২১ সেপ্টেম্বর ২০১৮ ইং
সাপ্তাহিক আজকের বাংলা - ৭ম বর্ষ ২৫ সংখ্যা: বার্লিন, সোমবার ১৮জুন–২৪জুন ২০১৮ # Weekly Ajker Bangla – 7th year 25 issue: Berlin, Monday 18Jun -24Jun 2018

রাশিয়ায় তৈরি হয়নি ভাষার সেতু

ফুটবল

প্রতিবেদকঃ DW তারিখঃ 2018-06-23   সময়ঃ 01:05:30 পাঠক সংখ্যাঃ 107

বিশ্বকে স্বাগত জানিয়ে ভাষার সেতুটাই তৈরি করতে পারেনি রাশিয়া৷ আরেকটি বড় সমস্যা দূরত্ব৷ পৃথিবীর ছয় ভাগের একভাগ স্থলের  দেশটির ১১ শহরে হচ্ছে বিশ্বকাপ৷ এর মধ্যে একটি ভেনু থেকে আরেক ভেনুর দূরত্ব মস্কো থেকে লন্ডনের চেয়েও বেশি৷

মস্কো থেকে সেন্ট পিটার্সবার্গ এসেছি ১৮ জুন৷ ১৯ জুন সাতসকালে স্টেডিয়ামে গিয়ে জনে জনে এই জিজ্ঞাসা৷ বিশ্বকাপ উপলক্ষ্যে নির্মিত হয়েছে নতুন এই ভেনু্৷ ছবির মতো সুন্দর তা৷ ঐশ্চর্যমাখা৷ বাল্টিক সাগরের তীরঘেঁষা এই ‘ফ্লাইং সসার' আভিজাত্য ঘোষণা করছে সদম্ভে৷ কিন্তু গণমাধ্যমকর্মীদের কাজের জন্য অ্যাক্রিডিটেশনের ঝামেলা তো মেটাতে হবে আগে৷ মস্কো থেকে বিশ্বকাপের মূল অ্যাক্রিডিটেশন এনেছি; নতুন শহরের জন্য আবার কিছু আনুষ্ঠানিকতা মেটানোর পালা৷ স্টেডিয়ামের সৌন্দর্য উপভোগ বাদ দিয়ে, ঢাকায় লেখা পাঠানোর তাড়া তাড়িয়ে তাই আগে ওই খোঁজ৷ মিডিয়া অ্যাক্রিডিটেশন সেন্টার কোথায়?

যে কোনো সাধারণ স্টেডিয়ামের কর্মীদের জন্যই এ প্রশ্ন আলাদা গুরুত্বের দাবি রাখে না৷ অবহেলায় আঙুলের হেলনিতে দিক দেখিয়ে দেবে তারা– এই তো প্রত্যাশিত৷ আর এটি যখন বিশ্বকাপ ভেনু্, সহজ প্রশ্নের চটপট উত্তরই তো পাবার কথা৷ কিন্তু রাশিয়ায় দিন দশেক থাকার অভিজ্ঞতায় ততটা ভরসা করতে পারছিলাম না৷ আর আশঙ্কা সত্যি করে সত্যিই তো দেখি ওই প্রশ্নের উত্তর মিলছে না কারো কাছে৷ যাঁকেই জিজ্ঞেস করি, প্রশ্ন শুনে মুখের রেখা যায় পাল্টে৷ যেন ক্লাস ওয়ানের শিশুকে অনার্স ফাইনাল ইয়ারের প্রশ্ন করা হয়েছে৷ এ অগ্নিপরীক্ষার সামনে বড্ড অসহায় তাঁরা৷

মূল কারণ, ভাষার ব্যবধান৷

 

বিশ্বকাপ উপলক্ষ্যে এরই মধ্যে দুই শহরের তিন ভেনু্তে তো যাওয়া হয়েছে৷ মস্কো ও সেন্ট পিটার্সবার্গের লুজনিকি স্টেডিয়াম, স্পার্তাক স্টেডিয়াম ও সেন্ট পিটার্সবার্গ স্টেডিয়াম৷ প্রতিবেদন তৈরির জন্য ছুটতে হয়েছে আরো কত জায়গায়৷ সর্বত্রই সবচেয়ে বড় সমস্যা ওই ভাষা৷ সিংহভাগ রুশ ইংরেজি বোঝেন না, বলেন না, জানেন না৷ বিশ্বকাপ কাভার করতে বিশ্বের নানা প্রান্ত থেকে আসা সাংবাদিকদের সিংহভাগ আবার ইংরেজি পেরিয়ে রুশ বোঝেন না, বলেন না, জানেন না৷

