১৯ জুলাই ২০১৮ ইং
সাপ্তাহিক আজকের বাংলা - ৭ম বর্ষ ২৫ সংখ্যা: বার্লিন, সোমবার ১৮জুন–২৪জুন ২০১৮ # Weekly Ajker Bangla – 7th year 25 issue: Berlin, Monday 18Jun -24Jun 2018

শরণার্থী নীতি নিয়ে বিপাকে মার্কেল

‘ওই মহিলার সঙ্গে আর কাজ করতে পারছি না’

প্রতিবেদকঃ DW তারিখঃ 2018-06-18   সময়ঃ 15:46:49 পাঠক সংখ্যাঃ 77

সরকারের অস্তিত্ব কি বাঁচাতে পারবেন জার্মান চ্যান্সেলর আঙ্গেলা ম্যার্কেল? শরণার্থী সংক্রান্ত নীতিকে কেন্দ্র করে সরকারি জোটের চাবিকাঠি আপাতত এক শরিকের হাতে৷ তবে আপোষের সম্ভাবনা বাড়ছে৷

শরণার্থী ও অভিবাসন নীতিকে কেন্দ্র করে জার্মানির ইউনিয়ন শিবিরের দুই দল – সিডিইউ ও বাভেরিয়ার সিএসইউ দলের মধ্যে কোন্দল গত সপ্তাহেই চরমে উঠেছিল৷ সিএসইউ শরণার্থী সংক্রান্ত নীতি আরও কড়া করতে চাইছে৷ অন্য কোনো দেশে শরণার্থীরা নিজেদের নথিভুক্ত করলে জার্মানির সীমান্তে তাদের বিদায় করতে চায় তারা৷ দলের দাবি, ইউরোপীয় আইনের কাঠামোর মধ্যেই এই পদক্ষেপ সম্ভব৷

অন্যদিকে সিডিইউ নেত্রী ও চ্যান্সেলর আঙ্গেলা ম্যার্কেল জার্মানির একক পদক্ষেপের বদলে এক ইউরোপীয় সমাধানসূত্র চাইছেন৷ দ্রুত সেটা সম্ভব না হলে কমপক্ষে কিছু দ্বিপাক্ষিক চুক্তির মাধ্যমে তিনি আপাতত পরিস্থিতি সামাল দিতে চান৷ তিনি এই লক্ষ্যে দুই সপ্তাহ সময় চেয়ে নিয়েছেন৷ জুন মাসের শেষে ইইউ শীর্ষ সম্মেলনের আগেই বেআইনি অনুপ্রবেশ রুখতে তিনি ইটালি ও অস্ট্রিয়াসহ কয়েকটি রাষ্ট্রের সঙ্গে জরুরি শীর্ষ বৈঠক ডাকতে চলেছেন বলে শোনা যাচ্ছে৷ নিজের সিডিইউ দল এই উদ্যোগে সম্মতি দিলেও সিএসইউ দল তাঁকে সেই সময় দেবে কিনা, তা এখনো স্পষ্ট নয়৷

আগামী অক্টোবর মাসে বাভেরিয়ায় রাজ্য নির্বাচনের আগে ভোটারদের মন জয় করতে সিএসইউ এমন চরম মনোভাব দেখাচ্ছে বলে এই দলের বিরুদ্ধে সমালোচনা উঠছে৷ তাছাড়া সিএসইউ নেতা ও জার্মান স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী হর্স্ট সেহোফার এবং বাভেরিয়ার মুখ্যমন্ত্রী মার্কুস স্যোডারের মধ্যে ক্ষমতার লড়াইও এই সংঘাতের জন্য দায়ী বলে অনেকে মনে করছেন৷  তার উপর সেহোফার ও ম্যার্কেলের ব্যক্তিগত সম্পর্কও তলানিতে এসে ঠেকেছে বলে শোনা যাচ্ছে৷ এমনকি সেহোফার নাকি দলীয় এক বৈঠকে স্পষ্ট বলেছেন যে, তিনি আর ‘ওই মহিলার সঙ্গে কাজ করতে পারছেন না’৷ সংবাদ মাধ্যমের একাংশে তাঁর এই ‘বিতর্কিত মন্তব্য’ প্রকাশিত হয়েছে৷

সেহোফার এমনকি মন্ত্রী হিসেবে নিজের ক্ষমতা প্রয়োগ করে ম্যার্কেলকে অমান্য করে একাই শরণার্থীদের সীমান্তে বিদায় করার সিদ্ধান্ত কার্যকর করার হুমকি দিয়েছেন৷

সোমবার দুই দলই আলাদা আলাদা বৈঠকে আগামী পদক্ষেপ সম্পর্কে সিদ্ধান্ত নেবে৷ রবিবার ম্যার্কেল নিজের দলের কয়েকজন শীর্ষ পর্যায়ের নেতার সঙ্গে দীর্ঘ বৈঠক করেছেন৷ মিউনিখে সিএসইউ দল নিজেদের সিদ্ধান্তে অটল থাকবে বলে ধরে নেওয়া হচ্ছে৷ তবে জোটে ভাঙন এড়াতে তারা হয়তো ম্যার্কেলকে দুই সপ্তাহ সময় দিতে রাজি হবে বলে বিভিন্ন সূত্র দাবি করছে৷
এসবি/এসিবি (ডিপিএ, এএফপি)

 



আজকের কার্টুন

লাইফস্টাইল

আজকের বাংলার মিডিয়া পার্টনার

অনলাইন জরিপ

প্রতিবেশী রাষ্ট্র মিয়ানমার রোহিঙ্গা দেরকে অত্যাচার করে ফলে ২০১৭ তে অগাস্ট ২৫ থেকে সেপ্টেম্বর পর্যন্ত ১ মাসে ৫ লক্ষ্য রোহিঙ্গা জাতিগোষ্ঠী বাংলাদেশে আশ্রয় নিয়েছে, আপনি কি মনে করেন বাংলাদেশ শরণার্থী দেরকে আবার ফিরে পাঠিয়ে দিক?

 হ্যাঁ      না      মতামত নেই    

সংবাদ আর্কাইভ