১৯ জুলাই ২০১৮ ইং
সাপ্তাহিক আজকের বাংলা - ৭ম বর্ষ ২৮ সংখ্যা: বার্লিন, সোমবার ০৯জুল–১৫জুল ২০১৮ # Weekly Ajker Bangla – 7th year 28 issue: Berlin, Monday 09Jul-15 Jul 2018

মাদকবিরোধী অভিযান ফের চাঙা

‘ক্রসফায়ার’ – একটি প্রদর্শনী

প্রতিবেদকঃ DW তারিখঃ 2018-07-11   সময়ঃ 17:55:17 পাঠক সংখ্যাঃ 44

কক্সবাজারের ওয়ার্ড কাউন্সিলর একরামুল হক হত্যার ঘটনার পর মাদকবিরোধী অভিযান অনেকটা স্তিমিত হলেও গত কয়েকদিনে আবার যেন পুরোদমে শুরু হয়েছে৷ আবারও বন্দুকযুদ্ধে নিহতের সংখ্যা বাড়ছে৷

বাংলাদেশে সম্প্রতি বড় মাত্রায় মাদকবিরোধী অভিযান শুরু হয় ১৪ মে থেকে৷  শুরুতে আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর সঙ্গে ‘বন্দুকযুদ্ধে' একদিনে ১২ জন নিহত হওয়ারও রেকর্ড আছে৷ আর শুরুর পর এক মাসে মোট নিহত হন ১৫০ জন৷ ২৭ মে রাতে আটকের কয়েক ঘণ্টা পর কক্সবাজারের ওয়ার্ড কাউন্সিলর এবং সাবেক যুবলীগ নেতা একরামুল হক গুলিতে নিহত হন৷ তাঁর পরিবারের পক্ষ থেকে অভিযোগ করা হয়, আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা একরামুলকে ধরে নিয়ে পরিকল্পিতভাবে হত্যা করেছে৷ স্থানীয় থানায় তাঁর বিরুদ্ধে মাদক ব্যবসায় জড়িত থাকার কোনো অভিযোগ ছিল না৷ এরপর সংবাদ সম্মেলন করে একরামুলের স্ত্রী ‘ক্রসফয়ারের' একটি টেলিফোন রেকর্ডের অডিও প্রকাশ করেন, যা সংবাদ মাধ্যমে প্রকাশ হলে ‘বন্দুকযুদ্ধের' ঘটনা নিয়ে তুমুল বিতর্ক শুরু হয়৷ একরামের পরিবার এবং স্থানীয় আওয়ামী লীগ নেতারা একরাম ‘হত্যার' বিচার দাবি করেন৷ আন্তর্জাতিক মানবাধিকার সংগঠন এবং বিভিন্ন বিদেশি দূতাবাস মাদকবিরোধী অভিযানে কথিত বন্দুকযুদ্ধে নিহত হওয়ার ঘটনার তীব্র সমালোচনা করে এ অভিযান বন্ধের দাবি জানায়৷ এরপর জুন মাসে মাসে মাদকবিরোধী অভিযানে ‘বন্দুকযুদ্ধে' নিহত হওয়ার ঘটনা কমে যায়৷ কমতে কমতে শূন্যের কোঠায় নেমে আসে৷ জুন মাসে ‘বন্দুকযুদ্ধে' নিহত হওয়ার সংখ্যা কমে আসার পিছনে ঈদুল ফিতরও একটি কারণ হিসেবে কাজ করেছে৷

তবে গত কয়েকদিনে মাদকবিরোধী অভিযানের সময় দেশের বিভিন্ন জেলায় এক-দুইজন করে বন্দুকযুদ্ধে নিহত হওয়ার খবর পাওয়া যাচ্ছিলো৷ বুধবার  দেশের চার জেলায় মাদকবিরোধী অভিযানে ‘বন্দুকযুদ্ধে' পাঁচজন নিহত হওয়ার খবর পাওয়া গেছে৷ কেরানিগঞ্জ, কুষ্টিয়া, লক্ষ্মীপুর ও নাটোরে র‌্যাব-পুলিশের সঙ্গে 'বন্দুকযুদ্ধে'  ওই পাঁচজন নিহত হন৷ আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর দাবি, নিহত সবাই চিহ্নিত মাদক বিক্রেতা৷

