথলিক সম্প্রদায়ের নেতা হিসেবে তাঁর কাছে আমরা তার মনোভাব জানতে পারবো৷ তিনি মিয়ানমারে যাওয়ার আগে আমাদের সমর্থন দিয়েছেন, রোহিঙ্গাদের ব্যাপারে সহমর্মিতা প্রকাশ করেছেন৷ কাজেই তিনি আমাদের পক্ষেই আছেন৷''

মিয়ানমারের রাখাইনে গত ২৫ আগস্ট রোহিঙ্গাদের ওপর নির্মম নির্যাতন শুরু হওয়ার সঙ্গে সঙ্গে তাঁদের প্রতি সহমর্মিতা জানিয়েছিলেন পোপ ফ্রান্সিস৷ ওই ঘটনার পর ২৭ আগস্ট তিনি সেন্ট পিটার্স স্কয়ারে তীর্থযাত্রী ও পর্যটকদের উদ্দেশে বলেন, ‘‘আমাদের কাছে খবর এসেছে যে, আমাদের রোহিঙ্গা ভাই ও বোনদের ওপর নির্যাতন চালানো হচ্ছে৷ আমি তাঁদের সঙ্গে একাত্মতা ঘোষণা করছি৷ ঈশ্বরের কাছে তাঁদের রক্ষার জন্য প্রার্থনা করছি৷''

কিন্তু মিয়ানমার সফরে রোহিঙ্গাদের কথা বললেও রোহিঙ্গা শব্দটি উচ্চারণ করেননি পোপ ফ্রান্সিস৷ আন্তর্জাতিক সম্পর্কের বিশ্লেষক এবং ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের আন্তর্জাতিক সম্পর্ক বিভাগের অধ্যাপক ড. ইমতিয়াজ আহমেদ ডয়চে ভেলেকে বলেন, ‘‘দেখা যাক, পোপ বাংলাদেশে এসে কী বলেন৷ আমাদের দিক থেকে তো আশা থাকবে তিনি যেন রোহিঙ্গাদের রোহিঙ্গাই বলেন৷ শোনা যাচ্ছে, মিয়ানমার সরকার নাকি তাঁকে রোহিঙ্গা শব্দটি বলতে বারণ করেছে৷ বললে নাকি মিয়ানমারে খ্রিষ্টানদের ওপর নির্যাতন হতে পারে৷ কিন্তু বাংলাদেশে তিনি হয়তো আরো স্পষ্ট করে বলবেন৷ আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের মধ্যে তো একটা কনসেনসাস তৈরি হয়েছে৷ তারা তো রোহিঙ্গাদের ওপর জাতিগত নিধনের বিরুদ্ধে সোচ্চার হয়েছেন৷ তাই বাংলাদেশ আশা করছে পোপ কোনোভাবে ঘুরিয়ে নয়, সরাসরি রোহিঙ্গা নির্যাতনের বিরুদ্ধে তাঁর অবস্থানের কথা জানাবেন৷''

পোপের সফরসূচিতে আগে রোহিঙ্গাদের সঙ্গে দেখা বা কথা বলার কোনো কর্মসূচি না থাকলেও শেষ পর্যন্ত তা অন্তর্ভূক্ত হয়েছে৷ শুক্রবার দুপুরের পর পোপ ফ্রান্সিস রোহিঙ্গাদের সঙ্গে ঢাকায় কথা বলতে পারেন৷ এজন্য বাংলাদেশে অশ্রয় নেয়া রোহিঙ্গাদের ১৫ সদস্যের একটি প্রতিনিধি দল বৃহস্পতিবার রাতের মধ্যে ঢাকা আসবে৷ তাঁদের আন্তর্জাতিক অভিবাসী সংস্থা(আইওএম)-এর তত্বাবধানে ঢাকা আনা হচ্ছে৷ জানা গেছে, শুক্রবার বিকেল ৫টার পর কাকরাইলের আর্চ বিশপ হাউজের মাঠে শান্তির জন্য আন্তঃধর্মীয় সমাবেশে বক্তব্য রাখবেন পোপ৷ এখানেই রোহিঙ্গা শরণার্থীদের সঙ্গে তিনি কথা বলতে পারেন৷ এই দিন সকাল ১০টায় ঢাকার সোহওয়ার্দী উদ্যানে খ্রিষ্টধর্মীয় উপাসনা ও যাজকদের অনুষ্ঠানে যোগ দেবেন পোপ ফ্রান্সিস৷ ওই অনুষ্ঠান শেষেও রোহিঙ্গাদের কথা তিনি শুনতে পারেন৷

