১৮ জুন ২০১৮ ইং
সাপ্তাহিক আজকের বাংলা - ৭ম বর্ষ ১০ সংখ্যা: বার্লিন, সোমবার ০৫মার্চ –১১মার্চ ২০১৮ # Weekly Ajker Bangla – 7th year 10 issue: Berlin, Monday 05Mar-11Mar 2018

আমরা এক ভয়ংকর ঘটনার খুব কাছে বসে আছি

বিজ্ঞান ব্লগ

প্রতিবেদকঃ মাহবুব সুমন তারিখঃ 2018-03-06   সময়ঃ 18:55:07 পাঠক সংখ্যাঃ 238

আমরা এক ভয়ংকর ঘটনার খুব কাছে বসে আছি। ছবিতে এগুলা কোন সাধারণ বুদবুদ না। মিথেন বের হয়ে আসার ছবি এটা। সকল প্রজাতির শীঘ্রই বিলুপ্তির সংবাদ নিয়ে নিরিহ ভাবে চুপচাপ চেয়ে আছে। আর একটুখানি গরম হলেই আর্কটিকের বরফের নিচে লক্ষ লক্ষ বছর ধরে আটকে থাকা মিথেন বের হয়ে এসে খুব দ্রুত পৃথিবী এমন গরম করে ফেলবে যে - স্রেফ গরমে পারমিয়ন গন বিলুপ্তির মত সব মরে যাবে। [Permian–Triassic extinction event] শিল্প বিপ্লবের সাথে কার্বনডাইঅক্সাইডের হাত ধরে যার শুরু, মিথেন দিয়য়ে তার শেষ হবে।

জলবায়ু পরিবর্তনের বর্তমান যা অবস্থা তাতে - কিছু না করে চুপচাপ বসে থাকলে অর্থাৎ বর্তমান অবস্থা চলতে থাকলে আগামি ২০ বছরের মধ্যেই সারা পৃথিবীর ৫০ ভাগ প্রান প্রজাতি বিলুপ্ত হয়ে যাবে। পরের ৭০ বছরের মধ্যে আমরা। কয়লা ও পারমাণবিক বিদ্যুতের ব্যবহার না করে আমরা পৃথিবীকে চাইলে আগের অবস্থায় ফেরত নিতে পারি। কঠিন। কিন্তু সম্ভব। বাংলাদেশ যেমন ২০ হাজার মেগাওয়াট কয়লা বিদ্যুৎ কেন্দ্র বসিয়ে ভাবছে আমি পৃথিবীর আর তেমন কি ক্ষতি করলাম? সেরকম সবাই কয়লা বসাচ্ছে আর একই চিন্তা করছে। কেউ কেউ বুঝতে পারছে পরিস্থিতিটা। বুঝে কয়লা, পারমাণবিক থেকে সরেও আসছে। কিন্তু একগাদা রাষ্ট্রের "আমি আর এমন কি ক্ষতি করলাম" টাইপের চিন্তা ভাবনার কারন পুরো মানবজাতি আজ ধ্বংসের দোরগোড়ায়।

বিষয়টা হল - আমরা কি চাই? আমাদের রাষ্ট্র যারা চালায় তারা কি এই ভবিষ্যৎ দেখতে পাচ্ছে না? তারা যদি বিষয়গুলো না বুঝে কিংবা খুব সল্প সময়ের ব্যক্তি স্বার্থ চরিতার্থ করার জন্য তারা যদি কয়লা আর পারমাণবিক বিদ্যুৎ থেকে সরে না আসে তাহলে কি হবে? আমরা যখন দলেবলে বিপদে পড়বো তখন কি তাদের খুঁজে পাব? যদি পাই - তখন তাদের বিচার করলে কি মহাপ্রলয় থেকে আমরা নিজেদের রক্ষা করতে পারবো?

না। তাদের তখন আমরা খুঁজে পাব না। আর পেলেও তখন তাদের বিচার আচার করে পরিবেশের সব কিছু ঠিকঠাক করার চেষ্টা করলেও মহাপ্রলয় থেকে রক্ষা পাওয়া যাবেনা। কারন পরিবেশ এখন ঢেউয়ের চুড়ায় দাঁড়িয়ে থাকা একটা বলের মত দুলছে। আর অল্প ধাক্কাতেই ডান দিকে পয়েন্ট অফ নো রিটার্নে চলে যাবে [The 'RUN AWAY EFFECT', The Run away Climate Change is Unstoppable]। সেসময় সারা পৃথিবীর সব তেল চালিত গাড়ি এবং কয়লা বিদ্যুৎ বন্ধ করে দিলেও কাজ হবেনা। সুতরাং আমাদের ভবিষ্যৎ আমাদেরকেই নির্মাণ করতে হবে। সেটা খুব দ্রুত। সময় নাই বেশী হাতে।

 



আজকের কার্টুন

লাইফস্টাইল

আজকের বাংলার মিডিয়া পার্টনার

অনলাইন জরিপ

প্রতিবেশী রাষ্ট্র মিয়ানমার রোহিঙ্গা দেরকে অত্যাচার করে ফলে ২০১৭ তে অগাস্ট ২৫ থেকে সেপ্টেম্বর পর্যন্ত ১ মাসে ৫ লক্ষ্য রোহিঙ্গা জাতিগোষ্ঠী বাংলাদেশে আশ্রয় নিয়েছে, আপনি কি মনে করেন বাংলাদেশ শরণার্থী দেরকে আবার ফিরে পাঠিয়ে দিক?

 হ্যাঁ      না      মতামত নেই    

সংবাদ আর্কাইভ