২২ আগস্ট ২০১৮ ইং
সাপ্তাহিক আজকের বাংলা - ৭ম বর্ষ ৩০ সংখ্যা: বার্লিন, সোমবার ২৩জুল–২৯জুল ২০১৮ # Weekly Ajker Bangla – 7th year 30 issue: Berlin, Monday 23Jul-29Jul 2018

ইন্দোনেশিয়ার কারাগারে ‘বিলাসী' জীবন

‘স্বপ্নের নিবাস’ জেলখানা!

প্রতিবেদকঃ DW তারিখঃ 2018-07-28   সময়ঃ 02:44:17 পাঠক সংখ্যাঃ 61

ইন্দোনেশিয়ার বেশিরভাগ কারাগারের অবস্থাই শোচনীয় এবং জনাকীর্ণ৷ কিন্তু এবার জানা গেল টাকা দিলে কারাগারে মিলছে বিলাসী জীবনযাপনের ব্যবস্থা৷ আর এমন অবৈধ সুযোগ দেয়ার দায়ে গ্রেপ্তার হয়েছেন কারাগারের কর্মকর্তারাও৷

শীতাতপ নিয়ন্ত্রিত কক্ষ, টেলিভিশন, বড় ফ্রিজ, নিজস্ব বাথরুম, শুনে কারাগার তো নয়ই, মনে হতে পারে হোটেলের বর্ণনা৷

ইন্দোনেশিয়ার পশ্চিম জাভার সুকামিসকিন কারাগারে পাওয়া গেছে এমন ‘হোটেল'৷ কারাগারের কর্মকর্তাদের বিরুদ্ধে পয়সাওয়ালা এবং প্রভাবশালী বন্দিদের বিলাসবহুল দ্রব্য সরবরাহের অভিযোগ উঠেছে৷ বিশেষ এই সুবিধা দিতে বন্দিদের কাছ থেকে ১৯ থেকে ৩৫ হাজার ডলার ঘুস নেয়ারও প্রমাণ মিলেছে৷

এমনকি, এসব বন্দিদের কিছু ক্ষেত্রে কারাগারের চাবিও সরবরাহ করা হয়, যাতে তারা নিজেদের ইচ্ছেমতো আসাযাওয়া করতে পারেন৷

দেশটির দুর্নীতি দমন সংস্থা ‘ইন্দোনেশিয়ান করাপশন ইরাডিকেশন কমিশন' (কেপিকে) ২২ জুলাই অভিযান চালিয়ে বেশ কয়েকজন বন্দি ও কারাগার কর্মকর্তাকে আটক করেছে৷

কেপিকে মুখপাত্র ফেবরি দিয়ানশা বলছেন, তাঁরা কারাগারের তত্ত্বাবধায়ক ওয়াহিদ হুসেনকে ঘুষ দেয়া-নেয়ায় ব্যবহৃত অর্থ ও কিছু যানবাহন জব্দ করেছেন৷ কেপিকের হাতে আটকদের মধ্যে আছেন হুসেনও৷

তিনি জানান, ‘‘কেপিকের তদন্তকারীরা প্রায় ২০ হাজার ডলার সমমূল্যের নগদ ইন্দোনেশিয়ান রুপাইয়া, কেনাকাটার কাগজ, গাড়ির রসিদ এবং দুটি গাড়িও জব্দ করেছেন৷''

 

অভিযানে কিছু কক্ষ খুলতে বেশ বেগ পেতে হয়েছে তদন্তকারীদের, কারণ সে কক্ষগুলোর পূর্ণ নিয়ন্ত্রণ ছিল বন্দিদের হাতেই৷

সুকামিসকিন একটি বিশেষ কারাগার, যেখানে মূলত দুর্নীতির দায়ে সাজাপ্রাপ্ত সাবেক উচ্চপদস্থ কর্মকর্তা এবং ব্যবসায়ীদের রাখা হয়৷

বিচ্ছিন্ন ঘটনা নয়

শুধু বিলাসী কক্ষই নয়, সুকামিসকিন কারাগার কর্তৃপক্ষের বিরুদ্ধে কিছু বন্দিকে বিশেষ সুযোগ দেয়ার অভিযোগও আছে৷

গত বছর ইন্দোনেশিয়ার টেম্পো ম্যাগাজিনে প্রকাশিত এক খবরে বলা হয়, ঐ কারাগারের কিছু বন্দিকে পাহারা ছাড়াই বাইরে যাওয়ার সুযোগ দেয়া হতো৷ এমনকি সুকামিসকিন কারাগার কর্তৃপক্ষের সম্মতিপত্র নিয়ে কোনো কোনো বন্দি শুধু আত্মীয়স্বজনের সাথে দেখাই না, শপিংও করতে যেতেন বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে৷

২০১০ সালে দেশটির বিভিন্ন সংবাদমাধ্যমে প্রকাশিত খবরে বলা হয়, দুর্নীতির দায়ে সাজাপ্রাপ্ত সাবেক কর কর্মকর্তা গায়ুস তাম্বুনানকে বালির এক রিসোর্ট দ্বীপে আন্তর্জাতিক টেনিস টুর্নামেন্টে খেলা দেখতে দেখা যায়৷

আয়ু পূর্বানিংসিহ/এডিকে

প্রথম দর্শনে স্বপ্নের নিবাস

অপরাধ নেই৷ তাই নিজেদের কারাগারগুলো বেলজিয়াম ও নরওয়েকে ব্যবহারের অনুমতি দিয়েছে ডাচ সরকার৷ তারপরও অনেক জায়গা খালি৷ তাই এবার কর্তৃপক্ষ সিদ্ধান্ত নিয়েছে আশ্রয়প্রার্থী শরণার্থীদের অস্থায়ী নিবাস হিসেবে এ সব কারাগার ব্যবহারের৷ ছবিটি আমস্টারডামের দক্ষিণ-পূর্বাঞ্চলের বেলমারবায়েস কারাগারের৷ এটি এখন একটি শরণার্থী আশ্রয় কেন্দ্র৷

 

 



আজকের কার্টুন

লাইফস্টাইল

আজকের বাংলার মিডিয়া পার্টনার

অনলাইন জরিপ

প্রতিবেশী রাষ্ট্র মিয়ানমার রোহিঙ্গা দেরকে অত্যাচার করে ফলে ২০১৭ তে অগাস্ট ২৫ থেকে সেপ্টেম্বর পর্যন্ত ১ মাসে ৫ লক্ষ্য রোহিঙ্গা জাতিগোষ্ঠী বাংলাদেশে আশ্রয় নিয়েছে, আপনি কি মনে করেন বাংলাদেশ শরণার্থী দেরকে আবার ফিরে পাঠিয়ে দিক?

 হ্যাঁ      না      মতামত নেই    

সংবাদ আর্কাইভ