২৪ অক্টোবর ২০১৮ ইং
সাপ্তাহিক আজকের বাংলা - ৭ম বর্ষ ০১ সংখ্যা: বার্লিন, সোমবার ০১জানু–০৭জানু ২০১৮ # Weekly Ajker Bangla – 7th year 01 issue: Berlin, Monday 01Jan-07Jan 2018

‘মহাজোট' নিয়ে প্রাথমিক আলোচনা শুরু: এসপিডি'র সঙ্গে ম্যার্কেলের সাক্ষাৎ

ভবিষ্যতের সিদ্ধান্ত নিচ্ছে জার্মানি

প্রতিবেদকঃ DW তারিখঃ 2018-01-07   সময়ঃ 22:10:19 পাঠক সংখ্যাঃ 204

জার্মান চ্যান্সেলর আঙ্গেলা ম্যার্কেল এবার এসপিডি নেতা মার্টিন শুলৎসের সঙ্গে কথিত ‘মহাজোট' গঠনের ব্যাপারে প্রাথমিক আলোচনা শুরু করেছেন৷ আগামী শুক্রবার পর্যন্ত যা চলবে বলে ধারণা করা হচ্ছে৷

বার্লিনে শুরু হয়েছে এই প্রাথমিক আলোচনা, যেখানে জার্মান চ্যান্সেলর আঙ্গেলা ম্যার্কেল রবিবার সিএসইউ নেতা হোর্সট জেহোফার এবং এসপিডি নেতা মার্টিন শুলৎসের সঙ্গে আলোচনায় বসেছেন৷

বার্লিনে সামাজিক গণতন্ত্রী দল এসপিডি'র সদর দপ্তরে তিনটি দল থেকে ১৩ জন প্রতিনিধি নিয়ে শুরু হয়েছে এই আলোচনা৷ যেখানে মূলত আলোচনা হচ্ছে ‘নতুন মহাজোটের' চুক্তি ও শর্ত নিয়ে৷ আজ সন্ধ্যার মধ্যেই হয়ত তিনটি দল তাদের মূল দাবিগুলো তুলে ধরবে৷

গত বছরের সেপ্টেম্বরের সংসদ নির্বাচনের তিন মাস পর শুরু হলো এই আলোচনা৷ প্রথম দফায় ম্যার্কেল চেষ্টা করছিলেন এফডিপি এবং গ্রিন পার্টির সাথে জোট গঠন করতে, যা নভেম্বরে ব্যর্থ হয়৷ কেননা এফডিপি প্রধান ক্রিস্টিয়ান লিন্ডনার আলোচনা থেকে সরে আসেন৷

 

এরপর ম্যার্কেলের জন্য একটাই পথ খোলা ছিল৷ তাহলো এসপিডি'র সঙ্গে জোট৷ আর এসপিডি'ও এই সুযোগ হাতছাড়া করছে না৷

শুলৎস যখন সিদ্ধান্ত নিলেন সিডিইউ এর সঙ্গে প্রাথমিক আলোচনা শুরু করবেন, সেটা যেন তাঁর আগের অবস্থানের একেবারে বিপরীত ছিল৷ সেপ্টেম্বরের নির্বাচনে শুলৎস পেয়েছিলেন মাত্র ২০ দশমিক ৫ শতাংশ ভোট, যা এসপিডি আগে কখনো পায়নি৷ তখনই শুলৎস জানিয়েছিলেন, তার দল ম্যার্কেলের সঙ্গে আগামী চার বছর কাজ করবে না৷

যদিও অনেকেই মনে করছেন ম্যার্কেলের সঙ্গে জোট বাঁধলে এসপিডি আগামীতে আরও ভোটার হারাবে৷

প্রাথমিক এই আলোচনায় শুলৎস তিনটি বিষয়কে গুরুত্ব দিচ্ছেন, যা ম্যার্কেলের সিডিইউ পার্টি এবং তাদের বাভেরিয়ান সহযোগী দল সিএসইউ এর জন্য কিছুটা বিপদ ডেকে আনতে পারে৷ যেমন, সবার জন্য বাধ্যতামূলত সরকারি স্বাস্থ্য সেবা এবং শরণার্থীদের পরিবারের সদস্যদের জার্মানিতে নিয়ে আসার অনুমতি দেয়া৷

এরপর ২১শে জানুয়ারি বন শহরে দলের সম্মেলনে এসপিডি ভোটাভুটি করে ঠিক করবে ম্যার্কেলের দলের সাথে তারা আনুষ্ঠানিক আলোচনা শুরু করবে কিনা৷ অর্থাৎ এসপিডি'র ৪ লাখ ৪০ হাজার সদস্য মহাজোটের অংশ হতে চায় কিনা সে বিষয়ে তাদের সিদ্ধান্ত জানতে চাওয়া হবে৷

তবে সিদ্ধান্ত যাই হোক না কেন ইস্টারের আগে যে জার্মানিতে কোন সরকার গঠন হচ্ছে না, সেটা প্রায় নিশ্চিত৷

এপিবি/এসিবি (এপি, এএফপি, ডিপিএ)



আজকের কার্টুন

লাইফস্টাইল

আজকের বাংলার মিডিয়া পার্টনার

অনলাইন জরিপ

প্রতিবেশী রাষ্ট্র মিয়ানমার রোহিঙ্গা দেরকে অত্যাচার করে ফলে ২০১৭ তে অগাস্ট ২৫ থেকে সেপ্টেম্বর পর্যন্ত ১ মাসে ৫ লক্ষ্য রোহিঙ্গা জাতিগোষ্ঠী বাংলাদেশে আশ্রয় নিয়েছে, আপনি কি মনে করেন বাংলাদেশ শরণার্থী দেরকে আবার ফিরে পাঠিয়ে দিক?

 হ্যাঁ      না      মতামত নেই    

সংবাদ আর্কাইভ