মাদকবিরোধী অভিযান শুরু হয়েছে প্রায় দুই মাস৷ মানবাধিকার সংগঠন আইন ও সালিশ কেন্দ্র (আসক)-এর  হিসেবে মাদকবিরোধী অভিযান শুরুর পর থেকে এ পর্যন্ত ‘বন্দুকযুদ্ধে' ১৮৮ জন নিহত হয়েছে৷ এর মধ্যে প্রথম একমাসেই নিহত হয়েছেন ১৫০ জন৷ আর এই অভিযানে নামের মিল থাকায় ভুল মানুষ, দাবিকৃত টাকা না পেয়ে, রাজনৈতিক কারণে ‘বন্দুকযুদ্ধে' নিহত হওয়ার অভিযোগ আছে৷ কিন্তু এসব অভিযোগে এখনো কোনো মামলা হয়নি৷ আর সাধারণভাবে কোনো পরিবারের মামলা করার সুযোগও নেই৷ কারণ, প্রতিটি ঘটনায়ই আইন-শৃঙ্খলা বাহিনী বাদী হয়ে মামলা করেছে৷ কক্সবাজারের ওয়ার্ড কাউন্সিলর একরামুল হক নিহত হওয়ার ঘটনায় মামলা করেছে র‌্যাব৷ টেকনাফ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা রনজিত কুমার বড়ুয়া ডয়চে ভেলেকে জানান, ‘‘মোট তিনটি মামলা হয়েছে৷ একটি র‌্যাবসহ আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর ওপর হামলা, একটি অস্ত্র আইনে এবং তৃতীয়টি মাদক আইনে৷ প্রথম মামলায় নিহত হওয়ার ৩০২ ধারাও আছে৷ মামলায় বলা হয়েছে, আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর ওপর হামলার পর বন্দুকযদ্ধে একরাম নিহত ও সহযোগীরা পালিয়ে যান৷ ঘটনাস্থল থেকে অস্ত্র এবং গুলি উদ্ধার দেখানো হয়েছে দ্বিতীয় মামলায়৷ আর মাদক আইনের মামলায় মাদক দ্রব্য উদ্ধার দেখানো হয়েছে৷''

তিনি আরেক প্রশ্নের জবাবে বলেন, ‘‘একরামের পরিবারের পক্ষ থেকে থানায় কোনো লিখিত বা মৌখিক অভিযোগ করা হয়নি৷ আমরা মামলাটির তদন্ত করছি৷''

এদিকে বুধবার একরামের স্ত্রী'র সঙ্গে যোগাযোগের চেষ্টা করে তাঁর মোবাইল ফোন বন্ধ পাওয়া যায়৷ পরিবারের অন্য দুই সদস্যের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তাঁরা মামলা নিয়ে কোনো কথা বলতে চাননি৷ জানা গেছে, একরামের স্ত্রী এখন তাঁর মোবাইল ফোনটি আর অন করেন না৷ আর অধিকাংশ সময় তিনি তাঁর দুই মেয়েকে নিয়ে চট্টগ্রামে থাকেন৷

জাতীয় মানবাধিকার কমিশনের সাবেক চেয়ারম্যান অধ্যাপক ড. মিজানুর রহমান ডয়চে ভেলেকে বলেন, ‘‘এইসব ঘটনায় মামলা হয়৷ আর মামলা করে আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী৷ ফলে এইসব মামলার তদন্তে প্রকৃত ঘটনা জানা যায় না৷ আর তদন্ত যা হয়, তা নির্বাহী তদন্ত৷ ওই তদন্তও তেমন কাজে আসে না৷ আইন-শৃঙ্খলা বাহিনী মামলা করলেও যে-কেউ এখানে পার্টি হতে পারে৷ কিন্তু সেই পরিবেশ নেই৷''

