২৪ অক্টোবর ২০১৮ ইং
সাপ্তাহিক আজকের বাংলা - ৭ম বর্ষ ৪০সংখ্যা: বার্লিন, সোমবার ০১অক্ট–০৭অক্ট ২০১৮ # Weekly Ajker Bangla – 7th year 40 issue: Berlin, Monday 01Oct-07Oct 2018

৩ অক্টোবর জার্মান পুনরেকত্রীকরণ দিবস

ঐক্যের সমঝোতা

প্রতিবেদকঃ মোনাজ হক তারিখঃ 2018-10-03   সময়ঃ 19:50:24 পাঠক সংখ্যাঃ 56

আজ ৩ অক্টোবর জার্মান 'ইউনিটি ডে' বা পুনরেকত্রীকরণ দিবস এটি জার্মানির জাতীয় দিবস, এবং ৩ অক্টোবর একটি পাবলিক ছুটির দিন হিসাবে পালন করা হয়। একটি জাতির জাতীয়দিবস কিভাবে পরিবর্তন হয় তাই নিয়ে আজকের আমার এই লেখা। আমাদের অনেকেরই ধারনা কমুনিজমের পতনের পর বার্লিনের প্রাচীর ভেঙে দিয়ে দুই জার্মানির একত্রিকরণ হয়েছে।

এটি একটি পুর্নাঙ্গ ঘটনার অংশবিশেষ মাত্র, তাই আজ তার মাঝখানের আরো কিছু ঘটনা জানাতেই এই প্রতিবেদন।

ঐতিহাসিকভাবে, ঊনবিংশ শতাব্দীর গোড়ার দিকে, "জার্মান ঐক্য" জার্মান রাজ্যে রাষ্ট্রগুলির একত্রিত করার আকাঙ্ক্ষা ছিল। একতা ও সংহতির উদ্দেশ্যেই জার্মান জাতীয় সংগীততেও "ঐক্য" শব্দটি পাওয়া যায়।

১৮৭১ সালের পূর্বে জার্মান রাজ্যের এবং অঞ্চলে বিভিন্ন করণীয় দিনগুলি মূলত গৃহীত হয়েছিল, ঐক্যের সমঝোতায় । সেসময়ও জার্মানির রাজ্জ গুলির একত্রিকরণ এর পর ১৮৭১ সালে কাইজার উইলহেম-১ 'কাইজার সাম্রাজ্যের একীকরণ' করে। এবং প্রতি বছর ২ সেপ্টেম্বরে জাতীয়দিবস পালন করা হতো।

১৯১৯ সালের ৩১ জুলাই 'ওয়াইমার জাতীয় সংবিধান' দ্বারা 'ওয়াইমার রিপাব্লিক' গঠন ও জার্মান সংবিধানের চূড়ান্ত রূপে গৃহীত হয়। "গণতন্ত্রের জন্ম" স্মরণে ১১ আগস্ট সংবিধানের জাতীয় দিবস হিসাবে মনোনীত করা হয়েছিল, কারণ সেই দিনই রাইশ প্রেসিডেন্ট ফ্রেডরিখ এবার্ট সংবিধানে স্বাক্ষর করেছিলেন।

তারপর বহুযুগ পরে জার্মানিতে নাৎসি বাদের গোড়াপত্তন হয় ১৯৩৩ সালে, তার আগে 'জাতীয় সামাজিক দল' বা 'নাৎসি' দলের জন্ম হয়।

নাৎসি বা নাজি পার্টির নেতৃত্বে হিটলার ক্ষমতা গ্রহণের দিনটি ছিলো ৩০ জানুয়ারী ১৯৩৩, তার পর থেকেই সেই দিনটিকে জাতীয়দিবস হিসেবে পরবর্তী ১২ টি বছর পালন করা হতো। এবং সেইসাথে হিটলারের জন্মদিন ২০ এপ্রিলও জাতীয় ছুটির দিন হিসেবে পালন হতো।