পোপের সঙ্গে দেখা করতে যে ১৫ জন রোহিঙ্গা ঢাকায় আসছেন, তাঁদের মধ্যে দু'জনের সঙ্গে কথা বলতে পেরেছে ডয়চে ভেলে৷ তাঁরা বৃহস্পতিবার বিকেল সাড়ে পাঁচটার দিকে জানান, ‘‘আমরা এখন ঢাকার পথে আছি৷ পোপ আমাদের সঙ্গে কথা বলবেন৷ তাই আইওএম আমাদের ঢাকায় নিয়ে যাচ্ছে৷''

 

তাঁদের মধ্যে লালু মাঝি ডয়চে ভেলেকে বলেন, ‘‘আমরা আমাদের নির্যাতনের কথা বলব৷ আমরা বার্মায় ফিরে যেতে চাই৷ তাই আমাদের নাগরিকত্ব ফিরিয়ে দিতে হবে৷ নিরাপত্তা দিতে হবে৷''

প্রতিনিধি দলে থাকা আরেকজন রোহিঙ্গা শরণার্থী আবুল সৈয়দ ডয়চে ভেলেকে বলেন, ‘‘আমরা আমাদের কষ্ট, দুঃখ-দুর্দশার কথা পোপকে বলবো৷ আমাদের ঘর-বাড়ি পুড়িয়ে দেয়া হয়েছে৷ অনেককে হত্যা করা হয়েছে৷ আমরা আমাদের নাগরিকত্ব ফেরত চাই৷ আমরা বার্মায় ফিরে যেতে চাই৷ আমাদের দাবি আছে , সেই দাবিগুলো তুলে ধরবো৷

সূত্র জানায়, পোপের সঙ্গে বৃহস্পতিবার রাতে রাষ্ট্রপতির সঙ্গে এবং শনিবার বিকেলে প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে বৈঠকে রোহিঙ্গাদের বিষয়টি তুলে ধরা হবে৷

১৯৮৬ সালে পোপ জন পল (দুই)-এর সফরের ৩ দশক পর বাংলাদেশেএলেন পোপ ফ্রান্সিস৷ ভ্যাটিক্যানের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, শান্তি ও সম্প্রীতির বার্তা নিয়ে এসেছেন তিনি৷ বাংলাদেশের আর্চ বিশপ কার্ডিনাল ডি রোজারিও সংবাদ মাধ্যমকে জানিয়েছেন, ‘‘সফরে বিপন্ন রোহিঙ্গা ও জলবায়ু উদ্বাস্তুসহ দরিদ্র মানুষদের প্রাধান্য দেবেন পোপ৷'

রোহিঙ্গা নির্যাতনের দেশ মিয়ানমারে পোপ

সবার নজর ছিল যেদিকে

মঙ্গলবার সকাল থেকেই সবার নজর ছিল একটি বৈঠকের দিকে৷ মিয়ানমারের রাজধানী নেপিদ-এ যাচ্ছেন ক্যাথলিক সম্প্রদায়ের প্রধান ধর্মগুরু ফ্রান্সিস৷ সেখানে নোবেলজয়ী অং সান সু চির সঙ্গে দেখা হবে, কথা হবে তাঁর৷ সবার আশা, গুরুত্বপূর্ণ এ বৈঠকে মানবতাবাদী পোপ রোহিঙ্গা সংকট নিরসনের লক্ষ্যে ইতিবাচক কিছু বলবেন৷

 

 



আজকের কার্টুন

লাইফস্টাইল

আজকের বাংলার মিডিয়া পার্টনার

অনলাইন জরিপ

প্রতিবেশী রাষ্ট্র মিয়ানমার রোহিঙ্গা দেরকে অত্যাচার করে ফলে ২০১৭ তে অগাস্ট ২৫ থেকে সেপ্টেম্বর পর্যন্ত ১ মাসে ৫ লক্ষ্য রোহিঙ্গা জাতিগোষ্ঠী বাংলাদেশে আশ্রয় নিয়েছে, আপনি কি মনে করেন বাংলাদেশ শরণার্থী দেরকে আবার ফিরে পাঠিয়ে দিক?

 হ্যাঁ      না      মতামত নেই    

সংবাদ আর্কাইভ