১৯ জুলাই ২০১৮ ইং
সাপ্তাহিক আজকের বাংলা - ৭ম বর্ষ ২৭ সংখ্যা: বার্লিন, সোমবার ০২জুল–০৮জুল ২০১৮ # Weekly Ajker Bangla – 7th year 27 issue: Berlin, Monday 02Jul-08 Jul 2018

টিটিকাকা লেকের নীচে জাদুঘর!

বার্লিনের কিছু মজার জাদুঘর

প্রতিবেদকঃ DW তারিখঃ 2018-07-08   সময়ঃ 04:52:24 পাঠক সংখ্যাঃ 12

পানির পরিমাণ এবং আয়তনের দিক দিয়ে দক্ষিণ অ্যামেরিকার সবচেয়ে বড় লেক টিটিকাকা৷ পেরু ও বলিভিয়ার মধ্যে অবস্থিত এই লেকটি স্থানীয়দের কাছে বেশ পবিত্র৷ এই লেকের নীচেই চলছে জাদুঘর বানানোর পরিকল্পনা৷ < DW

লেকের নীচে কী আছে! উত্তর জানতে অনেকবার ডুবুরি অভিযানে নেমেছেন বিভিন্ন দেশের অনুসন্ধিৎসু প্রত্নপ্রেমীরা৷ লেকের তলদেশ থেকে আবিষ্কার হয়েছে হাজার হাজার অমূল্যপ্রত্নসামগ্রী৷এরই পরিপ্রেক্ষিতে এবার লেকের নীচেই জাদুঘর বানাতে চায় বলিভিয়া সরকার৷

দেশটির সংস্কৃতিমন্ত্রী উইলমা আলানোকা জানিয়েছেন, ‘‘এটি একই সাথে একটি পর্যটন কমপ্লেক্স এবং প্রত্নতাত্বিক, ভূতাত্বিক এবং জীববিজ্ঞান বিষয়ক গবেষণার কেন্দ্রও হবে৷ বিশ্বে এটিই হবে এ ধরনের প্রথম জাদুঘর৷''

এই জাদুঘর তৈরিতে খরচ হবে ৮ দশমিক ৬ মিলিয়ন ইউরো৷ আর এই কাজে সহায়তা করবে বেলজিয়ামের উন্নয়ন সংস্থা এনাবেল৷ আলানোকা জানিয়েছেন, বেলজিয়াম সরকার এবং ইউনেস্কো এই প্রকল্পে ১ দশমিক ৭ ইউরো অর্থ সহায়তা করবে৷

লোকগল্পে আছে, সূর্য দেবতার ছেলে মানকো কাপাক এবং তাঁর স্ত্রী মামা ওকলো টিটিকাকা লেকের পানি থেকে উঠে এসেছিলেন৷ এ কারণে স্থানীয়দের কাছে এর গুরুত্বও অনেক৷

 

ইনকা মিথোলজির বেশ বড় অংশ জুড়ে আছেন মানকো কাপাক৷ বিশ্বাস আছে, ত্রয়োদশ শতক থেকে ষোড়শ শতক পর্যন্ত যে ইনকা সভ্যতা ছিল, তার রাজধানী, বর্তমানে পেরুর শহর কুসকোর প্রতিষ্ঠাতা ছিলেন এই কাপাক৷

প্রায় ৮৫০০ বর্গ কিলোমিটার এলাকা জুড়ে টিটিকাকা লেকের অবস্থান৷ সমুদ্রপৃষ্ঠ থেকে এর উচ্চ্তা ৩৮০০ মিটার৷ স্প্যানিশ উপনিবেশ হওয়ার আগ পর্যন্ত বেশ কিছু প্রাচীন সভ্যতার জন্ম দিয়েছে এই লেক৷

সাম্প্রতিক নানা অভিযানে হাড়, সিরামিক, ধাতুর তৈরি প্রায় ১০ হাজারের মতো প্রত্নসামগ্রী, রান্নার সরঞ্জাম এবং মানুষ ও প্রাণীর দেহাবশেষ পাওয়া গেছে৷ এর বেশিরভাগই তিওয়ানাকু-পূর্ব সভ্যতা (৩০০ খ্রিস্টাব্দ), তিওয়ানাকু সভ্যতা (৩০০-১১০০ খ্রিস্টাব্দ) এবং  ইনকা সভ্যতার (১১০০-১৫৭০ খ্রিস্টাব্দ) সময়কালের৷

জাদুঘরটির অবস্থান হবে রাজধানী লা পাজ থেকে প্রায় ১০০ কিলোমিটার দূরে৷

এডিকে/এসিবি (এএফপি)

বার্লিনের কিছু মজার জাদুঘর

জার্মানির আত্মসমর্পণের জাদুঘর

জাদুঘরটিকে সবাই ‘জার্মান-রাশিয়ান জাদুঘর’ নামেই চেনে৷ এটি আসলে দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধে জার্মানির আত্মসমর্পনের ইতিহাসের ধারক৷ কার্লসহর্স্ট এলাকায় এক জার্মান কর্মকর্তার মেসেই রাশিয়ার রেড আর্মির কাছে জার্মানির আত্মসমর্পণের বিষয়টি চূড়ান্ত হয়েছিল৷

লেখক: ইলে সায়মন/এসিবি

 

 



আজকের কার্টুন

লাইফস্টাইল

আজকের বাংলার মিডিয়া পার্টনার

অনলাইন জরিপ

প্রতিবেশী রাষ্ট্র মিয়ানমার রোহিঙ্গা দেরকে অত্যাচার করে ফলে ২০১৭ তে অগাস্ট ২৫ থেকে সেপ্টেম্বর পর্যন্ত ১ মাসে ৫ লক্ষ্য রোহিঙ্গা জাতিগোষ্ঠী বাংলাদেশে আশ্রয় নিয়েছে, আপনি কি মনে করেন বাংলাদেশ শরণার্থী দেরকে আবার ফিরে পাঠিয়ে দিক?

 হ্যাঁ      না      মতামত নেই    

সংবাদ আর্কাইভ