২২ আগস্ট ২০১৮ ইং
সাপ্তাহিক আজকের বাংলা - ৭ম বর্ষ ৩১ সংখ্যা: বার্লিন, সোমবার ৩০জুল–০৫অগা ২০১৮ # Weekly Ajker Bangla – 7th year 31 issue: Berlin, Monday 30Jul-05Aug2018

‘আঙ্কের’ অভিবাসী ট্রানজিট সেন্টার খুলল বাভেরিয়া

জার্মানিতে উৎসাহে ভাটা

প্রতিবেদকঃ DW তারিখঃ 2018-08-02   সময়ঃ 18:44:04 পাঠক সংখ্যাঃ 31

অস্ট্রিয়া সীমান্ত দিয়ে জার্মানিতে প্রবেশ করা অভিবাসীদের জন্য প্রথম বিতর্কিত ট্রানজিট সেন্টার চালু করেছে দক্ষিণাঞ্চলীয় বাভেরিয়া প্রদেশ৷ আশ্রয়প্রার্থীর সংখ্যা কমানোর পরিকল্পনার অংশ হিসেবে এসব সেন্টার তৈরি করা হচ্ছে৷

বাভেরিয়ায় প্রথম ট্রানজিট সেন্টার

জার্মানির স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী হর্স্ট সেহোফারের অভিবাসন বিষয়ক মহাপরিকল্পনার অংশ এসব সেন্টার৷ আশ্রয়প্রার্থীকে এদেশে থাকতে দেওয়া হবে কি না, সে সিদ্ধান্ত চূড়ান্ত হওয়া পর্যন্ত তাদের এসব কেন্দ্রে রাখার পরিকল্পনা থেকে এগুলো করা হয়েছে৷

 

নিয়ন্ত্রিত অভিবাসন

বাভেরিয়া মোট সাতটি ‘আঙ্কের’ সেন্টার চালু করবে৷ প্রতিটিতে এক থেকে দেড় হাজার শরণার্থীকে রাখা যাবে৷ জার্মান শব্দ ‘আনকুন্ফট’, এনশাইডুং ও রুকফুরুং (পৌঁছানো, সিদ্ধান্ত, ফেরত) থেকে এই নামকরণ করা হয়েছে৷

 

বিচ্ছিন্নতার সতর্কবার্তা

সেন্টারগুলোকে বিতাড়ন শিবির আখ্যায়িত করে উদ্বেগ জানিয়েছে বিভিন্ন চার্চ গ্রুপ, শরণার্থীদের অধিকার রক্ষায় সোচ্চার কর্মী এবং বিরোধী দলগুলো৷ এর মধ্য দিয়ে অভিবাসী কমিউনিটিগুলোকে বিচ্ছিন্ন করা হবে বলে সতর্ক করেছেন তারা৷ বেসরকারি সংস্থা সেইভ দ্য চিলেড্রন বলছে, এসব সেন্টার আশ্রয়প্রার্থীদের জন্য দুশ্চিন্তা এবং তাদের ওপর বলপ্রয়োগের জায়গা হবে বলে সেগুলো শিশুদের জন্য সহায়ক হবে না৷

 

সমঝোতার ফসল

চ্যান্সেলর আঙ্গেলা ম্যার্কেল ও স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী হর্স্ট সেহোফারের শেষ মুহূর্তের রাজনৈতিক সমঝোতার ফল হিসেবে এসেছে এসব সেন্টার৷ অভিবাসীদের সীমান্তে নিয়ে যাওয়ার সেহোফারের প্রাথমিক পরিকল্পনা বড় ধরনের রাজনৈতিক সংকট তৈরি করেছিল, যাতে ম্যার্কেলের খ্রিষ্টীয় গণতন্ত্রী পার্টি, তাদের বাভেরিয়ায় সহযোগী দল সিএসইউ ও সোশ্যাল ডেমোক্র্যাটদের জোট সরকার উৎখাতের উপক্রম হয়েছিল৷

 

জার্মানিতে উৎসাহে ভাটা

এসব সেন্টার প্রতিষ্ঠার সিদ্ধান্ত কেন্দ্রীয় সরকার পর্যায়ে হলেও এগুলোর দায়দায়িত্ব মূলত রাজ্যগুলোর ওপর৷ বাভেরিয়া প্রথম এই উদ্যোগ নিয়েছে, যেখানে আগামী অক্টোবরে গুরুত্বপূর্ণ ভোটের লড়াইয়ে নামতে হবে সেহোফারের রক্ষণশীল সিএসইউকে৷ তবে অন্য রাজ্যগুলোর কতগুলো মাইগ্রেন্ট ট্রান্সফার সেন্টার তৈরিতে সময় নিচ্ছে, আর অন্যগুলো এটা করতে অস্বীকৃতি জানিয়েছে৷

 



আজকের কার্টুন

লাইফস্টাইল

আজকের বাংলার মিডিয়া পার্টনার

অনলাইন জরিপ

প্রতিবেশী রাষ্ট্র মিয়ানমার রোহিঙ্গা দেরকে অত্যাচার করে ফলে ২০১৭ তে অগাস্ট ২৫ থেকে সেপ্টেম্বর পর্যন্ত ১ মাসে ৫ লক্ষ্য রোহিঙ্গা জাতিগোষ্ঠী বাংলাদেশে আশ্রয় নিয়েছে, আপনি কি মনে করেন বাংলাদেশ শরণার্থী দেরকে আবার ফিরে পাঠিয়ে দিক?

 হ্যাঁ      না      মতামত নেই    

সংবাদ আর্কাইভ