১৯৩৩ থেকে ১৯৪৫ দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধ চলে, তারপর
'গণপ্রজাতন্তী জার্মানি' এবং 'ফেডারেল রিপাব্লিক জার্মানি' নামে দুটি দেশের জন্ম হয় ১৯৪৯ সালে। এর মাঝে ৪ টি বছর পুর্ব ও পশ্চিম জার্মানি মিত্রশক্তির অধিনে ছিলো। সোভিয়েত ইউনিউনের অধিনে পুর্ব জার্মানি এবং আমেরিকা, ব্রিটেনে ও ফ্রান্স এর অধিনে পশ্চিম জার্মানি।
১৯৪৯ থেকে ১৯৯০ সাল পর্যন্ত পুর্ব জার্মানির প্রজাতন্ত্রের 'জিডিআর'-তে ১৯৫৩ সালে জনপ্রিয় বিদ্রোহ ঘটে, তার স্মরণে ১৭ ই জুন একটি সরকারী ছুটির দিন ছিল পশ্চিম জার্মানিতে, যার নাম "জার্মান ইউনিটি ডে" ছিল। এটি ১৯৬৩ সাল থেকে রাষ্ট্রপতির ঘোষণার মাধ্যমে "জার্মান জনগণের জাতীয় স্মৃতিসৌধ" দিন হিসেবে ঘোষণা করেছিলেন।

জার্মানির একীকরণের বছর ১৯৯০ সালে সেই ১৭ জুন "জার্মান ইউনিটি দিবস" এর পরিবর্তে ৩ অক্টোবর "জার্মান ইউনিটি ডে" পালন করা হয়।

এবার দেখা যাক কিভাবে দুই জার্মানি একত্রীকরণ হলো।
সোভিয়েত নেতা মিখায়েল গর্বাচেভ তাঁর বহুল সমর্থিত "পেরেস্ত্রয়কা" এবং "গ্লাসনস" আদর্শের ভিত্তিতে সোভিয়েত ইউনিয়নে একদলীয় শাসন থেকে গনতান্ত্রিক ব্যবস্থায় ফিরে আসতে গনজাগরণ শুরু করেন সেটি ছিলো ১৯৮৫ সাল, তারপর ৪ টি বছর সমগ্র পুর্বইউরোপে এই গনজাগরণ ছড়িয়ে পরে। পুর্ব জার্মানিতে ও তার ছোঁয়াচ আসে ১৯৮৯ সালে, জনগন আর কমুনিজমের কঠোর তম রাষ্ট্রনিয়ন্ত্রিত ব্যবস্থার অবসান চায়, তারই প্রচন্ড বিদ্রোহ ঘটে ৯ নভেম্বর ১৯৮৯ বার্লিন প্রাচীর ধ্বংসের মাধ্যমে। কিন্তু তারমানেই নয় যে পুর্ব জার্মানি সেদিন থেকেই পশ্চিম জার্মানির অংশবিশেষ হয়ে গেলো, তা নয়। পুর্ব জার্মানির জনগন তাদের নিজেদের সরকার গঠন করে ভোটের মাধ্যমে।
এবং প্রায় একটি বছর চলে দুই জার্মান সরকারের মধ্যে আলোচনা, অবশেষে ৩ অক্টোবর ১৯৯০ ঘটে পুনরেকত্রীকরণ। এটি ছিলো জনগনের একান্ত আকাঙ্খা, যে দুই জার্মানি আবার একত্র হবে। আজকের জার্মান চ্যান্সেলর আঙ্গেলা মের্কেল ছিলেন একজন তরুন ৩৪ বছর বয়েসের সেই সময়ের পুর্ব জার্মান সরকার প্রধানের প্রেস সেক্রেটারি।

 



আজকের কার্টুন

লাইফস্টাইল

আজকের বাংলার মিডিয়া পার্টনার

অনলাইন জরিপ

প্রতিবেশী রাষ্ট্র মিয়ানমার রোহিঙ্গা দেরকে অত্যাচার করে ফলে ২০১৭ তে অগাস্ট ২৫ থেকে সেপ্টেম্বর পর্যন্ত ১ মাসে ৫ লক্ষ্য রোহিঙ্গা জাতিগোষ্ঠী বাংলাদেশে আশ্রয় নিয়েছে, আপনি কি মনে করেন বাংলাদেশ শরণার্থী দেরকে আবার ফিরে পাঠিয়ে দিক?

 হ্যাঁ      না      মতামত নেই    

সংবাদ আর্কাইভ