ফলে যা হবার হচ্ছে তাই৷ একেবারে যাচ্ছেতাই৷ সেন্ট পিটার্সবার্গ স্টেডিয়ামে গিয়ে প্রথম দিন অ্যাক্রিডিটেশন সেন্টার খুঁজেই পেলাম না আর৷ ম্যাচ দেখে, মিডিয়া সেন্টারে কাজ সেরে পরের দিন সকালে আবার একই যুদ্ধে৷ লাল-নীল জ্যাকেটের ভলান্টিয়ার ঘুরে বেড়াচ্ছে অসংখ্য৷ কেউ বলে ডানে যাও, কেউ বলে বাঁয়ে৷ স্যুটেড-বুটেড এক ভদ্রলোক তো সাহায্যের জন্য নিজের গাড়িতে চড়িয়ে পুরো স্টেডিয়াম ঘুরিয়ে কাঙ্খিত গন্তব্য হিসেবে এক জায়গায় ফেলে গেলেন৷ এ ক'দিনে শেখা গোটা কয়েক শব্দের রুশ শব্দভান্ডার থেকে ‘স্পাসিভা' অর্থাত্‍ ‘ধন্যবাদ' জানিয়ে বিদায় দিলাম তাঁকে৷ দরজা ঠেলে ভেতরে ঢুকে বুঝি, অ্যাক্রিডিটেশন সেন্টার মনে করে আমার চেনা মিডিয়া সেন্টারেই এনে ফেলেছেন ভদ্রলোক৷

এ অবস্থা সর্বত্র৷ সব জায়গায়৷ ভাষার ব্যবধান দূর হচ্ছে না কিছুতেই৷ রাশিয়ায় বিশ্বকাপ আয়োজন হচ্ছে বলে এ দেশের সবাইকে সার্বজনীন বৈশ্বিক ভাষা ইংরেজি শেখাতে হবে, এমন হাস্যকর দাবি কেউ করবে না৷ কিন্তু ভলান্টিয়ারদের তো অন্তত কাজ চালানোর মতো ইংরেজি জানতে হবে৷ বিশ্বকাপের আয়োজনের এ জায়গায় ডাঁহা ফেল করেছে স্বাগতিকরা৷ নিজেদের উঠোনে বিশ্বকে স্বাগত জানিয়ে ভাষার সেতুটাই যে তৈরি করতে পারলো না রাশিয়া!

আর সাধারণ মানুষের কথা কী আর বলার আছে! সাহায্য করার জন্য এক পায়ে খাড়া সবাই৷ কিন্তু ভাষাটা বুঝতে হবে তো! না বোঝার কারণে উল্টাপাল্টা দিকনির্দেশনা আর পরামর্শের শিকার হচ্ছি প্রতিনিয়ত৷ আর এরই মধ্যে বুঝে গেছি, বিশ্বকাপের শেষ পর্যন্ত এ ভাগ্য মেনে নিয়েই এগুতে হবে৷

বাংলাদেশে বিশ্বকাপ উন্মাদনা শুরু হয়ে যায় বিশ্বকাপের মাসখানেক আগে থেকেই৷ দেশ ছাড়ার আগেই তো দেখে এসেছি, ব্রাজিল-আর্জেন্টিনা সমর্থকদের রোমাঞ্চ৷ বাংলার আকাশ দখল করে রেখেছিল এই দুই দেশের পতাকা৷ ফাঁকে ফাঁকে উঁকি মারে ডিফেন্ডিং চ্যাম্পিয়ন জার্মানি, স্পেন, ফ্রান্সের পতাকাও৷ আমাদের ওই ফুটবলপাগল জনতা রাশিয়া বিশ্বকাপে এলে ভিমড়ি খেতেন নিশ্চিতভাবে৷

 

এখন পর্যন্ত কোনো রাড়ি, অফিস, স্থাপনার ছাদে একটি পতাকাও উড়তে দেখিনি৷ তা না হয় উড়লো না, তাই বলে বিশ্বকাপের প্রচারণাও কি থাকবে না সেভাবে! মস্কো ও সেন্ট পিটার্সবার্গের স্টেডিয়াম এবং ফ্যান জোনের বাইরে বোঝার উপায় নেই যে, এখানে বিশ্বকাপ হচ্ছে৷ মস্কো থেকে ব্রোনিৎসি গিয়েছিলাম আর্জেন্টিনার বেসক্যাম্প ঘুরে আসার জন্য৷ ওই ছোট্ট শহরেও তো লিওনেল মেসির মতো মহাতারকার উপস্থিতির প্রমাণ নেই সেভাবে৷ সে কারণে আবার ওই জনে জনে জিজ্ঞাসা; আবার ভাষার দুর্লঙ্ঘ্য দুস্তর পারাবার; আবার দিক ভুলে, এদিক-ওদিক ঘুরে তবেই প্রার্থিত জায়গায় পৌঁছানো৷

