১৮ ফেব্রুয়ারি ২০১৮ ইং
সাপ্তাহিক আজকের বাংলা - ৭ম বর্ষ ০৫ সংখ্যা: বার্লিন, সোমবার ২৯জানু–০৪ফেব্রু ২০১৮ # Weekly Ajker Bangla – 7th year 05 issue: Berlin, Monday 29Jan-04Feb 2018

ভারতে প্রবৃদ্ধি বাড়লেও তলানিতেই রয়ে যাবে গরিবের স্বপ্ন

বিশেষজ্ঞদের মতে বাস্তবতার সঙ্গে তাল মেলাতে পারছে না ভারত

প্রতিবেদকঃ DW তারিখঃ 2018-02-02   সময়ঃ 01:26:21 পাঠক সংখ্যাঃ 35

চলতি বছরে দেশের আর্থিক প্রবৃদ্ধির হার ৬ দশমিক ৭৫ হলেও আগামীতে তা বেড়ে হবে অন্তত ৭ শতাংশ৷ সরকার প্রবৃদ্ধির বিজয় পতাকা ওড়াতে সক্ষম হবে মনে করলেও, বিশেষজ্ঞদের মতে বাস্তবতার সঙ্গে তাল মেলাতে পারছে না ভারত৷

গত সোমবার ২০১৭-১৮ সালের আর্থিক সমীক্ষা সংসদে পেশ করেন অর্থমন্ত্রী অরুণ জেটলি৷ তাতে দেখানো হয়েছে, আগামী অর্থ বর্ষে ভারতের প্রবৃদ্ধির হার উঠে আসবে ৭ থেকে ৭ দশমিক ৫ শতাংশে৷ এমনকি ৮ শতাংশও ছাড়াতে পারে৷ পাশাপাশি সমীক্ষা রিপোর্টে বলা হয়, নোটবন্দি, পণ্য পরিষেবা শুল্ক (জিএসটি) ইত্যাদির কারণে প্রবৃদ্ধি কিছুটা ধাক্কা খেয়েছে৷ সরকারের মুখ্য অর্থনৈতিক উপদেষ্টা অরবিন্দ সুব্রামনিয়াম মনে করেন, রপ্তানি কিছুটা কম হয়, আমদানি বেড়ে গেছে৷ অথচ দেশের অর্থনীতিকে সচল রাখতে এইসব সাময়িক সংস্কার জরুরি ছিল৷ তবে ভবিষ্যতে সম্ভবত এর আর দরকার পড়বে না৷ অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি স্বচ্ছন্দ গতিতে এগিয়ে যাবে আশা করা যায়৷ রপ্তানিতে ফের গতি আসছে৷ তবে হ্যাঁ, ঝুঁকি থাকতে পারে অন্যত্র৷ যেমন তেলের দাম বৃদ্ধির সম্ভাবনা৷ শেয়ার বাজারে আচমকা ধস নামার আশংকা৷ কাজেই সরকারকে এগুতে হবে সতর্কভাবে৷

সমীক্ষা রিপোর্টে কৃষি ও কর্মসংস্থানের ওপর জোর দেওয়ার কথা বলা হয়েছে৷ সরকারের চলতি আর্থিক সমীক্ষা রিপোর্টে যে আর্থিক বিকাশের রঙীন ছবি তুলে ধরা হয়েছে, তার পাশাপাশি অন্যান্য সমীক্ষায় দেখা যাচ্ছে, দেশের আর্থিক প্রগতি অসম৷ অধিকাংশ নাগরিক তাঁদের ন্যায্য পাওনা থেকে বঞ্চিত৷ যাঁরা পেয়েছেন তাঁরা সমাজের একটি ক্ষুদ্র অংশ৷ ইনক্লুসিভ গ্রোথ বা সর্বজনীন উন্নয়নের মাপকাঠিতে ওয়ার্ল্ড ইকনমিক ফোরামের সমীক্ষায় দেখা যাচ্ছে, ৭৪টি দেশের মধ্যে ভারতের স্থান ৬২তম৷ আরেকটি আন্তর্জাতিক বেসরকারি সংস্থা অক্লফ্যামের সমীক্ষা রিপোর্টে দেখানো হয়েছে, ২০১৭ সালে ভারতের জাতীয় উৎপাদিত সম্পদের ৭৩ শতাংশ গেছে এক শতাংশ মানুষের হাতে৷ এই অতি-ধনীদের ভাণ্ডারে যে সম্পদ জমা পড়েছে, তার অর্থমূল্য কেন্দ্রের বাৎসরিক বাজেটের সমান৷ অন্যদিকে দেশের অধিকাংশ মানুষের আয় এক বছরে এক শতাংশও বাড়েনি৷