আরেক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ‘‘আমি মানবাধিকার কশিমনের চেয়ারম্যান থাকাকালে বেশ কয়েকটি ঘটনার তদন্ত স্বাধীনভাবে করেছিল কমিশন৷ তাতে কয়েকটি ঘটনায় ক্রসফায়ার বা বন্দুকযুদ্ধের সত্যতা পাওয়া যায়নি৷ আমরা ঘটনার সঙ্গে জড়িত আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যদের বিরুদ্ধে মামলার সুপারিশ করেছিলাম স্বরাষ্ট্রমন্ত্রনালয়ের মাধ্যমে পুলিশ সদরদপ্তরে৷ তার দু-একটি ঘটনায় মামলা হয়েছে বলে মনে পড়ে৷ অধিকাংশ ঘটনায়ই মামলা হয়নি৷''

 

তিনি আরো বলেন, ‘‘একরামকে হত্যার পর অভিযান তীব্র সমালোচনার মুখে পড়ে৷ যারা এই কাজে যুক্ত ছিলেন, তারা সতর্ক হয়ে যান৷ ফলে আমরা দেখি, বন্দুকযুদ্ধে নিহতের সংখ্যা কমতে থাকে৷ কিন্তু তাদের এই ধীরে চলো নীতি ছিল কিছু দিনের জন্য৷ তারা আবার আগের মতোই শুরু করেছে৷ অভিযানের নামে বন্দুকযুদ্ধে নিহতের সংখ্যা আবার বাড়ছে৷ কমে যাওয়ায় আমরা আশ্বস্ত হয়েছিলাম৷ কিন্তু এখন আমরা আবার উদ্বিগ্ন৷''

আইন ও সালিশ কেন্দ্রের সাবেক নির্বাহী পরিচালক, মানবাধিকার কর্মী নূর খান ডয়চে ভেলেকে বলেন, ‘‘বন্দুকযুদ্ধ বা ক্রসফায়ারের অনেক ঘটনা যে হত্যাকাণ্ড তা প্রমানের জন্য যথেষ্ট সাক্ষ্য-প্রমাণ আমাদের কাছে আছে, মানুষের কাছে, সাংবাদিকদের কাছে আছে৷ কিন্তু যে ভয়ার্ত পরিবেশ সৃষ্টি করা হয়েছে, তাতে ওইসব সাক্ষ্য-প্রমাণ নিয়ে মানুষ কথা বলতে সাহস পাচ্ছে না৷ কেউ কথা বলতে চাইলে তাকে থামিয়ে দেয়া হয়৷ পুলিশ এইসব মামলায় যে প্রতিবেদনই দিক না কেন, তাতে নারাজি দিয়ে  বা অধিকতর তদন্তের আবেদন করা যায় আদালতে৷ কিন্তু সেটার জন্য পরিবেশ পরিস্থিতির প্রয়োজন৷ আর একবার মামলা হলে থানায় ওই ঘটনায় আরেকটি মামলা করা সুযোগ থাকে না৷''

তিনি আরেক প্রশ্নের জবাবে বলেন, ‘‘একরাম হত্যার  অডিও ক্লিপ প্রকাশের পর মানুষ চরম বেদনা অনুভব করে৷ তাঁরা স্বজন হারানোর কষ্ট অনুভব করে৷ তাই কিছুদিন বন্দুকযুদ্ধ বন্ধ রেখেছিল আইন-শৃঙ্খলা বাহিনী৷ এখন আবার শুরু করেছে৷ তারা এর মাধ্যমে দেশে এক ভয়ার্ত পরিবেশ সৃষ্টি করে রাখতে চায়, যাতে কোনো প্রতিবাদ বা আন্দোলন হতে না পারে৷''

‘ক্রসফায়ার’ – একটি প্রদর্শনী

মৃতদেহের পাশে কোনো গুলি ছিল না

পশ্চিম কুনিয়া বাগানবাড়ি, বরিশাল৷ একজন মহিলা দেখতে পেলেন ধানক্ষেতে একটা মৃতদেহ পড়ে আছে৷ ব়্যাবের লোকজন তাদের গাড়ি থেকে গুলি এনে মাটিতে ছড়িয়ে ছিটিয়ে দিচ্ছে৷ মহিলাটি প্রথম যখন মৃতদেহটা দেখেন তখন সেখানে কোনো গুলি ছিল না৷ আশেপাশে কোনো রক্তও ছিল না৷ ধানক্ষেতে পায়ে মাড়ানোর কোনো চিহ্ন ছিল না৷

 

আনিস কেন মারা গেল?