২০১৮ বিশ্বকাপের আরেকটি বড় সমস্যা দূরত্ব৷ পৃথিবীর ছয় ভাগের একভাগ স্থল নিয়ে এ দেশ রাশিয়া৷ ছড়িয়ে ছিটিয়ে থাকা ১১ শহরে হচ্ছে বিশ্বকাপের ম্যাচগুলো৷ এ এগারোর মধ্যে সবচেয়ে পশ্চিমের শহর কালিনিনগ্রাদ থেকে সবচেয়ে পুবের শহর ইয়েকাতেরিনবার্গের দূরত্ব মস্কো থেকে লন্ডনের দূরত্বের চেয়েও বেশি৷ ট্রেনে যেতে সময় লাগে ৩৬ ঘন্টা৷ সবগুলো শহরে আবার হাই স্পিড ট্রেন চলে না৷ আভ্যন্তরীণ ফ্লাইটের টিকেট পাওয়াও কঠিন৷ এক ভেনু্ থেকে আরেক ভেনু্তে যাওয়াটা তাই সমর্থকদের জন্য চাট্টিখানি কথা নয়৷ ২০০৬ জার্মানি বিশ্বকাপে যে সমস্যা ছিল না একেবারেই৷

সারা পৃথিবী থেকে আসা ফুটবলসমর্থকদের জন্য রাশিয়ার আবহাওয়াও বড় সমস্যা৷ বড্ড গোলমেলে তা৷ এই রোদ, এই বৃষ্টি৷ এই গরম, এই কনকনে শীত৷ রাশিয়ান গ্রীষ্মে এদেশের অধিবাসীরা রয়েছে বেশ আয়েশে৷ ফুটবলের অতিথিদের বেলায় তা বলা যাবে না কোনোমতেই৷

বর্ণবাদের সমস্যার সঙ্গে রাশিয়ার স্টেডিয়ামগুলোর লড়াইয়ের ইতিহাস অনেক দীর্ঘ৷ প্রতিপক্ষের কৃষ্ণাঙ্গ খেলোয়াড়দের ব্যঙ্গ করা, তাঁদের উদ্দেশ্যে বাঁদরের মতো ডাকা, কলা ছুঁড়ে দেবার মতো ঘটনা অগুনতি৷ ২০১৩ সালে ম্যানচেস্টার সিটির হয়ে এখানে খেলতে এসে এমন ঘটনার শিকার হয়ে ইয়া ইয়া তোরে বলেছিলেন, ‘‘এমনটা চলতে থাকলে কৃষ্ণাঙ্গ ফুটবলাররা এ বিশ্বকাপ বয়কট করতে পারে৷'' জল অতোদূর গড়ায়নি৷ আর এখন পর্যন্ত বিশ্বকাপে বর্ণবাদ নিয়ে বড়সড় সোরগোলও হয়নি৷ টেররিজম-হুলিগানিজম নিয়েও ঝামেলা হয়নি খুব৷ কিন্তু টুর্নামেন্টের মোটে প্রথম সপ্তাহটি তো গেল৷ সামনের তিন সপ্তাহে তেমন কিছু যে হবে না, সে গ্যারান্টি দেবে কে!আশঙ্কা তুলে রেখে আশায় না হয় বুক বাঁধি৷ কিন্তু ভাষা নিয়ে আশাবাদী হতে পারছি না মোটেও৷ স্টেডিয়ামে, মেট্রোয়, উবারে, রেস্টুরেন্টে, মার্কেটে, সুপারশপে সামনের তিন সপ্তাহেও রুশ ভাষার সঙ্গে ইংরেজির দড়ি টানাটানি চলবে৷ নতুন ভেনু্তে গিয়ে অ্যাক্রিডিটেশন সেন্টার খুঁজে পেতে আবার দু'দিন লাগলে এবার আর অবাক হবো না!

 

মস্কো ক্রেমলিন

ক্রেমলিন শব্দের অর্থ দুর্গ৷ রাশিয়ার অনেক শহরে এর দেখা পাওয়া যায়৷ তবে সবচেয়ে বিখ্যাত অবশ্যই রাজধানী মস্কোর ক্রেমলিন৷ অতীতে গ্র্যান্ড ডিউক, পরে সোভিয়েত সরকার আর এখন পুটিন সেখানে থেকে দেশ শাসন করছেন৷ ইউনেস্কোর বিশ্ব ঐতিহ্যের তালিকায় ক্রেমলিনের নাম আছে৷ আছে রেড স্কয়্যারের নামও৷

 



আজকের কার্টুন

লাইফস্টাইল

আজকের বাংলার মিডিয়া পার্টনার

অনলাইন জরিপ

প্রতিবেশী রাষ্ট্র মিয়ানমার রোহিঙ্গা দেরকে অত্যাচার করে ফলে ২০১৭ তে অগাস্ট ২৫ থেকে সেপ্টেম্বর পর্যন্ত ১ মাসে ৫ লক্ষ্য রোহিঙ্গা জাতিগোষ্ঠী বাংলাদেশে আশ্রয় নিয়েছে, আপনি কি মনে করেন বাংলাদেশ শরণার্থী দেরকে আবার ফিরে পাঠিয়ে দিক?

 হ্যাঁ      না      মতামত নেই    

সংবাদ আর্কাইভ