যেসব দেশে সবচেয়ে বেশি প্রবাসী ভারতীয়দের বাস সংযুক্ত আরব আমিরাত ৩৩ লাখ ১ হাজার৷

অর্থনৈতিক পরিসংখ্যানে তুলে ধরা হয়েছে, ভারতের আর্থিক পরিস্থিতি পশ্চিমের অন্যান্য দেশের তুলনায় ভালো৷ অথচ নাগরিকদের জীবনযাপনের গুণগতমানে তার প্রতিফলন ঘটছে না কেন? দেশের মানুষের জীবনধারণের মান জাতীয় উত্পাদন বৃদ্ধির হার দেখে বিচার হয় না৷ বিচার হয় তার সামগ্রিক ভূমিগত বাস্তবতার নিরিখে৷ প্রতিবছর মহানগরীগুলির জীবনযাত্রার দিকে তাকালেই বোঝা যায়৷ বস্তির পর বস্তি বাড়ছে৷ বাচ্চারা শুয়ে আছে ফুটপাথে৷ চারপাশে নোংরা আবর্জনা৷ খোলা নর্দমা৷ মোদী সরকারর স্বচ্ছ ভারত মিশন যেন প্রহসন৷ টয়লেট ছাপিয়ে নোংরা বাইরে বয়ে যাচ্ছে৷ পরিষ্কার হয় না নিয়মিত৷ স্বাস্থ্য, শিক্ষা, কর্মসংস্থানে গরিবদের জীবনযাত্রায় কি কোনো পরিবর্তন এসেছে? না, আসেনি৷ তাঁরা যে তিমিরে ছিল সেই তিমিরেই পড়ে আছেন৷ আর্থিক উন্নয়নের পরিসংখ্যান তাঁদের জীবনধারণে অন্তত কোনো ফারাক আনতে পারেনি৷ এখনও প্রতি তিনজনের মধ্যে একজন পেটে খিদে নিয়ে ঘুমাতে যায়৷

 

(CLICK IMAGE FOR AUDIO) কেন? ডয়চে ভেলের এই প্রশ্নের উত্তরে বিশিষ্ট অর্থনীতিবিদ দীপঙ্কর দাশগুপ্ত বললেন, প্রবৃদ্ধির এই হারে বড় কিছু দেখা ঠিক নয়৷ উচ্চ প্রবৃদ্ধির হার মানেই যে জীবনধারণের মান খুব ভালো হবে, তা কিন্তু নয়৷ আমাদের প্রবৃদ্ধির হার চীনকে ছাড়িয়ে গেছে তার মানে কিন্তু এই নয় যে, অর্থনৈতিক সমৃদ্ধিতে আমরা চীনকে ছাড়িয়ে গেছি৷ চীনের মাথাপিছু জিডিপি আর আমাদের মাথাপিছু জিডিপি এক কথা নয়৷ ২০১৬ সালের পরিসংখ্যান বলছে, চীনের মাথাপিছু জিডিপি যেখানে ৬০০০ মার্কিন ডলার সেখানে আমাদের মাথাপিছু জিডিপি এক হাজার ডলারের নীচে৷ কথা হচ্ছে, ‘গ্রোথ রেট’ যদি বছরের পর বছর ধরে রাখা যায়, তাহলেই জীবনধারণের মান উন্নত হবে৷

অথচ এক শ্রেণির মানুষের আয় বেড়েছে আকাশ প্রমাণ৷ একশ’ কোটি টাকার মালিকের সংখ্যা একশ ছাড়িয়েছে৷ সরকারের মতে, নৈতিক দৃষ্টিভঙ্গি থেকে দেখলে এটা খারাপ লাগবে৷ কিন্তু দেশের সামগ্রিক প্রবৃদ্ধি বাড়াতে এটা হওয়া সম্ভব৷ আর্থিক বৈষম্য কমিয়ে আনলে সাধারণ মানুষের মধ্যে আয় ও সম্পদের বিচারে ওপরের দিকে ওঠার প্রচেষ্টা কমে যেতে পারে৷ ২০১৮ সালের বাজেট সংসদে পেশ করবেন অর্থমন্ত্রী অরুণ জেটলি৷ আগামী বছর ভোট৷ তার আগে এটি শেষ পূর্ণাঙ্গ বাজেট৷ আবার মোদীর অচ্ছে দিনের স্বপ্নের হাতছানি৷ দাভোসে প্রধানমন্ত্রী যখন ভারতের অতি- সম্ভাবনাময় বাজারের দিকে বিশ্বকে টানতে চান, তখন দেশের ঘরে ঘরে আর্থিক সাম্যের প্রদীপটি কিন্তু নিভু নিভু৷

 



আজকের কার্টুন

লাইফস্টাইল

আজকের বাংলার মিডিয়া পার্টনার

অনলাইন জরিপ

প্রতিবেশী রাষ্ট্র মিয়ানমার রোহিঙ্গা দেরকে অত্যাচার করে ফলে ২০১৭ তে অগাস্ট ২৫ থেকে সেপ্টেম্বর পর্যন্ত ১ মাসে ৫ লক্ষ্য রোহিঙ্গা জাতিগোষ্ঠী বাংলাদেশে আশ্রয় নিয়েছে, আপনি কি মনে করেন বাংলাদেশ শরণার্থী দেরকে আবার ফিরে পাঠিয়ে দিক?

 হ্যাঁ      না      মতামত নেই    

সংবাদ আর্কাইভ