আনিসুর রহমান, ছাত্রদলের স্থানীয় এক নেতা৷ রাত আড়াইটার দিকে মোহাম্মদপুর থেকে তাঁকে আটক করা হয়৷ দু’জন প্রতক্ষ্যদর্শী জানান, ব়্যাব ৪-এর একটি দল আনিসের বাসায় তল্লাশি চালায়, কোনো পরোয়ানা বাদেই৷ দু’দিন বাদে সকালে ঢাকা মেডিক্যাল কলেজে আনিস মারা যান৷ ব়্যাবের দুই কর্মকর্তা হাসপাতাল থেকে আনিসের কাগজপত্র সরিয়ে ফেলেছে বলেও জানান এক প্রতক্ষ্যদর্শী৷

 

ক্রসফায়ারে শেষ মোহাম্মদ

মোহাম্মদ মইনউদ্দিন৷ ও আর নিজাম রোড৷ মেহেদিবাগ৷ পাঁচলাইশ থানা৷ চট্টগ্রাম৷ তাঁর বাড়িতে ফোন করে জানানো হলো তিনি ক্রসফায়ারে মারা গেছেন৷ ব়্যাবের নজরদারিতেই জেনারেল হাসপাতালে তাঁর ময়নাতদন্ত হলো৷ মৃতের পিঠে চারটি গুলির চিহ্ন বাদেও বুকে সাতটা ছোট ফুটো পাওয়া যায়৷

 

সেন্টুকে নিয়ে যায় ব়্যাব-৩

মো. মশিউল আলম সেন্টু৷ ছাত্রদলের সহসভাপতি৷ আনুমানিক সন্ধ্যে সাতটার দিকে সেন্টুরা রিকশায় করে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের স্যার এ এফ রহমান হল থেকে নীলক্ষেত মোড়ে এলেন৷ ব়্যাব ৩ লেখা একটি সাদা মাইক্রোবাস সেন্টুদের থামার নির্দেশ দিতে দিতে ওদের পেছনে পেছনে আসছিল৷ ব়্যাব কর্মকর্তারা রিকশা আরোহীদের থামিয়ে সেন্টুর বাঁ পায়ে গুলি করে৷ এরপর তোয়ালে দিয়ে চোখ বেঁধে, হাত পিছমোড়া করে গাড়িতে তুলে নিয়ে চলে যায়৷

 

শরীরে বৈদ্যুতিক শকের দাগ

সুমন আহমেদ মজুমদার ছিলেন যুবলীগের সহসম্পাদক৷ বাড়ি টঙ্গির আমতলীতে৷ এক তরুণসহ সুমনকে চোখ বেঁধে ধরে নিয়ে যাওয়া হয়৷ এক রেস্তোরাঁয় বসিয়ে তাঁর হাতে একটা খাম ধরিয়ে দিয়ে খুলতে বলা হয়৷ ভেতরে দু’টো ৫০০ টাকার নোট আর একটা সাদা কাগজ৷ তাঁর বিরুদ্ধে চাঁদাবাজির অভিযোগ৷ হাসপাতাল রেজিস্ট্রার সুমনের ডান পায়ের গভীর ক্ষত আর সারা গায়ে আঘাতের চিহ্ন দেখে অনুমান করেন, তাঁকে বৈদ্যুতিক শক দেয়া হয়েছিল৷

 

 

 



আজকের কার্টুন

লাইফস্টাইল

আজকের বাংলার মিডিয়া পার্টনার

অনলাইন জরিপ

প্রতিবেশী রাষ্ট্র মিয়ানমার রোহিঙ্গা দেরকে অত্যাচার করে ফলে ২০১৭ তে অগাস্ট ২৫ থেকে সেপ্টেম্বর পর্যন্ত ১ মাসে ৫ লক্ষ্য রোহিঙ্গা জাতিগোষ্ঠী বাংলাদেশে আশ্রয় নিয়েছে, আপনি কি মনে করেন বাংলাদেশ শরণার্থী দেরকে আবার ফিরে পাঠিয়ে দিক?

 হ্যাঁ      না      মতামত নেই    

সংবাদ আর্কাইভ